Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ইংল্যান্ডের ব্যাটিং দৃঢ়তা নিয়ে চিন্তিত উইলিয়ামসন




চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। বুধবারের এই ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে থেকেই মাঠে নামবে ইংল্যান্ড। তবে টাইমাল মিলস ও জেসন রয়ের ইনজুরি মরগানের দলকে নড়বড়ে করে দিতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের ইনজুরি সত্বেও প্রতিপক্ষ হিসেবে তারা খুবই শক্তিশালী, বিশেষ করে ব্যাটিং লাইনআপ, বলেছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। সুপার টুয়েলভ পর্বে দুই দলই ৫ ম্যাচের মধ্যে চারটিতে জয়লাভ করেছে। এখন তারা পরস্পরের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ফাইনালের টিকিট লাভের লক্ষ্য নিয়ে। আসন্ন ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামার আগে দুই দলেরই সামনে চলে আসছে ২০১৯ সালের ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ ফাইনালের স্মৃতি। যেখানে ইংল্যান্ড শিরোপা জয় করেছে। অপরদিকে, এ বছর বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জয়ের পর থেকে তিন ফর্মেটেই ধারাবাহিক পারফর্ম করে আসছে নিউজিল্যান্ড। মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে উইলিয়ামসন বলেন, ‘এটি ঠিক যে, টুর্নামেন্টে তাদেরকে ইনজুরির সঙ্গে পাল্লা দিতে হচ্ছে। তবে আমার মনে হয় ইংল্যান্ড দলের যে গভীরতা, তাতে এক পর্যায়ে বিষয়টিকে তারা সামাল দিতে পারবে। এখনও তারা বেশ শক্তিশালী দল। তারা সত্যি ভাল ক্রিকেট খেলছে।’ কিউই অধিনায়ক বলেন, ‘দেখুন তাদের দলে বেশ কিছু ম্যাচ জয়ী খেলোয়াড় রয়েছে। যা বিশাল ব্যাপার। আমার অনুমান, পাওয়ার প্যাক দলটির ব্যাটিং দৃঢ়তাও বেশ গভীর।’ নিউজিল্যান্ডের মুল শক্তি তাদের দুই পেসার ট্রেন্ট বোল্ট ও টিম সাউদি। গ্রুপ পর্বে ম্যাচের শুরুতে তারা এর প্রমাণ দিয়েছেন। নিয়ন্ত্রিত বোলিং দিয়ে বোল্ট ও সাউদি ১৮টি উইকেট ভাগাভাগি করে নিয়েছে। যার ফলে ব্যাটিংয়ের উপর খুব একটা চাপ পড়েনি তাদের। এই পেস জুটি প্রসঙ্গে উইলিয়ামসন বলেন, ‘তারা অসাধারণ। দলের হয়ে দীর্ঘদিন ধরে সব ফর্মেটে খেলে আসছেন তারা। আমাদের জন্য তারা সত্যিই অভিজ্ঞ অপারেটর। তারা আমাদের জন্য অসাধারণ কাজ করে যাচ্ছেন। আমাদের বোলিং আক্রমণের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, ভিন্ন পরিবেশে নিজেদের মানিয়ে নিচ্ছেন। তারা আমাদের দলের সত্যিকারের মূল শক্তি।’ ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনালের প্রসঙ্গে উইলিয়ামসন বলেন, নিউজিল্যান্ড ম্যাচটিকে সুপার ওভারে নিয়ে গেলেও বাউন্ডারী গণনায় হেরে গেছে। ওই ঘটনা ছিল খেলারই একটি অংশ। সেটি ছিল অসাধারণ একটি ম্যাচ। এখনও যখন ছেলেরা খোশ গল্পে মেতে উঠে তখন সেই প্রসঙ্গও চলে আসে।’ নিজের ইনজুরি সম্পর্কে উইলিয়ামসন বলেন, ‘তার কনুই এখনো শতভাগ ঠিক হয়নি। এটি ব্যক্তিগতভাবে আমার জন্য কিছুটা চ্যালেঞ্জের। একদিকে আমাকে যেমন কনুই বাঁচিয়ে খেলতে হবে, তেমনি যতটুকু সম্ভব ম্যাচকে এগিয়ে নিতে হবে। তবে এসব বিষয় নিয়ে আমি খুব বেশি চিন্তিত নই।’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply