sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

নির্বাচন

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ শেষ হওয়া নিয়ে সংশয়



জমি অধিগ্রহণ জটিলতায় ছয় বছর পেছানোর পরও নির্ধারিত সময়ে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ শেষ হওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে নজরদারি না করা হলে সংশোধিত সময়সীমা ২০২১ সালেও প্রকল্পটি শেষ হবে না। তবে এক্সপ্রেসওয়ে নির্দিষ্ট সময়েই যান চলাচলের জন্য প্রস্তুত হবে বলে দাবি করছেন প্রকল্প পরিচালক।

রাজধানীতে যানজট নিরসনে সরকারি-বেসরকারি অংশিদারিত্বে সবচে বড় প্রকল্প এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। সংযোগ সড়কসহ ৪৬ কিলোমিটার দীর্ঘ প্রকল্পটি হযরত শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে শুরু হয়ে বনানী, মহাখালী, মগবাজার হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালি এলাকায় গিয়ে শেষ হবে।

এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের জন্য ২০১১ সালে ইতাল-থাইয়ের সঙ্গে প্রথম চুক্তি হয়। কিন্তু জমি অধিগ্রহণ জটিলতা, নকশা পরিবর্তন ও ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ২০১৩ সালে নতুন করে চুক্তি করতে হয়। এতে ব্যয় বেড়ে যায় দেড় হাজার কোটির টাকার বেশি। তাই দ্বিতীয় ধাপে নির্ধারিত সময়ে প্রকল্প শেষ করতে যথাযথ নজরদারির পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে প্রকল্প পরিচালক জানান, এরই মধ্যে বিমানবন্দর থেকে বনানী পর্যন্ত জমি হস্তান্তর করা হয়েছে। ২০২০ সালের মধ্যে প্রথম ধাপে মগবাজার পর্যন্ত প্রকল্পটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে। বনানী পর্যন্ত নির্মাণ কাজের ১০ এবং পুরো প্রকল্পের ২৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে বলেও জানান তিনি।


এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহার করে বিমানবন্দর থেকে কুতুবখালী যেতে মোটরসাইকেল ৪০, প্রাইভেটকার ১২০ এবং বাস-ট্রাক থেকে ৫০০ টাকা করে ২৫ বছর টোল আদায় করবে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply