sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » হংকং এ চলা সহিংসতাকে ‘দাঙ্গা’ বলছে বেইজিং




অপরাধী প্রত্যর্পণের বিতর্কিত বিলের প্রতিবাদে হংকং এ চলা সহিংসতাকে 'দাঙ্গা' বলে অ্যাখ্যা দিয়েছে বেইজিং। একইসঙ্গে সহিংসতা মোকাবিলায় হংকং প্রশাসনের ভূমিকাকে সমর্থন দিয়েছে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। এদিকে বিক্ষোভকারীদের হাত থেকে নিজেদের প্রতিরোধ করতেই গুলি ও লাঠিচার্জ করা হয়েছিলো বলে দাবি করেছে হংকং প্রশাসন। এরমধ্যেই এক দেশে দুই নীতি কখনো কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে না বলে মন্তব্য করেছে তাইওয়ান। রাতভর সংঘাতের পর বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) অনেকটা স্বাভাবিক হংকং এর রাজপথ। গেল কয়েকদিনের তুলনায় গাড়ি চলাচল বেড়েছে। চালু হয়েছে সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। তবে দাবি আদায়ে বিক্ষোভ চালিয়ে যাবেন আন্দোলনকারীরা। আন্দোলনকারীরা বলেন, আমরা নিজেদের জন্য সংগ্রাম করছি। কিন্তু আমি জানিনা সফল হবো কি না। রাস্তায় আমাদের সন্তানদের মারা হচ্ছে। এটা কখনোই আমরা মেনে নিব না। আমি মনে করি তারা বিলটি বাতিল করবে না। তবে, আমরাও প্রস্তুত আছি। এটা বাতিল না হওয়া পর্যন্ত রাস্তা ছাড়বো না। অপরাধী প্রত্যর্পণের বিতর্কিত বিলের প্রতিবাদে চলা বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর শক্তিপ্রয়োগ নিয়ে চলছে সমালোচনা। তবে হংকং পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, আত্মরক্ষার্থে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি ও লাঠিচার্জ করা হয়। এমনকি পুলিশের উপর হামলা চালানোর অভিযোগে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে বলেও জানানো হয়। হংকং পুলিশ কমিশনার স্টেফেন লো ওয়াই চুং বলেন, সংঘাত এড়াতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিলাম। এমনকি তাদের চাওয়াকেও গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা যখন পুলিশের ওপর আঘাত করা শুরু করলো তখন তাদের প্রতিহত করতেই পাল্টা পদক্ষেপ নেয় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। এখানে অবৈধভাবে কারও ওপর কোনো আঘাত করা হয়নি। তবে, সহিংসতা দমনে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ায় হংকং প্রশাসনের প্রশংসা করেছে বেইজিং। এক সংবাদ সম্মেলনে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় জানায়, অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতেই রাস্তায় নেমেছে বিক্ষোভকারীরা। চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং সুয়াং বলেন, এটা কখনোই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ ছিল না। তারা সবধরনের প্রস্তুতি নিয়েই রাস্তায় নেমেছিল। এমন সংঘাতের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। একইসঙ্গে জনসাধারণের নিরাপত্তায় হংকং প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা প্রশংসার দাবি রাখে। এদিকে, তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট তিসাই ইং ওয়েন বলেছেন, হংকং এর বিক্ষোভ প্রমাণ করে যে এক দেশে দুই নীতি কখনো কাজ করে না। এমনকি হংকং এর মানুষ যে ইস্যুতে বিক্ষোভ করছে তাকে প্রশাসনের সমর্থন জানানো উচিৎ বলেও মনে করেন তিনি। তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট তিসাই ইং ওয়েন বলেন, হংকং এর মানুষ গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছে। নিজেদের স্বাধীনতা চাওয়ার অধিকার তাদের রয়েছে। প্রশাসন যেভাবে সাধারণ মানুষের ওপর গুলি চালিয়েছে তার তীব্র নিন্দা জানায় আমরা। অপরাধী প্রত্যর্পণের বিতর্কিত বিল বাতিলের দাবিতে গেল কয়েকদিন ধরেই চীনবিরোধী বিক্ষোভ করছে হংকং এর সাধারণ মানুষ। গেল বুধবার শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে গুলি ও লাঠিচার্জ করে পুলিশ। এতে বেশ কয়েকজন আহত হন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply