sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » ডাকসু নির্বাচন: সব ছাত্র সংগঠনকে ডেকেছে ঢাবি প্রশাসন




ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল ছাত্র সংসদ নির্বাচনের জন্য ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনগুলোকে চিঠি দিয়ে ডেকেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর রোববার সকাল সাড়ে ১১ টায় উপাচার্যের কার্যালয় সংলগ্ন একটি কক্ষে সব ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক করবে প্রশাসন।
বুধবার ও বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এই চিঠিগুলো রাজনৈতিক ছাত্র-সংগঠনগুলোর সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক বরার পৌঁছে দেয়া হয়।

রাজনৈতিক ছাত্রসংগঠনগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের নাম উল্লেখ করে পাঠানো এই চিঠিগুলোতে লেখা হয়, "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবেশ পরিষদের এক সভা আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, রবিবার, সকাল ১১ঃ৩০ টায় প্রশাসনিক ভবনের ভাইস-চ্যান্সেলর অফিস সংলগ্ন অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে অনুষ্ঠিত হবে। মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করবেন। সার্বিক বিষয় বিবেচনায় শুধুমাত্র ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সভায় যোগদানের জন্য আমন্ত্রিত। সভায় উপস্থিত থাকার জন্য আপনাকে অনুরোধ করছি।"

চিঠির নিচের অংশে আলোচ্যসূচী হিসেবে লেখা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানী  বলেন, ডাকসু নির্বাচন নিয়ে আলাপ-আলোচনার জন্য আমরা ক্রিয়াশীল ছাত্রসংগঠনগুলোকে চিঠি দিয়েছি। ইতোমধ্যেই আমরা হলগুলোতে ভোটার তালিকা হালনাগাদের জন্য কাজ শুরু করেছি। নির্বাচনের সার্বিক দিক নিয়ে আলোচনার জন্যই ছাত্র সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে আলোচনায় বসবো।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি গণতান্ত্রিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে দেখতে চাই। ডাকসু নির্বাচন নিয়ে দীর্ঘদিন একটি অচলায়তন ছিলো। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেটি ভাঙ্গার উদ্যোগ নিয়েছে, আমরা সেটাকে স্বাগত জানাই। হাইকোর্টের কিছু নির্দেশনা রয়েছে। আমরা মনে করি, যে সামগ্রিকভাবে একটি ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি হয়েছে, তা ব্যবহার করে সকল ছাত্র সংগঠন সম্মিলিতভাবে ডাকসু নির্বাচনের প্রশ্নে ঐক্যবদ্ধ থাকে, এ ব্যাপারে যেনো সবাই যার যার সর্বোচ্চ সতর্কতা প্রদর্শন করে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ডাকসু নির্বাচনের জন্য সর্বোচ্চ প্রস্তুতি সম্পন্ন করছে।
বিএনপি সমর্থিত ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হক বিশ্ববিদ্যালয়ের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আজকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই আলোচনার চিঠি দেয়ার জন্য আমাদের খুঁজে পাচ্ছে না। অথচ এই চিঠি মধুর ক্যান্টিনে দেয়ার কথা ছিলো। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে গত ১০ বছরে আমরা মধুর ক্যান্টিনে যেতে পারিনি। এই কয়েক বছরে শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের ৫০০-৭০০ নেতাকর্মীকে মারধোর করা হয়েছে। প্রশাসন যদি চাইতো তবে এই ঘটনাগুলোর বিচার করতে পারতো।

তিনি বলেন, এই পরিবেশে আসলে কিভাবে আলোচনা করা যায়? একদিন ডেকে নিয়ে যদি শুধু আলাপ-আলোচনাই করে তাহলে তো আর হয় না। ডাকসু নির্বাচনের জন্য আগে ক্যাম্পাসে মুক্ত মতের পরিবেশ তৈরি দাবি জানাচ্ছি। এই অচলাবস্থার অবসান ঘটিয়ে যদি কার্যকরভাবেই ক্যাম্পাসে সহাবস্থানের রাজনীতি নিশ্চিত করে প্রশাসন তাহলে আমরা অবশ্যই নির্বাচনে অংশ নেবো।
ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী আরটিভি অনলাইনকে বলেন, ডাকসু নির্বাচনের জন্য কী কী পলিসি তারা তৈরি করবে আমরা সেটা নিয়ে আলোচনা করবো। আমরা বলবো যে, সবার জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা এবং তার পূর্বে হলগুলোতে দখলদারিত্ব বন্ধ করা।  কারণ হলগুলোতে ক্ষমতাসীন ছাত্রসংগঠনের যে ধরনের দখলদারিত্ব, সেখানে চাইলেও অন্য সংগঠনের নেতাকর্মীরা থাকতে পারে না। জগন্নাথ হলসহ দুয়েকটা হল ছাড়া ক্ষমতাসীনের বাইরে অন্যকোন ছাত্রসংগঠন যে কার্যক্রম চালাবে সে ধরনের পরিস্থিতি বিরাজমান না। সেজন্য আমরা চাইবো ডাকসু নির্বাচনের আগে ক্যাম্পাসে সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি করা হোক।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply