Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » প্যারিসে যেমন কাটছে মেসির সময়




লিওনেল মেসি বার্সেলোনা ছেড়ে প্যারিসের ক্লাব প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) এসেছেন এক মাস হলো। স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বিলাসবহুল এক হোটেলকে আবাসস্থল বানিয়েছেন আর্জেন্টাইন এই সুপারস্টার। প্যারিসে মেসির প্রথম মাস কেমন গেল তা নিয়ে জনপ্রিয় সাংবাদিক গিয়েম বালাগ লেখেন- আগস্ট মাসে প্যারিসে নামার পর থেকেই পিএসজির সবাই মিলে মেসিকে স্বাগত জানানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। দলের প্রতি মেসির নিবেদন নিয়ে কখনই কোনো প্রশ্ন ছিল না। মেসি যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন। তার চুক্তির বিস্তারিত ও বেতনের খুঁটিনাটি ফরাসি পত্রিকা লে’কিপের প্রথম পাতায় ছাপা হওয়াতে বিরক্ত হয়েছেন মেসি। স্পেনে তার বেতনের খবর ফাঁস হতে বহু বছর লেগেছে, আর ফ্রান্সে দুই মাসও লাগেনি সেটা ঘটতে। ফ্রান্সে গল্পটা অন্যরকম হবে বলেই মনে হচ্ছে এবং এভাবে গোপনীয়তায় আঘাত নিয়ে মেসি মোটেও খুশি নন। শুধু নিরাপত্তা ঝুঁকিই এর মূল কারণ নয়। একটি হোটেলে থাকা, যতই সেটা বিলাসবহুল আর সুবিশাল হোক না কেন- একটি পরিবারের জন্য কোনোভাবেই আদর্শ নয়। যদিও পচেত্তিনোও নাকি তাই করেন। যত দ্রুত সম্ভব থিতু হতে চাইছে পরিবারটি। কিন্তু বলা সহজ, করা কঠিন। বার্সেলোনার একটু বাইরে কাস্তেলদেফেলসে বাগান ও বিশাল জায়গাজুড়ে যেমন বাড়িতে থাকতেন মেসি ও তার পরিবার, তেমন কিছু প্যারিসে খুব কমই আছে। আপাতত হোটেলের বাইরের পার্কে মাঝে-মধ্যে হাঁটতে বের হন তারা। কিন্তু সব সময় নিরাপত্তারক্ষী সঙ্গী হন তাদের। তবে ঘর খোঁজার কাজ প্রায় শেষ এবং সবকিছু গুছিয়ে আনছেন মেসির স্ত্রী আন্তোনেলা (রোকুজ্জো)। মেসি প্রথমেই বলেছেন, প্যারিসে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় সবচেয়ে কঠিন কাজটা ছিল স্ত্রী ও সন্তানদের ঘর বদলানোর কথা বলা। কিন্তু আন্তোনেলা সব সময় তার পাশে ছিলেন এবং এই পরিবারকে থিতু রেখেছেন। যেমন বৃক্ষ তেমন ফল, এ কথা প্রমাণ করতেই মেসির বড় দুই পুত্র পিএসজির বয়সভিত্তিক দলের সঙ্গে সপ্তাহে দুই দিন অনুশীলন করছে। আন্তোনেলা এর দেখভাল করেন। বাচ্চাদের স্কুলে আনা-নেওয়ার ফাঁকে, নিজের অন্য কাজগুলো- নিজের ব্যবসায়িক কাজও করেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply