sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » স্বাস্থ্যবিধি মেনে বইমেলা, চলছে স্টল-প্যাভিলিয়ন নির্মাণ




স্বাস্থ্যবিধি মেনে বইমেলা হবে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগকে মাথায় রেখেই স্টল, প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হচ্ছে। বইমেলার সার্বিক অগ্রগতি দেখতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। মেলা চলাকালীন সময়ে ঝড়-বৃষ্টি হলেও অমর একুশে গ্রন্থমেলা সফল হবে বলেও আশাবাদ তাঁর। করোনা দুর্যোগে অমর একুশে গ্রন্থমেলা শুরু হবে ১৮ মার্চ। সেই লক্ষ্যেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে চলছে সেই কর্মযজ্ঞ। ১৫ লাখ বর্গফুটের বিশাল প্রাঙ্গণে ৫ শতাধিক প্রতিষ্ঠানের ৮০৮টি স্টল, ৩৩টি প্যাভিলিয়ন নির্মাণ ও রূপসজ্জার কাজে শিল্পী-কারিগরদের ব্যস্ততার অন্ত নেই। বছর ধরে প্রাণের এই মেলার জন্য অপেক্ষায় থাকেন পাঠক-প্রকাশক। অপেক্ষার শেষ প্রান্তে এসে স্টল-প্যাভিলিয়নে চলছে রঙের আঁচড়। প্রিয় বর্ণমালায় সেজে উঠছে মেলা প্রাঙ্গন। একজন শিল্পী জানালেন, পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকি এই বর্ণমালা খেলার জন্য চলে আসি। সময় কম তাই রূপসজ্জায় ব্যাপক তোড়জোড়। নির্মাণ শ্রমিকরা জানান, প্লাস্টিক পেইন্টের কাজ করছি, পুটিং লাগাচ্ছি এরপরে এটার উপর কালার করা হবে। করোনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখেই চলছে নির্মাণ কাজ। প্রাঙ্গণে থাকছে না ইটের আবরণ। তাই স্টল-প্যাভেলিয়নে তৈরি হচ্ছে কাঠের পাটাতন। স্টল সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রাকৃতিক দুযোর্গের কথা এবার বেশি মাথায় রাখছি। যদি ঝড়-বৃষ্টি আসে তাহলে আমরা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হই। সারাবছর যে বইগুলো বের করি সেই বইগুলো সম্পর্কে যাতে পাঠকরা জানতে পারে সেই লক্ষ্যেই মেলায় আসা। বইমেলার সার্বিক অগ্রগতি দেখতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। এবার মেলার পরিধি বেড়েছে বলে সর্তকতাও বেশি নিতে হচ্ছে বলে জানালেন তিনি। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, গতবারের চেয়ে এবারে পরিধি অনেক বাড়ানো হয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি করোনার জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। নিরাপত্তার বিষয়টিও আমরা খুব সিরিয়াস নিয়েছি। সেই সাথে স্বাস্থ্যবিধি মানতে গিয়ে এবার একটি উদ্যোগ নিয়েছি, সেটা হলো ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের গেট এবং স্বাধীনতা স্তম্ভের দিকের গেট এই দুটি আমরা ব্যবহার করবো। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা চিন্তা করে নেয়া হয়েছে বাড়তি ব্যবস্থা, একথা জানিয়ে মেলা সফল হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রতিমন্ত্রী। প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, ঝড়-বৃষ্টি থেকে রক্ষার জন্য আমরা চারটি শেলটার তৈরি করেছি। সবকিছু ঠিক থাকলে লেখক-পাঠক-প্রকাশক ও দর্শনার্থীদের মিলনমেলায় পরিণত হবে অমর একুশে গ্রন্থমেলা।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply