sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » উপহার পাওয়া মূলব্যান হুইস্কির বোতল নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হুলুস্থুল কাণ্ড!




উপহার পাওয়া মূলব্যান হুইস্কির বোতল নিয়ে হুলুস্থুল কাণ্ড! উপহার হিসেবে পেয়েছিলেন হুইস্কির বোতল। যার মূল্য ৫ হাজার ৮০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫ লাখ টাকা)। উপহার পাওয়া মূলব্যান হুইস্কির বোতল নিয়ে হুলুস্থুল কাণ্ড! যিনি পেয়েছিলেন তার নাম

র সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। উপহারটি দিয়েছিল জাপান সরকার। এখন সেই সরকারি উপহার নিয়ে হুলুস্থুল কাণ্ড ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে জানায়, মাইক পম্পেওকে দেওয়া সেই হুইস্কির বোতলের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। সেই বোতলের খোঁজ পেতে অনুসন্ধান শুরু করছে দেশটির মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ডয়চে ভেলে জানায়, পম্পেও যখন দায়িত্বে ছিলেন সে সময় ২০১৯ সালের জুনে রাষ্ট্রীয় সফরে জাপান সফরে যান তিনি। ওই সময় জাপান সরকার তাকে দামি হুইস্কি উপহার দেয়। পরে মেয়াদকালে বিদেশ থেকে ট্রাম্প প্রশাসনের পাওয়া অন্য উপহারের খোঁজ পাওয়া গেলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এটির সন্ধান মিলছে না। এদিকে পম্পেওর আইনজীবী উইলিয়াম ব্রুকের দাবি এই বিষয়ে মাইক পম্পেওর নিজেরও কোনো ধারণা নেই । ডয়চে ভেলে জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল পররাষ্ট্র বিভাগের অধীনে চিফ অব প্রটোকল ২২ জুলাই একটি বিজ্ঞপ্তিতে এই উপহারের হদিস না পাওয়ার তথ্য জানানো হয়। ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি খতিয়ে দেখছে এবং এ নিয়ে তদন্ত চলছে। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের নিয়ম অনুযায়ী মার্কিন কর্মকর্তারা ৩৯০ ডলারের কম মূল্যের উপহার নিজেদের কাছে রাখতে পারেন। এর বেশি মূল্যের উপহার রাখতে চাইলে সেটির মূল্য পরিশোধ করতে হবে। তবে পম্পেওর ক্ষেত্রে এই নিয়মের ব্যত্যয় ঘটেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগ। এদিকে মার্কিন সংবাদ মাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, পম্পেও তার মেয়াদকালে কাজাখস্তানের প্রেসিডেন্ট ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছ থেকে ১৯ হাজার ৪০০ ডলার মূল্যের দুটি কার্পেট পেয়েছেন। ওই দুটি উপহারই জেনারেল সার্ভিস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে জমা দেওয়া হয়েছে। ট্রাম্প প্রশাসনের সময় দামি সব উপহারগুলো জমা দেওয়া হলেও শুধু পম্পেও সেই হুইস্কির বোতলই গায়েব বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply