sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ট্রফি জয়ের দ্বারপ্রান্তে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা




ট্রফি জয়ের দ্বারপ্রান্তে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা

নেপালে ত্রিদেশীয় সিরিজ জয় হতে পারে স্বাধীনতার সুবর্নজয়ন্তীর সেরা উপহার। যা উজ্জীবিত করতে পারে দেশের ভঙ্গুর ফুটবল ব্যবস্থাকে। ফাইনালে গোলশুন্যতা কাটাতে জামাল ভুঁইয়াদের অল অ্যাটাক ফুটবল খেলার পরামর্শ দিলেন সাবেকরা। সামর্থ্যের দিক থেকে নেপালের চেয়ে অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ। শুধুমাত্র ফিনিশিংয়ে দুর্বলতা কাটাতে পারলে ট্রফি নিয়ে দেশে ফেরা সম্ভব বলে মনে করেন তারা। একটি টুর্নামেন্টে খেলল তিনটি দেশ। ফাইনালে উঠল দুই দল। কিন্তু এখন পর্যন্ত একটি গোলও দিতে পারলো না কোনো দল। কিরগিজস্তানের বিপক্ষে এক গোল দিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে সেটাও আত্মঘাতী গোল। দেশের বাইরে ফুটবল টুর্নামেন্টে ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। ট্রফি জয়ের দ্বারপ্রান্তে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। একটি ট্রফি হয়তো বদলে দিতে পারে দেশের ভঙ্গুর ফুটবল ব্যবস্থাকে। সুফিল-সাদ উদ্দিনদের পায়ে স্বপ্ন দেখছেন সাবেকরা। এ প্রসঙ্গে সাবেক ফুটবলার বিপ্লব ভট্টাচার্য বলেন, আমার প্রত্যাশা মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীকে একটি ট্রফি এনে দেবে আমাদের দল। সবাই দায়িত্ব নিয়ে খেললে এটা অসম্ভব কিছু না। দেশের ঘরোয়া ফুটবলে বিদেশী ফরোয়ার্ডদের সুযোগ দেয়া দেশী ফরোয়ার্ডদের বসিয়ে রাখা। দীর্ঘদিন ধরে চলমান এই প্রক্রিয়ার মাসুল গুনতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে ফরোয়ার্ড লাইনআপ গোল শূন্য। যে গোল দিবে সেই জিতবে। নেপালের বিপক্ষে তাই অ্যাটাকিং ফুটবল খেলার পরামর্শ সাবেকদের। সাবেক ফুটবলার মাহবুব হোসেন রক্সি বলেন, ফাইনালে নেপাল কিভাবে খেলবে তা বুঝে আমাদের খেলতে হবে। কোচ জেমির ওপর আমার আস্থা আছে। তবে আমাদেরকে এটাকিং ফুটবল খেলতে হবে। অপেক্ষা আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার। তারপরই হয়তো ইতিহাস রচনা করতে করবে জেমি ডে'র দল। যা প্রেরণার জ্বালানি হিসেবে কাজে লাগবে কাতারের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply