sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » অক্সিজেন পাঠিয়ে সমালোচিত সুস্মিতা, জবাব দিলেন নায়িকা




অক্সিজেন পাঠিয়ে সমালোচিত সুস্মিতা, জবাব দিলেন নায়িকা

করোনার ছোবলে নাকাল গোটা বিশ্ব। অদৃশ্য শত্রুর দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই ভয়াবহ পরিস্থতি ভারতে। অক্সিজেন সিলিন্ডার, ভ্যাকসিনের অভাবে ধুঁকছে দেশটির স্বাস্থ্য পরিষেবা। অক্সিজেনের অভাবে ছুটে বেড়াচ্ছেন করোনা রোগীর আত্মীয়রা। কিন্তু বাজারে অক্সিজেন সিলিন্ডারের অভাব। এই চরম পরিস্থিতিতে মানুষের সহায্যে এগিয়ে এলেন বলিউডের কিছু সেলেব। যেমন সুস্মিতা সেন, সোনম কাপুর, ভূমি পেডনেকর, গুরমিত চৌধুরীর মতো সেলেবরা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জিনিউজ জানিয়েছে, হাজার কাঠখড় পুড়িয়ে মরণাপন্ন করোনা আক্রান্তদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার জোগাড় করে দিল্লি পাঠালেন সুস্মিতা সেন। তবে নেটিজেনদের একাংশের খোঁচাও সইতে হলো অভিনেত্রীকে। কারণ, মুম্বাই থেকে দিল্লিতে অক্সিজেন পাঠাচ্ছেন। আর দেশটির মধ্যে এই মুহূর্তে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেশি মহারাষ্ট্রেই। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, নেটমাধ্যমেই অভিনেত্রীর চোখে পড়েছিল এক চিকিৎসকের কাতর আরজি। অক্সিজেন সিলিন্ডার নেই। দিল্লির শান্তি মুকুন্দ হাসপাতালের ওই মরণাপন্ন ভিডিও দেখেই মন কেঁদে ওঠে সুস্মিতার। তড়িঘড়ি টুইট করে জানিয়ে দেন, তিনি কয়েকটি অক্সিজেন সিলিন্ডার জোগাড় করতে পেরেছেন, কিন্তু কীভাবে দিল্লিতে পৌঁছে দেবেন, তা বুঝতে পারছেন না। অভিনেত্রীর এমন অসহায়তার কথা শুনে এগিয়ে আসেন এক নেটজনতা। শেষমেশ তার সাহায্যেই দিল্লির ওই হাসপাতালে পৌঁছে দেন অক্সিজেন সিলিন্ডার। তবে সুস্মিতার এই উদ্যোগ ভালো চোখে নেননি অনেকে। এক ভক্ত তো বলেই দিয়েছেন, ‘অক্সিজেন সংকট সব জায়গায় হলে শুধু দিল্লিতে পাঠাচ্ছেন কেন! মুম্বাইয়েও তো হাসপাতাল রয়েছে।’ জবাবও দিয়েছেন নায়িকা। টুইট করেন, ‘মুম্বইয়ে এখনও অক্সিজেন সিলিন্ডার পরিমিত। তবে দিল্লিতে দরকার। বিশেষ করে এই ধরনের ছোট হাসপাতালগুলোর প্রয়োজন। পারলে সাহায্য করুন।’ শেষপর্যন্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার দিল্লিতে পৌঁছতে পেরেছেন সুস্মিতা সেন। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘ওই হাসপাতালটি অক্সিজেনের ব্যবস্থা করতে পেরেছে। এতে অক্সিজেন পাঠাতে খানিকটা সময় পেলাম আমরা। সচেতনতা বাড়ানো ও সহযোগিতার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। এভাবেই ভালো মন রাখুন।’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply