Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » আফগানিস্তানকে বড় লক্ষ্য দিতে পারল না বাংলাদেশ




বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের মধ্যকার ম্যাচ। ছবি : সংগৃহীত আফগানিস্তানকে হোয়াইটওয়াশের মিশনে নেমে দারুণ শুরুর আভাস দিয়েছিল বাংলাদেশ। দুই ওপেনার শুরুটা ভালোই করেছিলেন। কিন্তু সময় গড়াতেই সেই আভাস মিলিয়ে গেল। এক লিটন দাস ছাড়া অন্যরা ছিলেন আসা-যাওয়ার মিছিলে। লিটনের ব্যাটে চড়ে কোনো মতে আফগানিস্তানকে ১৯৩ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করে ৪৬.৫ ওভারে ১০ উইকেটে ১৯২ রান গড়ে বাংলাদেশ। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৮৬ রান করেন লিটন দাস। সাগরিকায় ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করে বাংলাদেশ। শুরুর জুটিতে দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটনের জুটিতে আসে ৪৩ রান। তবে তামিমের বিদায়ে আর বড় হলো না ওপেনিং জুটি। প্রথম দুই ম্যাচে ব্যর্থ হওয়া তামিম এবারও পারলেন না। ফিরলেন ২৫ বলে মাত্র ১১ রানে। ১১তম ওভারে ফারুকির করা বল বেরিয়ে এসে লেগে ঘুরাতে চেয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। ব‍্যাট-প‍্যাডের বিশাল ফাঁক দিয়ে বল আঘাত হানে স্টাম্পে। তামিমের পর দারুণ কাভার ড্রাইভে ইনিংস শুরু করেন সাকিব আল হাসান। পরের বলেই ফারুকির বলে এলবির ফাঁদে পড়েন যান। তবে রিভিউ নিয়ে সেই যাত্রায় বেঁচে যান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। এরপর লিটন দাসের সঙ্গে উইকেটে থিতু হয়ে যান তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারলেন না ইনিংস বড় করতে। ২২তম ওভারে সাকিবকে নিজের শিকার বানান আজমতউল্লাহ। তিন বাউন্ডারিতে ৩৬ বলে ৩০ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। সাকিবের বিদায়ে ভাঙে ৬৯ রানের জুটি। সাকিব-তামিমের বিদায়ের পর জোড়া ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। ছয় রানের মধ্যে পরপর আউট হন মুশফিকুর রহিম ও ইয়াসির আলী রাব্বি। রশিদ খানের বলে রহমতউল্লাহর হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন মুশফিক (৭)। এরপর টিকলেন না রাব্বি। এই সিরিজেই অভিষেক হওয়া রাব্বি সুযোগ পেয়েছেন তিনটি ম্যাচেই। কিন্তু একটিতেও জ্বলে উঠতে পারলেন না। আজ ফিরেছেন ১ রান করে। দ্রুত ৪ উইকেট যাওয়ার ধাক্কা সামলে দলকে তবুও এগিয়ে নেন লিটন দাস। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান আজ হাফসেঞ্চুরি করেন ৬৩ বলে। এরপর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ছুটছিলেন সেঞ্চুরির পথে। কিন্তু টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পাওয়ার স্বাদ পেলেন না তিনি। ৩৫.৫ তম ওভারে মোহাম্মদ নবী এসেই ফেরান ডানহাতি এই ব্যাটারকে। আফগান অলরাউন্ডের বলে উড়িয়ে মারেন লিটন। তবে সেভাবে জোর দিয়ে পারেননি। সীমানা থেকে ছুঁটে এসে দারুণ ক্যাচ নিয়ে লিটনকে সাজলের পথ দেখান জমান নাইব। ১১৩ বলে ৭ চারে ৮৬ রান করে থামেন লিটন। ডানহাতি ব্যাটার ফেরার পর শেষ দিকে বাকিদের নিয়ে মাহমুদউল্লাহ বাংলাদেশকে ১৯২ রানের পুঁজি এনে দেন। ২৯ রান করেন অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার। তিন ম্যাচের সিরিজে প্রথম দুই ওয়ানডেতে জিতে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ আগেই নিশ্চিত করে রেখেছে বাংলাদেশ। আজ আফগানদের হারাতে পারলেই প্রথমবার তাদের হোয়াইটওয়াশ করার কীর্তি গড়তে পারবে তামিম ইকবাল দল। সংক্ষিপ্ত স্কোর বাংলাদেশ : ৪৬.৫ ওভারে ১৯২/১০ (তামিম ১১, লিটন ৮৬, সাকিব ৩০, মুশফিক ৭, ইয়াসির ১, আফিফ ৫, মাহমুদউল্লাহ ২৯, মিরাজ ৬, তাসকিন ০, শরিফুল ৭, মুস্তাফিজ ১; রশিদ ১০-০-৩৭-৩, ফারুকি ৭.৫-০-৩৩-১, মুজিব ৮-০-৩৭-০, আজমতউল্লাহ ৬-০-২৯-১, নবী ১০-০-২৯-২, নাইব ৫-০-২৫-০)






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply