sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » বঙ্গবন্ধুর ছবি নেই, আছে আইয়ুব খান, ব্যাখ্যা দিলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক




বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার নায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি নেই। অথচ পাকিস্তানের স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের তিনটি ছবি ছাপা হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রকাশিত 'বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস' গ্রন্থে। এ নিয়ে সমালোচনার মুখে গণমাধ্যমের কাছে ব্যাখ্যা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত বৃহস্পতিবার একটি দৈনিকে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বইতে পাকিস্তানের ভূত- ঠাঁই পাননি বঙ্গবন্ধু, আছে স্বৈরাচার আইয়ুব খান’ এবং পত্রিকাটির অনলাইন সংস্করণে, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বইয়ে পাকিস্তানের ভূত- দুরবিনেও মেলে না প্রধানমন্ত্রী ও আ.লীগের অবদান’ শীর্ষক দুটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
প্রতিবেদন প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ২০১৭ সালে প্রকাশিত এই গ্রন্থের সমালোচনা শুরু হয়।

এর প্রেক্ষিতে ব্যাংকের বিবৃতিতে বলা হয়,  গ্রন্থটি প্রকাশনার পরপরই এতে কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যত্যয় পরিদৃষ্ট হলে বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর গ্রন্থটির বিতরণ বন্ধ করার নির্দেশ দেন এবং গ্রন্থটি রিভিউ করার জন্য একজন ডেপুটি গভর্নরের নেতৃত্বে একটি রিভিউ কমিটি গঠন করেন।”
এতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস গ্রন্থের পাণ্ডুলিপি তৈরি ও প্রকাশনার সিদ্ধান্ত হয় ২০১৩ সালের জুন মাসে। এ বিষয়ে তখন উপদেষ্টা কমিটি ও সম্পাদনা নামে দুটি কমিটি গঠিত হয়। ওই কমিটি দুটি পাণ্ডুলিপি চূড়ান্ত করার পর গ্রন্থটি ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পরপরই এতে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হওয়ায় গভর্নর ফজলে কবির এর বিতরণ বন্ধ করার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে গ্রন্থটি পর্যালোচনার জন্য একজন ডেপুটি গভর্নরের নেতৃত্বে একটি রিভিউ কমিটি গঠন করেন।

”পর্যালোচনা কমিটি এরই মধ্যে দুটি সভা করে কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর অন্যতম হলো- গত আগস্টে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রবেশদ্বারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে আবক্ষ ভাস্কর্য স্থাপিত হয়েছে তার ছবিসহ গ্রন্থটিতে জাতির জনকের অবদানের যে ধারাবাহিক বর্ণনা (পৃষ্ঠা ৫১, ৭৭ ইত্যাদি) রয়েছে, তার ছবি সংগ্রহ করে সেগুলো সন্নিবেশ করা হবে সেখানে। গ্রন্থটির অ্যালবাম অনুচ্ছেদে বঙ্গবন্ধুর ছবিসংবলিত বিভিন্ন টাকার নোটের ছবি সংযোজন করা হবে। এছাড়া গ্রন্থটির সব অধ্যায় পুনরায় সম্পাদিত হবে এবং বাদ দেয়া হবে কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ও ছবি।”
গত ২৫ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন বর্তমান গভর্নর ফজলে কবির। গ্রন্থ সম্পাদনার দায়িত্বে বেশ কয়েকবার রদবদল হয়।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply