Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্ব তালিকায় প্রথম সুইজারল্যান্ড




স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্বে ও ইউরোপে প্রথম সুইজারল্যান্ড। তারপরেই রয়েছে ইউরোপের দেশ নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে ও ডেনমার্ক। ইউরোপের উন্নত দেশগুলোর স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে রীতিমতো ভিতরে ভিতরে যুদ্ধ চলে কার চেয়ে কে বেশি সেবা দিতে সক্ষম। এই নিয়ে চলে গবেষণাও। ডাক্তার, নার্স এবং উন্নত চিকিৎসা সামগ্রীর জন্য অর্থ খরচে পিছপা হয় না দেশগুলো। এতো চেষ্টা চালানোর পরও নিজেদের অবস্থান ও সেবার মানে তালিকায় নিজেদের র‌্যাংকিং ধরে রাখতে হিমশিম খেতে হয় দেশগুলোকে। বর্তমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে দেশগুলোর চিকিৎসার মানের চিত্রেও এসেছে পরিবর্তন। বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) প্রকাশিত এক যৌথ রিপোর্টের ভিত্তিতে বিশ্বে ইউরোপীয় দেশগুলোর সবশেষ চিকিৎসার মান ও সেবায় নিজেদের অবস্থান উঠে এসেছে। ইউরো হেলথ কনজিউমার ইনডেক্স (EHCI) ও আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বীমা ব্রোকার (ASN) মিলিতভাবে বৃহস্পতিবার ৪ নভেম্বর একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে। এতে দেখা যায় যে, স্বাস্থ্যসেবায় জাতীয় বাজেটের ১২ দশমিক ৪ শতাংশ বিশ্বে সবচেয়ে বেশি খরচ করে সেবার মানেও সবার উপরে আছে সুইজারল্যান্ড। তারপরের যৌথভাবে খরচের দিকে দুটি দেশ জাতীয় বাজেটের ১১ দশমিক ৩ শতাংশ খরচ করা ফ্রান্স ও জার্মানি স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্ব তালিকায় ১১ তম ও ১২ তম অবস্থানে রয়েছে। স্বাস্থ্যসেবায় ইউরোপের দেশগুলোর গড় ব্যয় মোট বাজেটের ৯ দশমিক ৯ শতাংশ। এতো বিশাল অর্থ খরচ করেও স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্বে যুক্তরাজ্যে বাজেটের ৯ দশমিক ৬ শতাংশ ব্যয় করে আছে ১৬ তম, স্পেন বাজেটের ৮ দশমিক ৯ শতাংশ ব্যয় করে আছে ১৯ তম এবং ইতালি বাজেটের ৮ দশমিক ৮ শতাংশ ব্যয় করে আছে ২০ তম অবস্থানে। আশঙ্কার কথা হলো, কয়েক বছর আগেও ফ্রান্স ও ইতালির স্বাস্থ্যসেবার অবস্থান ছিল বিশ্ব তালিকায় ১ম ও ৩য়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সেবার মানে এবং সেই সঙ্গে ইউরোপেও তালিকার প্রথম দেশ সুইজারল্যান্ড, তালিকায় বিশ্বে এরপরেই আছে নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে ও ডেনমার্ক। ইউরোপের দেশ সুইডেন অষ্টম এবং অষ্ট্রিয়ার অবস্থান নবম। আরও পড়ুন: সমকামী বিয়ের পক্ষে সুইজারল্যান্ডের মানুষ রিপোর্টে দেখা যায়, সুইজারল্যান্ডে স্বাস্থ্যসেবা উচ্চ মূল্যায়িত সিস্টেম বীমার উপর ভিত্তি করে চলে। জার্মানিতে সরকারি এবং ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য বীমার সমন্বয়ে মাল্টি পেয়ার স্বাস্থ্য সেবা চালু রয়েছে, আর ইতালিতে জাতিয় বীমা ও বার্ষিক পারিবারিক আর্থিক সক্ষমতা কাঠামো অনুযায়ী স্বাস্থ্যসেবার ব্যয় নির্ধারণ হয়। তবে ইউরোপের সকল বৈধ নাগরিকের রয়েছে সরকারি স্বাস্থ্য বীমা ও নির্ধারিত ব্যক্তিগত চিকিৎসক। স্বাস্থ্যসেবাকে ইউরোপে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাত হিসেবে গণ্য করা হয়। ২৭ টি গ্লোবাল পরিষেবা এবং ৪৬ টি পরিষেবার পরিধি ও নাগালসহ সূচক তৈরি করে দেশগুলোর চিকিৎসার সক্ষমতা তুলে ধরা হয় প্রতি বছরের ওই রিপোর্টে। তবে ইউরোপের নাগরিকদের জন্য আশার কথা হচ্ছে ইউরোপীয় দেশগুলোর যেকোনো নাগরিক, নিজের স্বাস্থ্য বীমা ব্যবহার করে অন্য যেকোনো দেশের উন্নত চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারেন বলে জানান আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বীমা ব্রোকার ASN। এক্ষেত্রে এএসএন বীমা সুবিধা প্রদান করে। সম্প্রতি OECD তাদের রিপোর্টে বলেছে, ‘স্বাস্থ্যবান ব্যক্তিরা সুস্থ সম্প্রদায় তৈরি করে এবং একটি একটি ভালো কর্মক্ষম, সমৃদ্ধ এবং আরও উৎপাদনশীল সমাজ গঠনে অবদান রাখে।’ চিকিৎসা সুবিধা হাতের কাছে পাওয়ার পর মানুষের সবচেয়ে বেশি যে আকাঙ্ক্ষা কাজ করে তা হলো বেশিদিন বেঁচে থাকার ইচ্ছা। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ইউরোপের মানুষের গড় আয়ু ৮২ বছর। এর মধ্যে মহিলাদের গড় আয়ু ৮৩ দশমিক ৭ এবং পুরুষ ৭৯ দশমিক ৫। এছাড়া মহিলাদের জন্য ১০ টি দীর্ঘায়ু অঞ্চলের (প্রদেশ) মধ্যে সবকটি ছিল স্পেন ও ফ্রান্সে। যেখানে মহিলাদের গড় আয়ু বেশি। এর মধ্যে মাদ্রিদ সবচেয়ে বেশি বয়স্ক মহিলার বাস। ইউরোপের মধ্যে ৫ টি অঞ্চল (প্রদেশ) যেখানে পুরুষদের গড় আয়ু বেশি, তার মধ্যে ৪ টিই ইতালিতে। একমাত্র ব্যতিক্রম স্পেনের মাদ্রিদ যেখানে মহিলাদেরও গড় আয়ু বেশি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply