sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » গুলশানে সেই দুই বোনের বাসায় স্বজনদের প্রবেশে আর বাধা নেই




রাজধানীর গুলশানের বাসিন্দা প্রয়াত মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের দুই মেয়ে মুশফিকা মোস্তফা ও মোবাশশারা মোস্তফার কাছে আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবদের প্রবেশ নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে পর্যবেক্ষণের জন্য গুলশান থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক গণমাধ্যমকে বলেন, বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চের আদেশে আজ মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) তারা হাজির হন। পুলিশও এ ঘটনার প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। আগামী ৯ নভেম্বর পর্যন্ত তাদের নিরাপত্তা দিতে বলা হয়েছে। বাড়ির দলিলপত্র হাইকোর্টে জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে নিয়ে হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে ২৬ অক্টোবর (সোমবার) সন্ধ্যায় স্বপ্রণোদিত হয়ে আজ উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দিলে তারা আজ উপিস্থিত হন। এরপর আদালত এই আদেশ দেন। আদালতে আজ দুই বোনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। অঞ্জু কাপুরের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মাসুদ আর সোবহান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহজাবিন রাব্বানী দীপা। তার আগে সকালে হাইকোর্টে হাজির হন সংগীতশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদের ভাই মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের দুই মেয়ে মুশফিকা মোস্তফা ও মোবাশশারা মোস্তফা। একইসঙ্গে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও তাদের বাবার দ্বিতীয় স্ত্রী অঞ্জু কাপুরও (ওসি) হাইকোর্টে আসেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৪ সালে তার মাকে নিয়ে প্রায় ১০ কাঠা জমির ওপর গুলশানের এই বাড়িতে সংসার শুরু করেছিলেন। তাদের জন্মও এই বাড়িতে। ২০০৫ সালে তাদের মা-বাবার বিচ্ছেদ হয়। পরে আঞ্জু কাপুর নামে এক ভারতীয়কে তাদের বাবা বিয়ে করেন। তিনি একাই এখন এই বাড়ির ভোগদখল করছেন। উল্লেখ্য, গত ১০ অক্টোবর মোস্তফা জগলুলের মৃত্যু হয়। মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদ পেশায় পাইলট ছিলেন। ভাইবোনদের মধ্যে শুধু সংগীতশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদ ছাড়া আর কেউ বাংলাদেশে নেই। দুই দিন ধরে বাড়ির সামনে অবস্থান নেন মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের দুই মেয়ে মুশফিকা ও মোবাশ্বেরা। তারা বাড়িতে ঢোকার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply