sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » অতিরিক্ত ঘাম কি অসুস্থতার লক্ষণ?




গরমে যদি আপনি অতিরিক্ত ঘামেন তবে তা স্বাভাবিক। তবে গরম ছাড়াই যদি আপনি অতিরিক্ত ঘেমে যান তবে তা অসুস্থতার লক্ষণ। আবার অনেকের হাতের তালু ও পায়ের তলা বেশি ঘামে। একে হাইপার হাইড্রোসিস বলে। স্বাভাবিক মাত্রায় ঘাম কোনো অসুখ নয়। ঘামের সঙ্গে দূষিত পদার্থ বের হয়ে যায়। তবে এর সঙ্গে পানি ও কিছু লবণও বের হয়ে যায়। ঘাম হলে শরীরের অভ্যন্তরের অতিরিক্ত তাপ কমে যায়। অতিরিক্ত ঘাম কেন হয়? কেউ অতিরিক্ত ব্যায়াম করলে, নার্ভাস হলে কিংবা রোদে গেলে অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে। পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত মানসিক চাপ থেকেও বেশি ঘাম হতে পারে। মশলাযুক্ত বা ঝাল বা তৈলাক্ত খাবার অতিরিক্ত খেলেও বেশি ঘাম হতে পারে। আয়োডিনযুক্ত খাবার যেমন- এসপ্যারাগাস, ব্রকোলি, গরুর গোশত, যকৃত, পেঁয়াজ, খাবার লবণ অতিরিক্ত খেলেও ঘাম বেশি হতে পারে। শারীরিক দুর্বলতা থেকেও ঘাম বেশি হয়। পাউডার ব্যবহার থেকেও ঘাম দূর করার পরিবর্তে তা আরও বাড়িয়ে দেয়। অতিরিক্ত ধূমপানও ঘামের কারণ। অতিরিক্ত ঘামলে কি করবেন ? ঘামের সঙ্গে যেহেতু সোডিয়াম, পটাশিয়াম, বাইকার্র্বোনেট বেরিয়ে শরীর দুর্বল ও অস্থির হয়ে যায় তাই পানির সঙ্গে লবণ, চিনি, পাতিলেবু মিশিয়ে শরবত খেলে ভালো হয়। গরমে দইয়ের ঘোল ও ডাব খেতে পারেন। কোল্ড ড্রিংকসের পরিবর্তে ফ্রেশ ফ্রুট জুস ও টাটকা ফল খান। ভিটামিন বি-১২-এর অভাবে যেহেতু হাইপারহাইড্রোসিস হয় তাই বি-কমপ্লেক্স যুক্ত খাবার খান। রক্ত পরীক্ষার মধ্যে থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট করা যায়। ত্বক ও যৌনব্যাধি বিশেষজ্ঞ, আল-রাজী হাসপাতাল, ফার্মগেট, ঢাকা






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply