sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » কাশ্মীর নিয়ে চীন ভীষণ উদ্বিগ্ন: ভারতকে জানিয়েছে বেইজিং




ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের চলমান পরিস্থিতিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের কাছে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে চীন। বেইজিং সফররত ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে গতকাল (সোমবার) সাক্ষাত করে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই এই উদ্বেগের কথা তুলে ধরেন। তিনি এ সময় ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতিতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনাকর অবস্থার জন্যও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। জয়শঙ্করকে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, ওই অঞ্চলে এ ধরনের যেকোনো একতরফা পদক্ষেপের বিরোধিতা করবে চীন। গত ৫ আগস্ট ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয় ভারত সরকার। এ নিয়ে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে কূটনৈতিক এবং সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করছে। এমন অবস্থায় চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই আশা করেন, নয়া দিল্লি ও ইসলামাবাদ শান্তিপূর্ণ উপায়ে এই বিরোধের সমাধান করবে। এর আগে কাশ্মীর ইস্যুতে জাতিসংঘে যাওয়ার ঘোষণা দেয় পাকিস্তান। তাতে দেশটির প্রতি পূর্ণ সমর্থন দেয় চীন। গত সপ্তাহে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেহমুদ কোরেশি চীন সফর করেন। এরপর তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে চীনে গেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্ক ওয়াং ই বলেন, “ভারত সম্প্রতি যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে চীনের সার্বভৌমত্ব ও স্বার্থের প্রতি চ্যালেঞ্জ জানানো হয়েছে। ভারতের এমন পদক্ষেপ দু দেশের মধ্যকার সীমান্ত চুক্তির বিরোধী। এসব বিষয়ে চীন মারাত্মকভাবে উদ্বিগ্ন।” চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী আশা করেন- পারস্পরিক আস্থা ও শান্তিকে সমুন্নত রাখতে পদক্ষেপ নেবে নয়া দিল্লি। বৈঠকে ভারতের অবস্থান ব্যখ্যা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। তিনি বলেন, ভারতের সংবিধান সংশোধন কোনো নতুন সার্বভৌমত্ব সৃষ্টি করে নি। ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে অস্ত্রবিরতি লাইনও পরিবর্তন করে নি। নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন করে নি। এ সময় পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়নে আশা প্রকাশ করে ভারতীয় পক্ষ। এস জয়শঙ্কর বলেন, নয়া দিল্লি আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় আগ্রহী। তিনি চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করেন, ভারত ও চীনের মধ্যে সীমান্ত ইস্যু যথাযথ আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে আগ্রহী ভারত। দুই দেশ সীমান্তে শান্তি বজায় রাখতে যে সমঝোতায় এসেছে তাও মেনে চলতে বাধ্য নয়াদিল্লি।#






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply