sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » মৌলভীবাজারে আউশের বাম্পার ফলন





   মৌলভীবাজারে আউশের বাম্পার ফলন

দশ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম মৌলভীবাজারে আউশের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রতি হেক্টরে গড় উৎপাদন হয়েছে, দুই দশমিক সাত মেট্রিক টন। সেই সাথে গতবছরের চেয়ে এবারে ৩ হাজার ৮৪২ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অতিরিক্ত চাষাবাদ হয়েছে। কৃষি বিভাগ উৎপাদন আমনের সমপর্যায়ে বলে দাবি করছে। 

মাঠজুড়ে এখন সোনালী ধানের ছড়াছড়ি। প্রাপ্তির আনন্দ নিয়ে কৃষকরা ঘরে ধান উঠাতে ব্যস্ত।

অধিক খাদ্য উৎপাদনের লক্ষে সরকার কৃষকদের প্রণোদনার মাধ্যমে বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণের সুযোগ করে দেয়া হয়। এতে জেলার চাষিরা ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগিতায় আউশ চাষে মনোযোগী হয়। এছাড়া অধিক উৎপাদনশীল নতুন জাতের বিরি-২৮,৮২,৪৮, বিনা ধান-১৯ ও নেরিকা জাতের আউশ ধান রোপণ করা হয়। জেলা কৃষি বিভাগের দেয়া তথ্যমতে, ২০১৮ সালে জেলায় ৪৯ হাজার ৪ শো ৪০ ও ২০১৯ সালে ৫৩  হাজার ১০ হেক্টর জমিতে আউশের চাষাবাদ হয়।

এবারে সরকারের অধিক খাদ্য উৎপাদনের নির্দেশনা থাকায় মৌলভীবাজারে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা মাট পর্যায়ে চাষিদের উৎসাহমূলক কার্যক্রম চালায়। যার ফলে বিগত দু‘বছরের তুলনায় অধিক পরিমাণ জমি এ বছর চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রায় নিয়ে আসা হয়েছে। এতে এ বছর ৫৬  হাজার ৭৯৭ হেক্টর আউশের লক্ষ্যমাত্রা শুরুতে ধরা হলেও কার্যত ৫৬ হাজার ৮৫২ হেক্টর জমিতে চাষ হয়। তবে গত বছরের চেয়ে এবারে ৩ হাজার ৮৪২ হেক্টর অতিরিক্ত চাষের আওতায় নিয়ে আসা হয়।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, প্রতিবছর ক্রমান্বয়ে মৌলভীবাজারে আউশের চাষ বাড়ছে। সেই সাথে খাদ্য উৎপাদনের পরিমাণও বাড়ছে।

মৌলভীবাজার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফুল বারী জানান, প্রাকৃতিক বিপর্যয় না থাকা এবং চাষের অনুকূল পরিবেশ বজায় থাকাতে এ বছর মৌলভীবাজার জেলায় আউশের বাম্পার ফলন হয়েছে। উৎপাদন ধরা হয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৬৮০ মেট্রিক টন চাল।

কৃষি উপ-পরিচালক আরও জানান, এবারে আউশের গড় উৎপাদন প্রতি হেক্টরে দুই দশমিক সাত মেট্রিক টন। এ রকম উৎপাদন আর কখনো দেখা যায়নি এ অঞ্চলে। তবে সবচেয়ে বেশী গড় উৎপাদন হয়েছে, কমলগঞ্জ উপজেলায়। এরপর মৌলভীবাজার সদর ও শ্রীমঙ্গলসহ অন্য সবকটি উপজেলায়।

তিনি জানিয়েছেন, বিগত দশ বছরে এবারই প্রথম আউশের বাম্পার ফলন পাওয়া গেছে। যা আমন উৎপাদনের সমপর্যায়ে থাকবে। রাজনগর উপজেলার মজিদপুর এলাকায় কৃষকদের মাটে আনুষ্ঠানিকভাবে আউশ ধান নমুনা শস্য কর্তন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথি হিসাবে নমুনা শস্য কর্তনের উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফূল বারী। এছাড়া জেলার একাধিক কৃষি কর্মকর্তা ছাড়াও রাজনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় কথা হয় মজিদপুর এলাকার কৃষক মাহবুবুর রহমান, মামুন মিয়া, পরেন্দ্র মালাকার ও নাদির মিয়াসহ আরও অনেক কৃষকের সাথে। তারা জানান, সরকারের প্রণোদনায় বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরণ ও কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগিতায় এবারে তারা আউশ চাষাবাদ করে বেশ লাভবান হয়েছেন।

পাঁচ কিয়ার জমিতে বিশ হাজার টাকা খরচ করে ৮০ মণ ধান পাওয়ার কথা জানালেন কৃষক মাহবুব।

ভালো ফলনের বিষয়ে পরেন্দ্র মালাকার অনুকুল পরিবেশ আর কৃষি বিভাগের তদারকির কথা বললেন।

মামুন মিয়া ৫৫ হাজার টাকা খরচ দিয়ে এবারে দশ কিয়ার জমিতে আউশ লাগিয়েছেন। খুবই ভালো ফলন হওয়াতে তিনি মহাখুশি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply