sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » দ্রুত লেবানন পুনর্গঠন করুন, নয়তো নিষেধাজ্ঞা: ম্যাক্রোঁ




দ্রুত লেবানন পুনর্গঠন করুন, নয়তো নিষেধাজ্ঞা: ম্যাক্রোঁ

আগামী তিন মাসের মধ্যে দেশ পুনর্গঠনের কাজ শুরু করতে না পারলে লেবাননের রাজনীতিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। সেই সঙ্গে আন্তর্জাতিক ত্রাণ সহায়তা বন্ধেরও হুমকি দিয়েছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট। বৈরুতে বিস্ফোরণের এক মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে সোমবার (৩১ আগস্ট) ম্যাক্রোঁ দ্বিতীয়বার বৈরুত সফর করেন। মঙ্গলবার বিধ্বস্ত লেবাননের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি দেশটির নীতি নির্ধারকদের সতর্ক করতে এখানে আসিনি। লেবাননকে সহযোগিতা করতেই ছুটে এসেছি। আমি চাই বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াক লেবানন।’ আরও পড়ুন: আফ্রিকায় ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ‘মানকি পক্স’, ১০ জনের মৃত্যু গত ৪ আগস্ট রাজধানী বৈরুতের বন্দর এলাকায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে নগরীর অর্ধেকটাই ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়। এরপর জনরোষের মুখে গত ১০ আগস্ট হাসান দিয়াব সরকার ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ায়। সোমবার ম্যাক্রোঁ বৈরুত পৌঁছানোর কয়েক ঘণ্টা আগে মুস্তাফা আদিবকে দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই আদিব দ্রুত একটি সরকার গঠন এবং শাসন ব্যবস্থায় তাৎক্ষণিক সংস্কারের ডাক দিয়েছেন। তিনি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গেও একটি চুক্তি করতে চান। ম্যাক্রোঁ বলেন, লেবাননের নেতাদের কাছে আগামী ছয় থেকে ১২ মাসের মধ্যে একটি নির্বাচন আয়োজনসহ ‘বিশ্বাসযোগ্য প্রতিশ্রুতি’ এবং ‘নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে একটি কার্যকর উন্নয়ন ব্যবস্থা’ চাই। লেবাননের দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে এবং দেশটির রাজনৈতিক সংস্কার ও অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে মূল ভূমিকায় থেকে কাজ করছেন ম্যাক্রোঁ। সফরে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ধ্বংস্তুপে পরিণত হওয়া বৈরুত বন্দর পরিদর্শনে যান। এছাড়া তিনি লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন এবং অন্যান্য ক্ষেত্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গেও বৈঠকের কথা রয়েছে। আরও পড়ুন: সেই উহানেই খুলে দেয়া হলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গেল বছরের শেষ দিকেই দেশটিতে নানা ধরনের সমস্যা শুরু হয়। মূলত মুদ্রামানে ব্যাপক ধস নামে। তখন অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক সংস্কারের দাবিতে রাজপথে আন্দোলনে নামেন দেশটির সাধারণ মানুষ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply