sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » করোনায় আর বন্দী থাকতে চান না নারী ক্রিকেটাররা




করোনায় আর বন্দী থাকতে চান না নারী ক্রিকেটাররা

করোনায় আর বন্দী থাকতে চান না নারী ক্রিকেটাররা। দীর্ঘবিরতির পর এবার বিসিবি'র ডাক পেলেই ব্যাটে-বলে মাঠের লড়াইয়ে নামতে চান তারা। রংপুরে নারী ক্রিকেট টুর্নামেন্টে নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার পর এমন আশাবাদ টাইগ্রেসদের কন্ঠে। রংপুর স্টেডিয়ামে কোন বলই পাত্তা পেলো না জাতীয় নারী দলের ক্রিকেটার শোভানা মুশতারীর ব্যাটে। জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক জেসির বল তুলোর মতো উড়িয়ে শোভানা মুশতারীর চার-ছক্কার বন্যা, দীর্ঘদিন অবসরে থাকার পরও জ্বলে ওঠারই নিদর্শন। করোনার ভয়ে আর ঘরে নয়, এবার মাঠে আসার ডাকের অপেক্ষায় তারা। জাতীয় নারী দলের ক্রিকেটার ফারজানা হক পিংকি বলেন, জানুয়ারি থেকে আমাদের মেয়েদের ক্যাম্প শুরু হবে। কিন্তু তাই বলে তো এতদিন বসে থাকতে পারি না। আমাদের ফিটনেস তো ঠিক রাখতে হবে। শোভানা মুশতারী বলেন, ছেলেদের টুর্নামেন্ট শুরু হয়ে গেছে। একমাত্র আমাদের মেয়েদেরই কোন টুর্নামেন্ট হয়নি। করোনা থাকবেই, তাই বসে না থেকে বিসিবির উচিত যত দ্রুত সম্ভব আমাদের জন্য ক্যাম্প আয়োজন করা। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ওমেনস ড্রিমার ক্রিকেট একাডেমি আয়োজিত টুর্নামেন্টটি পেশাদার ও নবীন খেলোয়াড়দের মিলনমেলায় পরিণত হয়। নারী দলের খেলোয়াড় ও সাবেক অধিনায়কের প্রশ্ন, প্রায় সব খেলা যখন চালু হয়েছে, তখন মেয়েরা বসে থাকবে কেন? সানজিদা ইসলাম বলেন, ছেলেদের ক্রিকেট যেহেতু শুরু হয়ে গেছে। আশা করি, আমাদের মেয়েদের ক্রিকেটও শুরু হয়ে যাবে। সাথিরা জাকির জেসি বলেন, মেয়েদের ক্রিকেটটা তাড়াতাড়ি মাঠে ফিরিয়ে আনা দরকার। দীর্ঘদিন এইভাবে মাঠের বাইরে থাকলে একজন খেলোয়াড় কোনভাবেই তার ফিটনেস ও ফর্ম ধরে রাখতে পারবেন না। করোনা সংক্রমণের পর প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের মাঠে নামাতে পেরে টুর্নামেন্ট সফল বলে জানালেন আয়োজক। ওমেনস ড্রীমার ক্রিকেট একাডেমির পরিচালক আরিফা জাহান বিথী বলেন, একাডেমির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আমি এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছি। অনেকদিন পর খেলোয়াড়রা মাঠে নেমেছে। আমি বলবো যে আমি স্বার্থক। সবাইকে খেলার সুযোগ করে দিতে পেরেছি। টুর্নামেন্টের শেষ দিন বুধবার লালমনিরহাটের জেসিদের কাছ থেকে জয় ছিনিয়ে নেয় রংপুরের সানজিদা-শোভানারা।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply