Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » যুক্তরাষ্ট্রের ৫ রাজ্যে ওমিক্রনের হানা




দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ছে গোটা বিশ্বে। যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর তা এখন পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে দেশটির পাঁচটি রাজ্য। শীতে ওমিক্রনের দাপট আরও বাড়তে পারে শঙ্কায় এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে বলেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বৃহস্পতিবার ভাইরাস মোকাবেলায় তার প্রশাসনের কৌশল উন্মোচন করতে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট এ কথা বলেন। এদিন মেরিল্যান্ডের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অ্ব হেলথ মেডিকেল রিসার্চ ফ্যাসিলিটিতে দেয়া বক্তব্যে বাইডেন বলেন, “আমরা এই ভ্যারিয়েন্টকে বিজ্ঞান ও গতি দিয়ে মোকাবেলা করতে চাই, বিভ্রান্তি বা বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে নয়।” যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত যে ৫টি রাজ্যে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে তার মধ্যে নিউ ইয়র্কেরই ৫ জন। ক্যালিফোর্নিয়া, কলোরাডো ও মিনেসোটায় যে রোগীদের দেহে ওমিক্রন পাওয়া গেছে, তারা সবাই টিকার সব ডোজ নিয়েছিলেন এবং তাদের মধ্যে মৃদু উপসর্গও দেখা গেছে। অন্যদিকে, হাওয়াইতে যে একজনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে- তিনি টিকা নেননি। তবে তার উপসর্গ মাঝারি মাত্রার। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১০ জনের শরীরে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট মিলেছে, যার মধ্যে স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত রোগীও আছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স। গত মাসে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত অন্তত দুই ডজন দেশে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তাও এমন এক সময়ে যখন ইউরোপের একাংশ ডেল্টার নতুন সংক্রমণ মোকাবেলায় খাবি খাচ্ছে। ওমিক্রন ডেল্টার তুলনায় বেশি সংক্রামক এবং কোভিড থেকে সুস্থ হওয়াদের পুনরায় কোভিড আক্রান্ত করার ক্ষেত্রে বেশি কার্যকর বলে প্রাথমিক কিছু গবেষণায় উঠেও এসেছে। ধরনটি মোকাবেলায় বাইডেনের পরিকল্পনার মধ্যে আছে যুক্তরাষ্ট্রগামী যাত্রীদের বিমানে ওঠার সময় থেকে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা আগে করোনা শনাক্তে পরীক্ষা এবং বাস, ট্রেন, বিমান ও অন্যান্য গণপরিবহনে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরার নিয়ম আগামী বছরের ১৮ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানো। যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশেরও কম এখন পর্যন্ত টিকার সব ডোজ পেয়েছে। এই হার ধনী দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। সূত্র- রয়টার্স।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply