sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » পৃথিবীর সবথেকে কাছ ঘেঁষে চলে গেল গ্রহাণু, মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী বিশ্ব




 

পৃথিবীর সবথেকে কাছ ঘেঁষে চলে গেল গ্রহাণু, মহাজাগ
তিক ঘটনার সাক্ষী বিশ্ব ওয়াশিংটন: বিশ্ব জুড়ে করোনার দাপট। অব্যাহত মৃত্যু মিছিল। সংক্রমণ রোধে দফায় দফায় লকডাউন জারি। এতকিছু সত্ত্বেও চলতি বছর কিছু অবিশ্বাস্যকর ঘটনার সাক্ষী হয়ে রয়েছে গোটা বিশ্বের মানুষ। করোনা আবহে আরও একবার আশ্চর্যজনক মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী থাকল আমজনতা। গত রবিবার ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ প্রান্তের আকাশে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২৯৫০ কিলোমিটার উপর দিয়ে চলে গিয়েছে কিউজি২০২০ নামের একটি গ্রহাণু। শুধু তাই নয়, পৃথিবীর একেবারে গা ঘেঁষে চলে যাওয়ায় রেকর্ড গড়েছে গ্রহাণুটি। আর এই ছবিটিই গত রবিবার নাসার দূরবীক্ষণ যন্ত্র ‘জুইকি ট্রান্সিয়েন্ট ফেসিলিটির’ ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। মঙ্গলবার এই বিষয়ে নাসার বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, তিন থেকে ছয় মিটার চওড়া ২০২০কিউজি গ্রহাণুটি মহাকাশের সবথেকে ক্ষুদ্রতম গ্রহাণু। গত রবিবার এই গ্রহাণুটি ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ প্রান্তের আকাশে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২৯৫০কিলোমিটার উপর দিয়ে চলে গিয়েছে। ২০২০কিউজির গতিবেগ ছিল সেকেন্ডে ১২.৩ কিলোমিটার। যা মহাকাশের অন্যান্য গ্রহাণুদের তুলনায় অবশ্যই কম। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা এবং আমেরিকার ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে তৈরি দূরবীক্ষণ যন্ত্র জুইকি ট্রান্সিয়েন্ট ফেসিলিটির’ ক্যামেরায় ধরা পড়েছে এই ২০২০কিউজি। কিন্তু তখন এটি লম্বা দাগের মতোন দেখতে লাগছিল এবং গ্রহাণুটি ততক্ষনে পৃথিবী ছাড়িয়ে বহু দূর চলে গিয়েছিল। বিজ্ঞানীদের দাবি, এই গ্রহাণুটি তার অন্তত ছয় ঘন্টা আগে সে পৃথিবীর সবথেকে কাছে এসেছিল। ঠিক এইরকম ভাবে ২০১৩ সালে রাশিয়ার চেলিয়াবিনস্কে প্রায় ৬৬ ফুট দীর্ঘ একটি মহাজাগতিক বস্তুর বিস্ফোরণ ঘটেছিল এবং সেটি বিচ্ছিন্ন হয়ে পৃথিবীতে আছড়ে পড়েছিল। আর যারফলে প্রায় এক হাজার জন সাধারণ মানুষ আহত হয়েছিলেন। নাসার জেট প্রোপালশন ল্যাবের আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজ এর পরিচালক পল চোডাস বলেছেন, “এর আগে কখনও কোনও গ্রহাণু পৃথিবীর এত কাছ থেকে চলে যায়নি। এই গ্রহাণুটি তার মাধ্যাকর্ষণ বলের প্রভাবে পৃথিবীর দিকে ঝুঁকে পড়েছিল। আমাদের হিসেব বলছে পৃথিবীর টানে সেটি অন্তত ৪৫ ডিগ্রী বেঁকে গিয়েছিল। আর এটিই হল ২০২০ সালে মহাবিশ্বের চমক।”






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply