Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » জাপানের নির্বাচনে বিজয়ী প্রধানমন্ত্রী কিশিদার দল




জাপানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের নির্বাচনে সহজ জয় পেয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা। আগের চেয়ে কিছু আসন কমলেও বুথ ফেরত জরিপকে ভুল প্রমাণিত করে ক্ষমতায় টিকে গেছে তার দল লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এলডিপি)। নির্বাচনে বিজয়ের পর তিনি দেশের অর্থনীতিকে মহামারির ধকল থেকে বের করে নিয়ে আসতে পারবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ১৯৫৫ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে রক্ষণশীল দল এলডিপি মাত্র কয়েকটি বছর বাদে বাকি সময় জাপানের ক্ষমতায় ছিল। এলডিপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা ধরে রাখতে পারবে না, রোববার প্রাথমিক বুথ ফেরত জরিপে এমন ধারণা পাওয়া গিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা সত্যতায় প্রমাণিত হয়নি। এখন পর্যন্ত ফলাফলে জানা গেছে, ৪৫৬ সদস্যের নিম্নকক্ষে এলডিপি পেয়েছে ২৬১টি আসন। আগের ২৭৬টি থেকে এবার আসন সংখ্যা কিছুটা কমেছে। তবে পার্লামেন্টে তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিরঙ্কুশভাবে বহাল আছে। এতে সহজেই পার্লামেন্ট কমিটিগুলোর নিয়ন্ত্রণ, গুরুত্বপূর্ণ বাজেট প্রস্তাবসহ বিভিন্ন প্রস্তাব পাশ করতে পারবে তারা। আরও পড়ুন: জাপানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কিশিদার ভাগ্য নির্ধারণ আজ এক সংবাদ সম্মেলনে কিশিদা বলেন, আমরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছি। এই নির্বাচনে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সরকার ও পার্লামেন্ট চালাতে এর পরিপূর্ণ ব্যবহার করতে চাই আমি। এর আগে টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক ইউ উচিয়ামা বলেন, পররাষ্ট্রনীতির দিক থেকে তিনি দুই পূর্বসূরির নেওয়া পদক্ষেপ অব্যাহত রাখবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাকে জাপান-মার্কিন জোট এবং অবাধ ও উন্মুক্ত ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরের ওপর জোর দিতে হবে। এছাড়া চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব মোকাবিলায় কোয়াডের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে সম্পর্ক দৃঢ় করায় মনোযোগ দিতে হবে। ওয়াশিংটনভিত্তিক র‌্যান্ড কর্পোরেশনের জাপানিজ নিরাপত্তা ও পররাষ্ট্রনীতি বিশেষজ্ঞ জেফ্রি হরনুং বলেন, নিরাপত্তা ও কূটনীতির জায়গা থেকে আমার মনে হচ্ছে, জাপানের অনেক পরিবর্তন দেখতে যাচ্ছি। নির্বাচনী প্রচারের সময় কিশিদা বলেছিলেন, চীনকে মোকাবিলায় সবচেয়ে অগ্রাধিকার দিতে হবে। বেইজিংয়ের কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক আগ্রাসন নিয়ে তার ভেতরে গভীর খেদ কাজ করছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply