sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ চালু করতে বলছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর




  খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ চালু করতে বলছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

 


চলমান করোনা মহামারির মধ্যে বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ চালু করার বিষয়ে মত দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অধিক জনসমাগম না করে সীমিত আকারে খেলাধুলা আয়োজন করা যেতে পারে এমনটি বলছে তারা। এ মতের সঙ্গে কিছু পরামর্শ দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।


স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোভিড-১৯ বিষয়ক সমন্বিত নিয়ন্ত্রণ কক্ষের যুগ্ম মহাসচিব ডা. রিজওয়ানুল করিম শামীম জানান, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় থেকে খেলার মাঠ এবং এ সংক্রান্ত সব কিছুর জন্য মতামত জানতে চেয়েছিল। সব বিষয় বিবেচনা করে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। 


জানা যায়, প্রস্তাবনায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলেছে, খেলা শুরুর আগে মাঠ এবং চালুর আগে প্রশিক্ষণকেন্দ্রে মহামারি প্রতিরোধ-সরঞ্জাম যেমন- মাস্ক, গ্লাভস, জীবাণুনাশক এবং নন-কন্ট্যাক্ট ইনফ্রারেড থার্মোমিটার সংরক্ষণ করতে হবে। সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কাজের পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে এবং তার তদারকি ও বাস্তবায়নের জন্য একজনকে নির্দিষ্ট করলে ভালো হয়। একইসঙ্গে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে। 


অপরদিকে, খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখতে হবে। ক্যাম্প শুরুর আগে প্রয়োজনমতো সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা যেতে পারে।


খেলার মাঠের প্রবেশের পথে খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং বহিরাগত দর্শকদের শরীরের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা রাখতে হবে। যাদের তাপমাত্রা ৯৮ দশমিক চার ডিগ্রি ফারেনহাইটের বেশি হবে, তাদের মাঠে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে পাঠাতে হবে। খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণকালীন ক্যাম্পে অবস্থানের সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে থাকার ব্যবস্থা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খাবারের আগে এবং খাবারে ব্যবহৃত থালা বাসন পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্ভব হলে ডিসপোজেবল প্লেট ব্যবহার করা ভালো। তাদের ঘুম, বিশ্রাম ও মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রাখতে হবে। আর পরিবারসহ অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ হবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে।


খেলোয়াড় ও অন্যদের প্রতি নির্দেশনাতে বলা হয়েছে, ব্যক্তিগত পানির বোতল ও তোয়ালে ব্যবহার করতে হবে। ব্যক্তিগত সরঞ্জাম নিজের ব্যাগে রাখতে হবে। টিস্যু, রুমাল বা অন্যান্য উপরকণ যেমন: প্লাস্টার, ব্যান্ডেজ প্রভৃতি মুখবন্ধ ময়লার পাত্রে ফেলতে হবে। মাঠের আবর্জনা প্রতিদিন পরিষ্কার করতে হবে এবং আবর্জনা সংরক্ষণকারী পাত্র প্রতিদিন জীবাণুমুক্ত করতে হবে।


স্টেডিয়ামে আসা সবাইকে স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতন করার জন্য সহজে দৃশ্যমান এমন স্থানে বিলবোর্ড, রেডিও, ভিডিও ও পোস্টারের মাধ্যমে সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রচার করার ব্যবস্থা করতে হবে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply