sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » » নিখোঁজ’ সাংবাদিক জামাল খাশোগি কনসুলেটে সব রেকর্ড করেছিলেন !


নিখোঁজ’ সাংবাদিক জামাল খাশোগি কনসুলেটে সব রেকর্ড করেছিলেন  !

দিন দশেক আগে তাঁকে শেষ বার দেখা গিয়েছিল ইস্তানবুলে সৌদি কনসুলেটে ঢুকতে। তার পর থেকেই বেমালুম ‘নিখোঁজ’ সাংবাদিক জামাল খাশোগি। তুরস্কের দাবি, আগাগোড়া সৌদি রাজ পরিবারের সমালোচক হওয়ায় তাঁকে মেরেই ফেলেছে সে দেশের সরকার। আজ বোমা ফাটাল একটি তুর্কি দৈনিক। তাদের দাবি, সে দিন জামালের সঙ্গে যা ঘটেছে, তা তিনি নিজেই রেকর্ড করেছিলেন অ্যাপলের ঘড়িতে।

তার পর? তুরস্কের সরকারপন্থী ওই সংবাদমাধ্

যমের দাবি, রেকর্ড করা সে সব অডিয়ো ক্লিপ আইক্লাউডের পাশাপাশি ট্রান্সফার হয়েছে জামালের আইফোনেও। সেই ফোন, যা তিনি তাঁর বাগদত্তার কাছে রেখে গিয়েছিলেন। সরকারি ভাবে কোনও দেশই এ নিয়ে মন্তব্য করেনি। তবে আজই প্রথম নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সৌদি কর্তা জানিয়েছেন, ২ অক্টোবর খাশোগিকে খুন করা হয়ে থাকতেও পারে। গোড়া থেকে অভিযোগ অস্বীকার করলেও, তুর্কি সংবাদমাধ্যমের এই রিপোর্টের পরে স্পষ্টতই চাপের মুখে সৌদি প্রশাসন। সৌদি নাগরিক হলেও ‘রাজরোষের জেরে’ জামাল আমেরিকাতে স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েছিলেন। তিনি কাজও করতেন প্রথম সারির এক মার্কিন দৈনিকে। তাঁকে নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কাল জানিয়েছেন, শীঘ্রই তিনি এ নিয়ে সৌদি রাজা সলমনকে ফোন করবেন। আজ আবার এক মার্কিন সংবাদমাধ্যমকে ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘সাংবাদিক নিখোঁজ রহস্যে সৌদির দোষ প্রমাণিত হলে, কড়া শাস্তি দেবে আমেরিকা।’’


ট্রাম্পের সৌদি-প্রীতি অজানা কিছু নয়। হোয়াইট হাউসে আসার পরে প্রথম বার বিদেশ সফরেও তিনি সৌদিতেই পা রাখেন। সরকারি ভাবে মুখ না খুললেও, ট্রাম্পের উদ্বেগ চাপ বাড়াচ্ছে রিয়াধের। ট্রাম্প প্রশাসন সূত্রের খবর, জামাল নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে বিশেষত তুরস্ক এবং সৌদি আরবে মার্কিন কূটনীতিকের সংখ্যা দ্রুত কমছে। আর বিষয়টা যে নেহাত প্রশাসনিক কারণে নয়, সেটাও আন্দাজ করছেন অনেকে। এরই মধ্যে আবার ওই অ্যাপল-ঘড়ির কাঁটা!

তুর্কি দৈনিকটিতে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, জামালকে খুনের জন্য সম্ভবত ১৫ জনের একটা স্কোয়াড তৈরি করেছিল রিয়াধ। ব্যক্তিগত কারণে সে দিন ওই সাংবাদিক কনসুলেটে ঢোকার পরেই তাঁকে বন্দি করা হয়। চলে নির্যাতন এবং শেষে খুন! এমনটা যে হতে পারে, তা আঁচ করেই জামাল অ্যাপল-ঘড়ির রেকর্ডিং চালু করেছিলেন বলে দাবি তাদের।


প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ-ও বলা হয়েছে যে, একটা সময়ে জামালের খুনিরা অ্যাপল-ঘড়ির কথা জানতে পারেন এবং অডিয়ো-ফাইল মুছতে  সেটির অপারেটিং সিস্টেমে ঢোকার চেষ্টা করে। বেশ কয়েক বার পাসওয়ার্ড দিয়ে ঘড়ি ‘আনলক’ করার চেষ্টা হয়। শেষমেশ কাজে লাগে সাংবাদিকের ‘ফিঙ্গারপ্রিন্ট’। খুনিরা বেশ কয়েকটি ফাইল ‘ডিলিট’ করে বলেও দাবি করেছে সংবাদমাধ্যমটির।

যদিও এই প্রতিবেদনের সত্যতা নিয়ে কিছু ধোঁয়াশা থাকছেই। অ্যাপলের ওয়েবসাইটে অ্যাপল-ঘড়ির যে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে, তাতে আঙুলের ছাপ দিয়ে যন্ত্র খোলা বা বন্ধ করার সুবিধার কথা উল্লেখ নেই। এই ঘ়ড়িতে রেকর্ডিংয়ের পরে ব্লুটুথের মাধ্যমে তা অ্যাপলের নিজস্ব অনলাইন স্টোরেজ আইক্লাউডে ‘সিঙ্ক’ করতে হয়। এ ক্ষেত্রে জামাল সেই প্রযুক্তি ব্যবহার করেছিলেন কি না বা কী ভাবে করলেন, তার কোনও উল্লেখ নেই প্রতিবেদনে।

রিয়াধের দাবি, সে দিন বিকেলেই কনসুলেট ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। তুরস্ক কিংবা জামালের তুর্কি বাগদত্তাও তা মানতে নারাজ। সবেরই প্রমাণ চাইছে আঙ্কারা। সব মিলিয়ে সৌদির উপর চাপ বাড়ছেই। সে দেশের সঙ্গে বাণিজ্য আপাতত স্থগিত রাখার কথা জানিয়েছেন ব্রিটিশ ধনকুবের রিচার্ড ব্র্যানসন। অক্টোবরেই সৌদিতে বড় করে বিনিয়োগ সম্মেলন হচ্ছে। শুক্রবার উবেরের সিইও জানিয়েছেন, তাঁরা তাতে অংশগ্রহণ না-ও করতে পারেন। এ দিকে আজ ‘জামাল-রহস্য’ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আম্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডারের (আইএমএফ) প্রধান ক্রিস্টিন ল্যাগার্ড। জানিয়েছেন, ব্যক্তিস্বাধীনতা কিংবা সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার উপরে এমন আক্রমণের খবরে তিনি সন্ত্রস্ত। তবে চলতি মাসে রিয়াধ সফর এখনই বাতিল করছেন না বলে জানিয়েছেন ল্যাগার্ড।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply