sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ কোথায় দাঁড়িয়ে?



আজ থেকে ঠিক আঠারো বছর আগের এই দিনে টেস্ট ক্রিকেটে যাত্রা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। দেড়যুগ পর ঠিক কোথায় দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ? রঙ্গিন জার্সিতে পরাশক্তি হয়ে উঠলেও, এলিট ক্রিকেটে যেন অস্তিত্বের খোঁজে বাংলাদেশ। আঠারো বছরের যাত্রায় পরাজয়ের নীল বেদনায় পুড়তে হয়েছে বেশিরভাগই। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের টেস্ট যাত্রার আদ্যোপান্ত থাকছে প্রতিবেদনে।
২০০০ সালের ১০ নভেম্বর। সাদা জার্সিতে সম্ভাবনাময়ী নতুন একটি দলের আগমন ক্রিকেট বিশ্বে। আমিনুল ইসলামের বুলবুলের ১৪৫ রানের ইনিংসে সম্ভাবনার পালে লাগে জোর হাওয়া। সময়ের পরিক্রমায় দেড়যুগ পার করেছে টাইগাররা। অথচ এই এলিট ক্রিকেটে আজো নিজেদের জায়গা শক্ত করতে পারেনি বাংলাদেশ।

আঠারো বছরের পথচলায় অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর সুখস্মৃতি আছে। তবে সেসব কালেভদ্রে। একেকটি জয়ের জন্যে বাংলাদেশকে দিতে হয়েছে চরম ধৈর্য্যপরীক্ষা।

২০০০ সালে যাত্রার পর প্রথম জয় পেতে অপেক্ষা করতে হয় পাঁচ বছর। ২০০৫ সালের জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে অধরা জয়ের ছোঁয়া পায় বাংলাদেশ। পরের অপেক্ষা চার বছরের। ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ।


আরো চার বছর পর ২০১৩ সালে চতুর্থ জয় আসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। ২০১৪ সালে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। তবে টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের স্বর্ণসময়টা ২০১৬ ও ১৭ সালে। এসময়ে ইংল্যান্ডের, শততম টেস্টে শ্রীলঙ্কা আর একইবছরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয়। টেস্ট আর্কাইভে জমে থাকা সবচে সুখকর স্মৃতি এই সময়টুকুই।



তবে চলতি বছরে আবারো যেন অচেনা টাইগাররা। এবছরে এখন পর্যন্ত সাদা পোশাকে জয়ের দেখা নেই বাংলাদেশের। আছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৫১ রানের বড় ব্যবধানে হারের লজ্জা। আছে টানা আটটি ইনিংসে ২০০'র নিচে অলআউটের রেকর্ড।

সাকিব আল হাসান বলেন,  আমরা হয়তো আঠারো বছরে চেষ্টা করেনি ওয়ানডের মতো টেস্টে  উন্নতি করার জন্য। টেস্ট মানে সবকিছুর টেস্ট। এখানে আপনি একটা কিছুর দুর্বলতা থাকলেও কিছুই করতে পারবেন না।

সবমিলিয়ে মোট ১০৯টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। ১০ জয়ের বিপরীতে ৮৩ ম্যাচেই হার। অর্থাৎ, ১০ ভাগ ম্যাচও জেতেনি বাংলাদেশ।

একবারই ইনিংসে ছয় শতাধিক রানের দেখা পেয়েছে। পাঁচ শতাধিক রান আছে ছয়বার। তবে সেসব ম্লান হবে ১০বার শত রানের নিচে আর ৪০এরও বেশিবার ২০০ রানের নিচে গুটিয়ে যাওয়ার লজ্জার কাছে।

এবার বোধোদয়ের সময় হয়েছে। ওয়ানডে-টি-টোয়েন্টির মত অভিজাত টেস্ট ক্রিকেটেও ধারাবাহিকতা হবে, বাংলাদেশ দল। প্রত্যাশা সবার।


«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply