sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » সানরাইজার্সকে হারিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এল দিল্লি




হায়দরাবাদ: ঘরের মাঠে মাইলস্টোন ম্যাচ জয় দিয়ে স্মরণীয় করে রাখতে পারল না সানরাইজার্স হায়দরাবাদ৷ অথচ বোলাররা সেলিব্রেশনের মঞ্চ প্রস্তুত করে দিয়েছিল যথাযথ৷ ব্যাটসম্যানরা সেই মঞ্চটাকে ব্যবহার করতে না পারায় পরাজয়ে তিতো হয়ে রইল আইপিএলে সাননাইজার্সের ১০০তম ম্যাচ৷ বরং বলা ভালো দিল্লি বোলারদের বাড়তি প্রচেষ্টাই হায়দরাবাদের জয়ের স্বপ্নে জল ঢেলে দেয়৷ হাতে মাত্র ১৫৫ (৭ উইকেটে) রানের পুঁজি নিয়ে দিল্লি ক্যাপিটালস অরেঞ্জ অর্মিকে তাদের ডেরায় ১৮.৫ ওভারে অলআউট করে দেয় ১১৬ রানে৷ ৩৯ রানে ম্যাচ জিতে শ্রেয়াস আইয়াররা লিগ টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসে৷ আরও পড়ুন: গেইল ধামাকা-রাসেল রংমশাল দেখে আইপিএলের নাম বদলের দাবি ক্রিকেট অনুরাগীদের টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে দিল্লি শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে৷ মাত্র ২০ রানের মধ্যে দুই ওপেনার পৃথ্বী শ (৪) ও শিখর ধাওয়ান (৭) সাজঘরে ফেরেন৷ দু’জনকেই আউট করেন খলিল আহমেদ৷ মুনরোর সঙ্গে জুটি বেঁধে প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ করেন শ্রেয়স আইয়ার৷ তৃতীয় উইকেটের জুটিতে ৪৯ রান যোগ করে আউট হন মুনরো৷ অভিষেক শর্মার বলে আউট হওয়ার আগে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ২৪ বলে ৪০ রান করেন তিনি৷ পরে ঋষভ পন্তকে সঙ্গে নিয়ে আরও ৫৬ রান যোগ করেন দিল্লি অধিনায়ক৷ শেষে ৫টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৪০ বলে ৪৫ রান করে ভুবনেশ্বরকে উইকেট দেন আইয়ার৷ শ্রেয়স ফেরার ঠিক পরের ওভারেই আউট হন পন্ত৷ তিনি ৩টি চারের সাহায্যে ১৯ বলে ২৩ রান করে খলিল আহমেদের তৃতীয় শিকার হন৷ আরও পড়ুন: ইডেনে তাহিরের ঘূর্ণিতে ফিকে লিন ঝড় মরিস ৪ রান করে রশিদের বলে বোল্ড হন৷ কিমো পল ৭ রনা করে ভুবির বলে এলবিডব্লু হয়ে মাঠ ছাড়েন৷ অক্ষর ১৪ ও রাবাদা ২ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ খলিল ৩০ রানের বিনিময়ে ৩টি উইকেট নেন৷ ভুবনেশ্বর ৩৩ রানে নিয়েছেন ২টি উইকেট৷ একটি করে উইকেট পেয়েছেন অভিষেক ও রশিদ৷সানরাইজার্স এই ম্যাচে সাতজন বোলারকে ব্যবহার করে৷সন্দীপ শর্মা, দীপক হুডা ও বিজয় শঙ্কর উইকেট না পেলেও কৃপণ বোলিং করেন৷ পালটা ব্যাট করতে নেমে সানরাইজার্স ইনিংসের শুরুটা করে অনবদ্যভাবে৷ ডেভিড ওয়ার্নার ও জনি বেয়াস্টোর ওপেনিং জুটি ৯.৫ ওভারে ৭২ রান যোগ করে৷ শেষে বোয়ারস্টো ৩১ বলে ৪১ রান করে কিমো পলের শিকার হন৷ কিমো কেন উইলিয়ামসন (৩) ও রিকি ভুইকেও (৭) ফিরিয়ে দেন৷ আরও পড়ুন: ডেরায় এসে নাইট বধ সুপার কিংসের, হারের হ্যাটট্রিক কলকাতার ব্যক্তিগত হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর ওয়ার্নার রাবাদার প্রথম শিকার হন৷ সাজঘরে ফেরার আগে অজি তারকা ৩টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৪৭ বলে ৫১ রান করেন৷ পরে রাবাদা আউট করেন বিজয় শঙ্কর (১), ভুবনেশ্বর কুমার (২) ও খলিল আহমেদরকে (০)৷ মরিস একই ওভারে তুলে নেন দীপক হুডা (৩), অভিষেক শর্মা (২) ও রশিদ খানের (০) উইকেট৷শেষ ১৫ বলে সানরাইজার্স সাতটি উইকেট হারিয়ে দিল্লির কাছে আত্মসমর্পণ করেন৷ ১৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছেন কিমো পল৷ রাবাদা ২২ রানে ৪ উইকেট নিয়ে পুনরায় বেগুনি টুপির দখল নেন৷মরিস শেষমেশ ২২ রানে ৩ উইকেট দখল করেন৷ এই জয়ের ফলে ৮ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে উঠে আসে দিল্লি৷ ৮ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে চেন্নাই৷






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply