sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কারণেই আজকের বাংলাদেশ: জাস্টিন ট্রুডো




বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের কারণেই আজকের বাংলাদেশ: জাস্টিন ট্রুডো

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে বাংলাদেশের সব নাগরিককে অভিনন্দন জানিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। বুধবার (১৭ মার্চ) মুজিবশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ১০ দিনের অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ মন্তব্য করেন। বিকেল সাড়ে ৪টায় জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে শিশুদের কণ্ঠে জাতীয় সংগীতের পরিবেশনার মধ্য দিয়ে ১০ দিনের আয়োজনের সূচনা হয়। এ সময় জাস্টিন ট্রুডো বলেন, আমাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ। বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জনের পর বঙ্গবন্ধুর শাসনামলেই বাংলাদেশ ও কানাডার মধ্যে কূটনৈতিক ও সহযোগিতার গড়ে উঠেছিল। শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নের কারণেই আজকের অনুষ্ঠান সম্ভব হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, ১৯৭৩ সালে বাবা যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন আমার বাংলাদেশ সফরে আসার সুযোগ হয়েছিল। আমার বাবা ও শেখ মুজিবুর রহমান তখনই একটি শক্তিশালী দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক গড়ে তোলেন। ৫০ বছরে এই দেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক অগ্রসর হয়েছে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অনেক ব্যাপ্ত হয়েছে, দারিদ্র্যের হার কমেছে, শিক্ষার হার বেড়েছে, স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন হয়েছে, মানুষের জন্য নতুন নতুন সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। কানাডার প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে সামাজিক ও অর্থনৈতিক রূপান্তরের অভিজ্ঞতা পেয়েছে। এসব অগ্রগতিতে কানাডা সব সময় বাংলাদেশের সহযোগী ছিল। আমরা বাংলাদেশের অগ্রগতিতে অবদান রেখেছি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়, যুব কর্মসংস্থান, সব গুরুত্বপূর্ণ সব উন্নয়নে সহযোগিতা করেছি। আমাদের এই সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। মুজিবশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ১০ দিনের অনুষ্ঠানমালার আনুষ্ঠানিক পর্দা উঠেছে বুধবার। অনুষ্ঠানে উপস্থিত আছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহসহ আরো অনেকে। এ ছাড়া ভিডিও বার্তা পাঠিয়েছেন চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগার। ১০ দিনের এ অনুষ্ঠানমালা ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ২৬ মার্চ পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় অনুষ্ঠিত হবে। এতে যোগ দিতে ঢাকায় আসবেন পাঁচ দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান। বুধবারের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ। মূলত ১০ দিনের এ অনুষ্ঠান উদযাপিত হবে মুজিব চিরন্তন থিমের ওপরে। প্রতিদিন আলাদা আলাদা থিমে পরিবেশিত হবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা। প্রথম দিনে থাকবে ভেঙেছে দুয়ার এসেছে জ্যোতির্ময় থিমে পরিবেশনা। সাংস্কৃতিক আয়োজন থাকছে ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশের শিল্পীদের। জাঁকজমকপূর্ণ এ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পেরে নিজেদের ধন্য মনে করছেন প্রতিবেশী দেশের শিল্পীরাও। প্রথমে আলোচনা ও পরে সাংস্কৃতিক পর্বে অনুষ্ঠান চলবে বলে জানান আয়োজক কমিটির নীতিনির্ধারক আসাদুজ্জামান নূর।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply