sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » সহসাই কাটছে না মার্কিন অর্থনীতির সংকট: জেপি মরগান




করোনাভাইরাসের দাপটে গভীর সংকটে পড়া মার্কিন অর্থনীতি শিগগিরই ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বলে সতর্ক করেছে নিউইয়র্কভিত্তিক বহুজাতিক বিনিয়োগ ব্যাংক ও আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান জেপি মরগান। সংস্থাটির শঙ্কা, আগামী বছরের শুরুতে আবারও নেতিবাচক প্রবৃদ্ধিতে আটকে পড়বে মার্কিন জিডিপি। সংস্থাটি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর পথে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে আবারও খারাপ আকার ধারণ করা করোনাভাইরাস। যদিও মার্কিন অর্থনীতিকে টেনে তোলাসহ সরকার পরিচালনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ক্ষমতা গ্রহণ করতে যাচ্ছেন দেশটির নব-নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন বলছে, গত শুক্রবার নতুন করে এই শঙ্কাজনক পূর্বাভাস দিয়েছে জেপি মরগান। সংস্থাটির অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এবারের শীত আরও ভয়াবহ হবে মার্কিনিদের জন্য। আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকে নতুন করে সংকোচনের মুখে পড়তে হবে। যদিও সে সময়ই করোনার ভ্যাকসিন পাওয়ার আশা করছেন মার্কিন নাগরিকরা। বলা হচ্ছে, গেল গ্রীষ্মে ভালো অবস্থানে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি তার গতি হারিয়ে ফেলেছে। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে মার্কিন অর্থনীতির বার্ষিক ৩৩.১ শতাংশ প্রবৃদ্ধির হিসাব পাওয়া গেলেও চতুর্থ প্রান্তিকে এসে তা ২.৮ শতাংশে নেমে আসবে আর আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকে তা ১ শতাংশ সংকোচনের মুখে পড়বে। করোনা সংক্রমণ রকেট গতিতে ছুটি চলায় যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিনোদন কেন্দ্র ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আবারও লকডাউনে যাচ্ছে। যা মার্কিন অর্থনীতিকে চাপে ফেলে দিচ্ছে। এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র সরকার এখনও সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি ভেঙ্গে পড়া অর্থনীতিকে কিভাবে তারা টেনে তুলবে। এমনকি বার্ষিক সহায়তা কার্যক্রমে ব্যয়ের পরিমাণ নির্ধারণেও একমতে পৌঁছতে পারেনি দেশটির দুই রাজনৈতিক দল ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান। এই সিদ্ধান্তহীন অবস্থাকে মার্কিন কংগ্রেসের ব্যর্থতা বলে চিহ্নিত করেছে ফ্লোরিডাভিত্তিক আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান কাম্বারল্যান্ড অ্যাডভাইসর্স'র প্রধান বিনিয়োগ কর্মকর্তা ডেভিড কটক। আর করোনকালে শুল্ক কাঠামো নিয়ে স্বস্তিদায়ক কোন সিদ্ধান্ত নিতে না পারায় কংগ্রেসের কটূক্তিমূলক সমালোচনা করেছেন যুক্তরাজ্যভিত্তিক অর্থনীতি বিষযক গবেষণা সংস্থা প্যানথিয়ন মাইক্রোইকোনমিক্স'র প্রধান অর্থনীতিবিদ ইয়ান শেফার্ডসন। তবে, এসব শঙ্কার ভেতরও সুড়ঙ্গের শেষ মাথায় আলোর ঝলকানি দেখাচ্ছে ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো। ফাইজার ও মডার্না কয়েকদিন আগেই ঘোষণা দিয়েছে তাদের আবিষ্কার করা ভ্যাকসিন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ৯০ ভাগের বেশি কার্যকর। আর এসব ঘোষণাই মার্কিন অর্থনীতে স্বস্তির পরশ বুলাচ্ছে। তাই সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে জেপি মরগান বলছে, আগামী বছরের ২য় ও ৩য় প্রান্তিকে এসে মার্কিন অর্থনীতি দ্রুত ঘুরে দাঁড়াবে। সেসময় দেশটির জিডিপির প্রবৃদ্ধি হবে যথাক্রমে সাড়ে ৪ ও সাড়ে ৬ শতাংশ। তবে, এটাও ঠিক যুক্তরাষ্ট্রের কোন কোন অঞ্চলে অর্থনীতি বেশ শক্ত অবস্থানেই রয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply