sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » করোনায় আরও ৩২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩ হাজার ১৪১




 আক্রান্ত ছাড়াল ৮৭ হাজার, মৃত্যু বেড়ে ১১৭১

বিশ্বব্যাপী মহামারি রূপ নেয়া করোনাভাইরাসে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। বাংলাদেশেও প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যায় রেকর্ড ভাঙছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩ হাজার ১৭১ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৮৭ হাজার ৫২০ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩২ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ১৭১ জনে।


 রোববার (১৪ জুন) দুপুরে করোনা ভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানান সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ১৪ হাজার ৬১৪টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে ১৪ হাজার ৫০৫টি নমুনা। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫ লাখ ৪ হাজার ৪৬৫টি। নতুন নমুনায় ৩ হাজার ১৪১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৮৭ হাজার ৫২০ জনে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩২ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ১৭১ জনে।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা জয় করে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন আরও ৯০৩ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ১৮ হাজার ৭৩০ জন সুস্থ হয়েছেন বলে জানান ডা. নাসিমা সুলতানা।


 

বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত হলেও প্রথম মৃত্যুর খবর আসে ১৮ মার্চ। দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার। ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়িয়ে এ ছুটি ৩০ মে পর্যন্ত করা হয়। ছুটি শেষে করোনার বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যেই ৩১ মে থেকে দেশের সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে দেয়া হয়। তবে বন্ধ রাখা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

এদিকে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, রোববার (১৪ জুন) সকাল ১০টা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৮ লাখ ৬৫ হাজার ৭৯৪ জনে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৩২ হাজার ৩৯৪ জনের।

বিশ্বে একক দেশ হিসেবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্র। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২১ লাখ ৪২ হাজার ২২৪ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ৫২৭ জনের।


যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। আক্রান্ত ও উভয় মৃত্যু উভয়- বিবেচনায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৮ লাখ ৫০ হাজার ৭৯৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪২ হাজার ৭৯১ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্য, তবে আক্রান্তের দিক থেকে দেশটির অবস্থান পাঁচ নম্বরে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৯৪ হাজার ৩৭৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪১ হাজার ৬৬২ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে ইউরোপের আরেক দেশ ইতালি, তবে আক্রান্ত বিবেচনায় দেশটির অবস্থান সাতে। ইতালিতে রোববার সকাল পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৩৬ হাজার ৬৫১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৩০১ জনের।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হওয়া দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোপের আরও দুই দেশ- ফ্রান্স ও স্পেন। মৃত্যু বিবেচনায় পঞ্চম স্থানে থাকা ফ্রান্স আক্রান্ত বিবেচনায় আছে ১৩ তম স্থানে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮১৩ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ৩৯৮ জনের। আর মৃত্যু ও আক্রান্ত উভয় দিক দিয়ে ষষ্ঠ স্থানে থাকা স্পেনে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৯০ হাজার ৬৮৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ১৩৬ জনের।

যু্ক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেশী মেক্সিকোতেও করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। ইতোমধ্যে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ১৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে মোট ১ লাখ ৪২ হাজার ৬৯০ জন আক্রান্তের বিপরীতে মৃত্যু হয়েছে ১৬ হাজার ৮৭২ জনের। 

আক্রান্ত বিবেচনায় রাশিয়ায় মৃত্যুর হার বেশ কম। আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় স্থানে থাকা দেশটিতে রোববার সকাল পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ২০ হাজার ১২৯ এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৮২৯ জনের।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে আক্রান্ত বিবেচনায় বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ স্থানে উঠে আসা ভারতে রোববার সকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ২১ হাজার ৬২৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৯ হাজার ১৯৯ জনের।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply