sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » নানা আয়োজনে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবাষির্কী পালিত




নানা আয়োজনে আওয়ামী লীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কী পালিত হয়েছে। দিনভর সারাদেশে নানা ধরণের কর্মসূচির মাধ্যমে উৎসব মুখর পরিবেশে প্রতিষ্ঠাবাষির্কী উদযাপন করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। বুধবার সকাল ১০টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। কেন্দ্রীয় কমিটির পর ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ যুবলীগসহ প্রতিটি ওয়ার্ড কমিটির নেতৃবৃন্দ আলাদা আলাদা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর আগে সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ড হতে বর্ণিল মিছিলসহ যুবলীগের নেতাকর্মীরা ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে আসেন। বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন এরপর জাতীয় পাতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য করে প্রতিষ্ঠাবাষির্কীর শুভ সূচনা করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। শান্তির প্রতীক সাদা পায়রা আকাশে উড়ান তারা। এসময় যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য শেখ নাঈম, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির হোসেন বাবুল, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাঈন উদ্দিন রানা, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনের পর সেখানে উপস্থিত কয়েক শতাধিক দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে সাদাছড়ি, পক্ষাঘাত প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়। একই সঙ্গে প্রত্যেক প্রতিবন্ধিকে শাড়ি, লুঙ্গি, শীত বস্ত্রসহ নগদ অর্থ বিতরণ করেন যুবলীগ চেয়ারম্যান। এসময় সভাপতির বক্তব্যে যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর শহীদ শেখ ফজলুল হক মনি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। আজ সেই যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কী। প্রতিষ্ঠার পর হতেই নানা সংকট ও চ্যালেঞ্জ যুবলীগ মোকাবেলা করে যাচ্ছে। একেক দশকে যুবলীগ একক চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে এসেছে। তিনি বলেন, এখন প্রশ্ন যুবলীগ হারানো ঐতিহ্য ফিরে পাবে কিনা। বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের গত বছর কাউন্সিলের মাধ্যমে একটা ক্রাইসিস মুহুর্তে দায়িত্ব দেন। আমি মনে করি বিভিন্ন বির্বতনের মধ্য দিয়ে যুবলীগ এসেছে, আমাদের দায়িত্ব গ্রহণও একটি বির্বতন। আমাদের এখনাকার চ্যালেঞ্জ- বঙ্গবন্ধু কন্যা স্বাধীনতার ৫০ বছরে দেশ মধ্যম আয়ের দেশে নিয়ে এসেছেন। দেশ স্বাধীনের পর যুবলীগ যেমন ভূমিকা রেখেছিল, তেমনি আজকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে এগিয়ে যেতে পারে, সেখানে যুবলীগ নিবেদিত থাকবে। যেখানে অন্যায়, অত্যাচার, সেখানে যুবলীগ প্রতিবাদ করবে। অসহায়দের পাশে দাঁড়াবে। যুবলীগ কোন এলিট শ্রেনীদের সংগঠন নয়, যুবলীগ সাধারণ মানুষের সঙ্গে ছিল এবং ভবিষ্যতে থাকবে। যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, আগামী যুবলীগ হবে মেধা সম্পন্ন যুবলীগ। আগামী যুবলীগ হবে রাজনৈতিক এবং সাংগঠনিক ক্ষমতা সম্পন্ন যুবলীগ। এই যুবলীগের দুনীর্তি ও ক্যাসিনোবাজদের ঠাঁই হবে না। যুবলীগ মানুষের কল্যানে কাজ করবে। সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা যুবকদের ঐক্যবদ্ধ করে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে আমরা কাজ করছি। সকল বিতর্ক মুছে যুবলীগকে গণমানুষের কল্যানমুখি সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠা করবো। যুবলীগের ৪৮ বছর প্রতিষ্ঠাবাষির্কীকে সকল নেতাকর্মীকে শুভেচ্ছা জানাই। তিনি বলেন, মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ মুক্ত যুবলীগ গঠন করবো। ইতোমধ্যে যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের নেৃতত্বে আমরা সে পথে হাঁইছি। সততা ও দেশেপ্রেমের যুবলীগ মানুষের জন্য কাজ করবে, এটা আমাদের মূল লক্ষ্য। এরপর বনানী কবরস্থানে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শহীদ শেখ ফজলুল হক মণিসহ ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট নিহত সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ও ফাতেহা পাঠ এবং মোনাজাতে অংশ নেন যুবলীগ চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক। পরে দুস্থদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মণির নেতৃত্বে ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক যুব কনভেশনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা লাভ করে যুবলীগ। অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে যুবসমাজকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্য নিয়েই প্রতিষ্ঠিত হয় এই সংগঠন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply