sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » রাজবাড়ীতে গণধর্ষণের ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড




রাজবাড়ীর বসন্তপুরে এক চিকিৎসক তরুণীকে গণধর্ষেণের ঘটনায় তিন যুবককে ফাঁসির দণ্ডাদেশ এবং প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও রায়ে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তিনজনকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়। বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজবাড়ীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক নিগার সুলতানা এ রায় প্রদান করেন। রাজবাড়ীর পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট উজিন আলী শেখ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট উমা সেন রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামের আরশাদ মোল্লার ছেলে মামুন মোল্লা (২০), সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের মজলিশপুর গ্রামের মৃত মুন্নাফ সরদারের ছেলে হান্নান সরদার (৩০) ও একই গ্রামের মৃত আবুল মোল্লা ছেলে রানা মোল্লা (২৫)। জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ থেকে আসা এক চিকিৎসক তরুণী ২০১৮ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টার দিকে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ মোড় এসে নামে এবং সে ফরিদপুরে যাওয়ার জন্য গাড়ির সন্ধান করে। সেসময় এক অটোরিকশা চালক ওই তরুণীকে বলে “এখান থেকে ফরিদপুরের গাড়ী পাওয়া যাবে না। আমার অটোতে ওঠেন শিবরামপুর গেলে ফরিদপুরের গাড়িতে উঠিয়ে দেবো।” এসময় তরুণী অটোরিকশায় উঠেন। অটোরিকশা চালক ছাড়াও আরও দুইজন যুবক বসা ছিল। এরপর গোয়ালন্দ মোড়-শিবরামপুরের মাঝামাঝি বসন্তপুর এলাকার নির্জন জায়গায় অটোটি দাঁড় করিয়ে চালকসহ তিন জন মিলে রাস্তার পাশে নিয়ে তরুণীকে গণধর্ষণ করে। অবস্থা বেগতিক দেখে সে সময় তরুণীর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসে এবং ওই তিন জন যুবক অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা বিষয়টি র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের সদস্যদের অবহিত করে। র‌্যাব সদস্যরা ওই তরুণীকে উদ্ধার করার পাশাপাশি ওই ধর্ষক তিন জন যুবককেই রাতেই গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ী থানায় সোপর্দ করে। এ ঘটনায় ওই তরুণী বাদী হয়ে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার দীর্ঘ সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামিদের উপস্থিতিতে আদালত ওই তিন জনকে ফাঁসির দণ্ডাদেশ এবং প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ প্রদান করে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply