sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » ভারতীয় সংবাদপত্র<> বিশ্বকাপের আগে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় বাংলাদেশের




kolkata24x7.com//ডাবলিন: বিদেশের মাটিতে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় বাংলাদেশের। ডাকওয়ার্থ লুইস নিয়মে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৫ উইকেটে হারিয়ে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতে নিল বাংলাদেশ। ক্রিকেট ইতিহাসে এটিই প্রথম ত্রিদেশীয় সিরিজ জয় এশীয়ার দেশটির, তাও আবার বিদেশের মাটিতে। স্বভাবতই বিশ্বকাপের আগে যে এই জয় এককথায় টনিকের কাজ করবে বাংলাদেশের কাছে, তা আর বলার আপেক্ষা রাখেনা। জোগাবে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস। শুক্রবার ডাবলিনে টসে জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠান বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি মোর্তাজা। বৃষ্টিবিঘ্নিত ফাইনালে ওভার সংখ্যা কমে দাঁড়ায় ২৪-এ। দুই ওপেনার শাই হোপ ও সুনীল আমব্রিসের দ্রুত অর্ধশতরানে হাইভোল্টেজ ফাইনালে ভালো জায়গায় পৌঁছে যায় ক্যারিবিয়ানরা। ২০.১ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের রান যখন বিনা উইকেটে ১৩১, ঠিক তখনই ম্যাচে বিঘ্ন ঘটায় বৃষ্টি। বৃষ্টি বন্ধ হলে ফের শুরু হয় খেলা। ২৪ ওভারে শেষ অবধি ১ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান তোলে ক্যারিবিয়ানরা। অর্থাৎ পুনরায় খেলা শুরু হলে বাংলাদেশ বোলারদের দুরন্ত কামব্যাকে বাকি ২৩ বলে মাত্র ২১ রান তুলতে সমর্থ হয় ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানরা। ৬৪ বলে ৭৪ রান করে মেহদি হাসানের শিকার হন হোপ। ৭৮ বলে ৬৯ রানে অপরাজিত থাকেন আমব্রিস। ডারেন ব্র্যাভো অপরাজিত থাকেন ৩ রানে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে বাংলাদেশের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২৪ ওভারে ২১০। কঠিন টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে দুরন্ত শুরু করেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার। কিন্তু মাত্র ৫.৩ ওভারে দলীয় ৫৯ রানের মাথায় প্রথম উইকেটের পতন হয় বাংলাদেশের। ১৩ বলে ১৮ রানে ফেরেন তামিম ইকবাল। সাব্বির রহমান ফেরেন শূন্য রানে। কিন্তু আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারের ব্যাটে জয়ের দিশা খুঁজে পায় এশিয়ার ক্রিকেট শক্তিটি। মুশফিকুরের সঙ্গে জুটি বেঁধে অর্ধশতরান পূর্ণ করেন তিনি। তৃতীয় উইকেটে যোগ হয় ৪৯ রান। এরপর ৪১ বলে ৬৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ১৩.৪ ওভারে দলীয় ১৩৪ রান ও ব্যক্তিগত ৩৬ রানে থামে মুশফিকুরের ইনিংস। ভালো অবস্থায় থাকা বাংলাদেশের এরপর জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল বিশ্বস্ত একটি পার্টনারশিপ। ১৭ রানে মহম্মদ মিঠুনের উইকেট হারালেও ষষ্ঠ উইকেটে মাহমুদুল্লাহ ও মোসাদ্দেক হোসেনের অবিভক্ত ৭০ রানের পার্টনারশিপ ঐতিহাসিক জয় এনে দেয় বাংলাদেশকে। ২৪ বলে মারকাটারি ৫২ রানের ইনিংস খেলে দলকে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে দেন হোসেন। তাঁর ইনিংসে ছিল ৪টি চার ও ৫টি ছক্কা। অন্যদিকে ২১ বলে ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন মাহমুদুল্লাহ। ৭ বল বাকি থাকতেই টুর্নামেন্টে টানা তৃতীয়বারের জন্য ক্যারিবিয়ানদের পরাস্ত করে বেঙ্গল টাইগাররা। একইসঙ্গে গোটা টুর্নামেন্টে অপরাজিত থেকে প্রথমবারের জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজ জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। দুরন্ত ইনিংসের জন্য ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হন মোসাদ্দেক হোসেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply