sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ভারত-চীনের পাল্টাপাল্টি হুঁশিয়ারি, ছাড় দেবে না কেউই




ভারত-চীনের পাল্টাপাল্টি হুঁশিয়ারি, ছাড় দেবে না কেউই

চীন তার ভূখণ্ডের এক ইঞ্চিও ছাড় দেবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জেনারেল ওয়েই ফেংঘের। নিজেদের অঞ্চলের সার্বভৌমত্বের অখণ্ডতায় দেশটির সেনাবাহিনী পুরোপুরি প্রস্তুত বলেও নয়াদিল্লিকে সতর্ক করেন তিনি। আর দু’দেশের সীমান্তে চলমান উত্তেজনার জন্য ভারতকে একতরফাভাবে দায়ী করেন চীনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। দু’দেশের বিরোধ নিরসনে করণীয় নির্ধারণে শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাশিয়ার মস্কোয় রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন চীনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ও ভারতের রাজনাথ সিং। পাল্টা জবাবে এক বিবৃতিতে চীনকে সতর্ক করেছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংও। বলেন, সীমান্তে বেইজিং-এর আগ্রাসী আচরণ নিজেদেরকেই সামলে নিতে হবে, নয়তো খেসারত দিতে হবে। সাংহাই কো-অপারেশনের সম্মেলনে যোগ দিতে তিনদিনের রাশিয়া সফরে গিয়ে ওয়েইয়ের সঙ্গে প্রায় ২ ঘণ্টা ২০ মিনিট পার্শ্ববৈঠক করেন রাজনাথ। যদিও প্রথমে মস্কোয় দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের সম্ভাবনা খারিজ করে দিয়েছিল নয়াদিল্লি। কিন্তু চীন সায় দিলে দু’পক্ষই আলোচনায় সম্মত হয়। বিভিন্ন সূত্র মতে, দুই দেশের চলমান উত্তেজনার মধ্যে ওই বৈঠকে রাজনাথ সিং জানান, ‘সীমান্তে শান্তি বজায় রাখতে হলে সবার আগে দরকার বিশ্বাসের মর্যাদা রক্ষা করা। আন্তর্জাতিক নীতিকে ভিত্তি করে দুই দেশ শান্তির শপথ নিতে হবে’। এদিকে বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, ১৯৬২ সালের পর চীন-ভারত সীমান্তে এমন সমস্যা তৈরি হয়নি। বর্তমান অবস্থা ‘নজিরবিহীন’ বলে অ্যাখা দেন শ্রিংলা। বিবৃতিতে বেইজিং আরও জানায়, গেল বছর প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে চুক্তি কিংবা যে আলোচনা হয়েছিল, তা আন্তরিকভাবে বাস্তবায়নের, সংলাপ ও পরামর্শের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করতে হবে। তবে এই বৈঠকের পর পরিস্থিতি বদলাতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছে নয়াদিল্লি। বৈঠকে প্রতিরক্ষাসচিব অজয় কুমার এবং রাশিয়ায় ভারতের রাষ্ট্রদূত ডি বি ভেঙ্কটেশ বর্মাও উপস্থিত ছিলেন। গেল শনিবার ভারতীয় সেনা প্যাংগং লেকের দক্ষিণে একাধিক পাহাড়ের চূড়া দখল করে নেওয়ার পরে চুশুল সেক্টরে সেনা বাড়াতে শুরু করে চীন। লেকের দক্ষিণে মলডোর কাছে অতিরিক্ত ট্যাঙ্কবাহিনী মোতায়েন করেছে তারা। পাল্টা জবাবে রেচিন লায় স্পর্শকাতর উঁচু স্থানগুলি দখল করে সেনা মোতায়েন বাড়িয়েছে ভারতও। গত জুন লাদাখ সীমান্তে দু’দেশের সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনা নিহতের পরই উত্তেজনা চরম পর্যায়ে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply