sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » তিনদিনের ব্যবধানে গাইবান্ধায় ধরা পড়েছে আরেকটি ঘড়িয়াল




। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সকালে ঘড়িয়ালটি ব্রহ্মপুত্র নদে অবমুক্ত করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাফিউল আলম। এর আগে বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) রাতে গাইবান্ধা সদরের কামারজানিতে ব্রহ্মপুত্র নদে শফিকুল ইসলামের জালে ঘড়িয়ালটি ধরা পড়ে। সদরের কামারজানি ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা মাহবুবার রহমান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে মাছ ধরতে গিয়ে গোঘাট গ্রামের গারো ডালাতির ছেলে শফিকুল ইসলামের জালে প্রায় ৩ হাত সাইজের ঘড়িয়ালটি ধরা পড়ে। খবর ছড়িয়ে পড়লে শুক্রবার সকালে ঘড়িয়ালটি দেখতে ভিড় করে শতশত মানুষ। পরে গাইবান্ধা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে ঘড়িয়ালটি ব্রহ্মপুত্র নদে অবমুক্ত করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে যমুনা নদীতে মাছ ধরতে গেলে সাঘাটার মু‌ন্সিরহাট মা‌ঝিপাড়ায় জে‌লে যোজ্ঞেশ্বরের বরশিতে একটি ঘড়িয়াল আটকা পড়ে। পরে বিষয়টি জানতে পেরে সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ম‌হিউ‌দ্দিনের নেতৃত্বে যমুনা নদীতে ঘড়িয়ালটি অবমুক্ত করা হ‌য়। সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় ব্যানার্জির ধারণা, যমুনা-ব্রহ্মপুত্রে ঘড়িয়ালের প্রজনন বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, ঘড়িয়াল সাধারণত গভীর জলের প্রাণী। কিন্তু খাদ্য ঘাটতি বা অন্য কোনো কারণে ঘড়িয়াল ওপরে উঠে আসছে কিনা তা জানতে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলা প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, নভেম্বর-জানুয়ারি এদের প্রজনন মাস। স্ত্রী ঘড়িয়াল বালুতে তৈরি গর্তে ৩০-৫০টি ডিম পাড়ে। ডিম অনেক বড়। ৩ মাস তা দেওয়ার পর ডিম থেকে বাচ্চা হয়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply