sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মৌসুমের শুরুতে দেশের কালবৈশাখীর তাণ্ডবে ৯ জনের মৃত্




যু হয়েছে। আর আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন। এছাড়া ঘরবাড়ি, গাছপালা বিধ্বস্ত হওয়ার পাশাপাশি আমের মুকুলসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে। রোববার দুপুরে গাইবান্ধার ৫ উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড়ে বিধ্বস্ত হয় শতাধিক ঘরবাড়ি। ভেঙে যায় অসংখ্য গাছপালা। এসময় তিন নারীসহ চারজন প্রাণ হারিয়েছেন। গাইবান্ধার নিহত চার জন হলেন- পলাশবাড়ী উপজেলার ডাকেরপাড়া গ্রামের ইউনুছ আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৫০) ও মোস্তফাপুর গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে আবদুল গাফফার (৪২), সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কিশামত হলদিয়া গ্রামের সোলায়মান আলীর স্ত্রী ময়না বেগম (৪৭) ও ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারি গ্রামের বিশু মিয়ার স্ত্রী শিমুলি বেগম (২৬)। পলাশবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুদুর রহমান জানান, বেলা তিনটার দিকে হঠাৎ বৃষ্টিহীন কালবৈশাখী ঝড় শুরু হয়। এ সময় পলাশবাড়ীর জাহানারা বেগম বাড়ির উঠানে কাজ করছিলেন। একপর্যায়ে বাড়ির একটি গাছ উপড়ে পড়ে। গাছের নিচে চাপা পড়ে জাহানারা ঘটনাস্থলে মারা যান। বেলা সাড়ে তিনটার দিকে আবদুল গাফফার মোস্তফাপুর বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। তিনি বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছালে একটি গাছ তার ওপর পড়ে যায়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। বেলা সোয়া তিনটার দিকে সুন্দরগঞ্জের ময়না বেগম বাড়ির আঙ্গিনায় কাজ করছিলেন। এ সময় একটি গাছ ভেঙে পড়লে তিনি এর নিচে চাপা পড়ে মারা যান। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ফুলছড়ি থানার ওসি কাওছার আলী বলেন, ফুলছড়ি উপজেলার শিমুলি বেগম বিকেল পৌনে চারটার দিকে বাড়ির উঠানে কাজ করার সময় গাছচাপায় মারা যান। জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা ইদ্রিশ আলী বলেন, ঝড়ে গাইবান্ধা জেলার অসংখ্য কাঁচা ঘরবাড়ি ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তাৎক্ষণিকভাবে তিনি জানাতে পারেননি। ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় কালবৈশাখী ঝড়ে গাছচাপা পড়ে মা-মেয়ের মৃত্যু হয়। কুষ্টিয়ার ভেড়ামায় ঝড়ে উড়ে যাওয়া ঢেউটিনের আঘাতে মারা গেছেন এক ব্যক্তি। ঝিনাইদহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় আঘাত হেনেছে কালবৈশাখী। এসব জেলায় আহত হয়েছে অন্তত ১৫ জন। ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বিভিন্ন ফসলের, গাছপালা, ঘরবাড়ির। খুঁটি ভেঙে ও তার ছিড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে অনেক এলাকায়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply