sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » ডান হাতে জিতেছো লাখো হৃদয়: মাশরাফি




৪৬.৫ ওভারে ভুল বুঝাবুঝির খেসারত হিসেবে রান আউট মুস্তাফিজুর রহমান। উইকেটের অন্যপ্রান্তে মুশফিকুর রহিম উল্টো ঘুরে হাটা ধরলেন প্যাভিলিয়নের দিকে। কিন্তু একটু গিয়ে থমকে গেলেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখলেন গ্লাভস ও ব্যাট হাতে মাঠে নামছেন তামিম। কিন্তু দুই আঙুলের ব্যান্ডেজ নিয়ে এও কি সম্ভব!
দেশের জন্য তার এ আত্মত্যাগ জাতি আজীবন মনে রাখবে কিনা তা সময়ই বলে দিবে। কিন্তু ক্রিকেট বিশ্বে তার এ ত্যাগ চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তামিম এদিন মাঠে নেমে প্রমাণ করলেন তার চেয়ে দেশ অনেক বড়। দেশের প্রতিনিধিত্ব করাই সম্মানের।

তার এ আত্মত্যাগের মূল কারিগর কে তাও কিন্তু বলেছেন তামিম ইকবাল। ম্যাচ শেষে এভাবে মাঠে নামার বিষয়টি খোলাসা করেন তামিম নিজেই। তিনি বলেন, মাশরাফি ভাই আমাকে আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছে। তবে মাশরাফির পরিকল্পনা ছিল মুশফিক নন স্ট্রাইকে থাকলেই কেবল ব্যাটিংয়ে নামবেন তামিম। অন্যথায় নয়। কিন্তু মুস্তাফিজ যখন আউট হন তখনও যে এক বল বাকি। এমন অবস্থায় তারপরও কেন মাঠে?
তামিম এ ব্যাপারটিও ক্লিয়ার করেন। তিনি বলেন, মুস্তাফিজ আউট হওয়ার পর ফিজিও মাঠে নামার ব্যাপারে আমাকে সবুজ সংকেত দেননি। কেননা মুশফিক তখন ননস্ট্রাইকিং প্রান্তে। কোচও বলেছেন এটা তোমার সিদ্ধান্ত। মাশরাফি ভাইও মানা করেছেন। তবে আমি নেমেছি। আমার মধ্যে আত্মবিশ্বাস ছিল। মাশরাফি ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেই আত্মবিশ্বাস বেড়েছে।
ক্রিকেট নিয়ে বাংলাদেশের তুমুল আবেগ ও উত্তেজনার ঢেউ দেখে মাশরাফি অনেকবারই বলেছেন, এটি স্রেফ একটি খেলা। তবে শনিবার শ্রীলঙ্কাকে হারানোর ম্যাচে ভাঙা কবজি নিয়ে তামিমের এক হাতে ব্যাট করতে নামাটা মাশরাফিকে ভাবিয়েছে নতুনভাবে।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মাশরাফি বলেছেন, তামিমের এই কীর্তি সবসময় মনে রাখা উচিত। সংবাদ সম্মেলনেও অনেক কথা হয়েছে তামিমকে নিয়ে। এরপরও বুঝি মাশরাফির মনে হলো, এটুকুই যথেষ্ট নয়। তাই তো ম্যাচ শেষের অনেক পর, ড্রেসিং রুমের জয়োৎসব, সংবাদ সম্মেলন আর যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভোর রাতে নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুকে প্রোফাইলে তামিমকে আবারও ভাসালেন প্রশংসায়। বাংলাদেশ অধিনায়ক লিখেছেন, বাঁ হাত ভেঙেছে, কিন্তু ডান হাতে তুমি জিতেছো লাখো হৃদয়। ক্রিকেট স্রেফ একটি খেলা... কখনও কখনও তা নয় তামিম!

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনের একটি বড় অংশ জুড়ে ছিল তামিমের প্রসঙ্গ। মাশরাফি অবশ্য প্রেক্ষাপট, পারিপার্শ্বিকতা বিস্তারিত নিজে সেভাবে বলতে চাননি। শুধু মনে করিয়ে দিলেন, দলের জন্য কত বড় ঝুঁকি নিয়েছিলেন তামিম।
নড়াইল এক্সপ্রেস বলেন, সিদ্ধান্তটা তামিমের ছিল, তামিমই ভালো বলতে পারবে। বিষয়টা তামিমের ওপর ছেড়ে দেয়া যাক। আমি শুধু বলি, তামিমকে মনে রাখা উচিত এই ম্যাচের জন্য। এখানে যেকোনো কিছু ঘটে যেতে পারতো। ওর ক্যারিয়ারের ব্যাপার ছিল এখানে। আমি মনে করি, সবার মনে রাখা উচিত।

ওয়ানডে অধিনায়ক আরো বলেন, আরেকটা ব্যাপার হচ্ছে, তামিম সেই সময় ব্যাট করতে নামায় মুশফিকও আত্মবিশ্বাস পেয়েছে, ওই ৩০-৩২ রান করার জন্য। আমি আসলে তামিমকে বলার জন্য কোনও ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। তামিমকে হ্যাটস অফ, সে সেইসময়ে ব্যাট করতে গিয়েছে।
ম্যাচ শেষে নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক পাতায় পেসার রুবেল হোসেন লিখেছেন, তামিমের কীর্তিতে গর্বিত তিনিও।
“অনেক অনেক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা রইল তামিম ভাই। স্যালুট জানাই আপনাকে। আমি গর্বিত, আমি বাঙালি।”

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply