sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » যে কর্মীরা কাজ করেনি, তাদের খুঁজে বের করা হবে : প্রিয়াঙ্কা




যে কর্মীরা কাজ করেনি, তাদের খুঁজে বের করা হবে : প্রিয়াঙ্কা লখনউ: সবাই নিজের দলের জন্য ১০০ শতাংশ দেননি৷ অনেকেই ফাঁকি দিয়েছেন, যার ফল ভোগ করতে হয়েছে কংগ্রেসকে৷ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের ভরাডুবির জন্য দলীয় কর্মীদের একাংশের নিষ্ক্রিয়তাকেই দায়ি করলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী৷ উত্তরপ্রদেশের রায়বরেলিতে সোনিয়া গান্ধীর ধন্যবাদজ্ঞাপক মিছিলের পর যথেষ্ট হতাশ লাগছিল প্রিয়াঙ্কাকে৷ সেখানেই তিনি বলেন, উত্তরপ্রদেশে কর্মীদের সবাই যথেষ্ট সক্রিয় ছিলেন না৷ কারা কারা নিষ্ক্রিয় ছিলেন, তা খুঁজে বের করবে দল৷ প্রয়োজনে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ প্রিয়াঙ্কার দাবি তিনি এদিন কোনও ভাষণ দিতে আসেননি৷ সত্যিটা বলতে এসেছেন৷ আর সত্যিটা হল রায়বরেলির জয় এসেছে সোনিয়া গান্ধী ও এখানকার মানুষের হাত ধরে৷ এদিকে, দেশ জুড়ে হারের মুখ দেখেছে হাত শিবির৷ নির্বাচনের ঠিক আগে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে পূর্ব উত্তরপ্রদেশের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রচারে নামিয়েও কোনও ফল হয়নি৷ ফলে দলীয় কর্মীরা এই ভোটের ফলাফলে রীতিমত হতাশ৷

কিন্তু কেন এই ফলাফল? কোথায় খামতি? সেসব নিয়েই জুনের প্রথম দিকে আলোচনায় বসেছিলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা৷ প্রয়াগরাজে স্থানীয় কংগ্রেস নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসেন তিনি৷ বৈঠকের অ্যাজেণ্ডা ছিল হারের কারণ বিশ্লেষণ করে ত্রুটি বিচ্যুতিগুলো সামনে নিয়ে আসা৷ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের ৪০ জন প্রতিনিধিত্ব করা প্রার্থী৷ ৪০ জেলার সভাপতি ও উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস সভাপতি৷ উত্তরপ্রদেশের বেশ কিছু অংশে কংগ্রেসের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে এসেছে৷ সেই সব ফাটল জোড়া লাগানোর কাজ শুরু করা হবে বলে জানিয়ে ছিলেন কংগ্রেসের এই সাধারণ সম্পাদক৷ এছাড়াও কংগ্রেসের বিক্ষুব্ধ নেতাদের একটা তালিকা তৈরি করা হয়েছে৷ সেই নেতাদের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলতে পারেন প্রিয়াঙ্কা৷ ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলের মেরামতি শেষ করে ফেলতে চান প্রিয়াঙ্কা৷ সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছেন তিনি৷ চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে চমক দিয়ে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত হন প্রিয়াঙ্কা৷ মনে করা হয়েছিল, এই চমক ভোটবাক্সে বড়সড় প্রভাব ফেলবে৷ তবে সে স্বপ্ন সত্যি হয়নি৷ এমনকী আমেঠিও হাতছাড়া হয়েছে কংগ্রেসের৷ আরও পড়ুন : ভারত সফরের আগে মার্কিন বিদেশ সচিবের মুখে, ‘মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়’ সব মিলিয়ে যথেষ্ট চাপে কংগ্রেস শিবির৷ তাই কর্মীদের মনোবল ফেরাতে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভোকাল টনিক দিতে পারেন৷ এর আগে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের আগে বুথ ফেরত সমীক্ষা দেখে কর্মীদের চাঙ্গা করার বার্তা দিয়েছিলেন রাজীব তনয়া৷ দলীয় কর্মী সমর্থকদের উদ্দ্যেশে তিনি বলেছিলেন হতাশ হবেন না, ভেঙে পড়বেন না৷ এই ধরণের সমীক্ষাগুলিকে গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই৷ আসল ফলাফল ভোটাররাই দেবেন৷ এক্সিট পোলের বেশিরভাগই ভুয়ো হয় বলে মত ছিল প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর৷ তবে নিষ্ক্রিয় কর্মীদের ছেড়ে কথা বলবে না কংগ্রেস সেই বার্তাও এদিন দিয়ে রাখলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক৷






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply