sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » রাফি হত্যার সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জড়িত--মোশাররফ




রাফি হত্যার সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জড়িতফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জড়িত। এমন অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। ড. মোশাররফ বলেন, নুসরাতের হত্যাকারীরা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। আওয়ামী লীগনেতার কারণেই এই হত্যাকাণ্ডের সপক্ষে সভা-সমাবেশ হয়েছে ফেনীর সোনাগাজীতে। অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা ওলামা লীগ নেতা। সরকারের মন্ত্রীরা এখন বিভিন্ন কথা বলে এই ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। তারা এখন মাদ্রাসা শিক্ষার ওপর কটাক্ষ করছে। দোষ ব্যক্তির, কোনো নির্দিষ্ট শিক্ষা ব্যবস্থার না। আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আদর্শ নাগরিক আন্দোলন নামের একটি সংগঠনের তৃতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এসব কথা বলেন। সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. মোশাররফ বলেন, দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। ব্যাংকগুলো ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। ১৪টি ব্যাংকের মূলধন এখন তিনজন আওয়ামী লীগনেতার হাতে। দেশে আইনের শাসন নেই। বিচারকরা স্বাধীনভাবে বিচার করতে পারেন না। তারেক রহমানকে খালাস দেওয়া বিচারককে দেশ থেকে পালিয়ে যেতে হয়েছিল। বিচার ব্যবস্থাও একজন ব্যক্তির ইচ্ছার-অনিচ্ছায় পরিচালিত হচ্ছে। সাক্ষী-প্রমাণ ছাড়াই খালেদা জিয়ার সাজা বাড়িয়েছেন উচ্চ আদালত। এ ধরনের মামলায় জামিন হয়। কিন্তু বিভিন্ন মারপ্যাচে ১৩ মাস তিনি অন্যায়ভাবে কারাগারে। দেশে যে আইনের শাসন নাই এটিই তার উদাহরণ। অনুষ্ঠানে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আজকে বিচার বিভাগের চরম অবনতি হয়েছে। জামিন আটকে রাখা হচ্ছে অন্যায়ভাবে। খালেদা জিয়ার মূল চিকিৎসা হচ্ছে তাঁকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া। গণতন্ত্র না থাকলে বিচার বিভাগের এই অবনতি ঘটবে। বিচারকদের মনে রাখতে হবে কখনো না কখনো তাদের জনতার আদালতে হাজির হতে হবে। আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন অ্যাডভোকেট মো. আল আমিন ও খন্দকার মো. মহিউদ্দিন মাহি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply