Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » জাদেজাময় মোহালিতে উড়ে গেল লঙ্কা




বিরাট কোহলির শততম টেস্ট হয়ে উঠল রীতিমত রবীন্দ্র জাদেজাময়। মোহালিতে ইতিহাস গড়া এই অলরাউন্ডার ব্যাট হাতে ১৭৫ রানে অপরাজিত থাকার পর বল হাতে তুলে নিলেন ৯টি উইকেট। যাতে তিন দিনেই ইনিংস ও ২২২ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে যায় শ্রীলঙ্কা। জাদেজার এমন অবিস্মরণীয় পারফর্মের দিনে গ্রেট কপিল দেবের ৪৩৪ উইকেটের মাইলফলক টপকে গেলেন আরেক স্পিনিং অলরাউন্ডার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। আর এতেই মোহালি টেস্টের জয় দিয়েই শুরু হল অধিনায়ক রোহিত শর্মার পথ চলা। অন্যদিকে, টেস্টে ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ব্যবধানে জয়ের হিসাবে চতুর্থ স্থান করে নিল এই জয়। প্রথম ইনিংসে ভারতের দুই ওপেনার রোহিত শর্মা এবং মায়াঙ্ক আগারওয়াল ৫২ রানের জুটি গড়েন। দ্রুত রান তুলছিলেন তাঁরা। রোহিত ফিরলে রান তোলার দায়িত্ব নেন হনুমা বিহারী। ৫৮ রান করেন তিনি। প্রথমবার তিন নম্বরে খেলতে নেমে নিজের জায়গা পাকা করার ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেন হনুমা। চাপ বাড়ল চেতেশ্বর পুজারার ওপর। এদিকে, শততম টেস্টে বিরাট করেন ৪৫ রান। অর্ধশতরানের কাছে এসেও ফিরতে হয় তাকে। অন্যদিকে, মাত্র ৪ রানের জন্য শতক বঞ্চিত হন ঋষভ পণ্ট, ৯৭ বলে করেন ৯৬ রান। সুরঙ্গা লাকমালের বলে বোল্ড হন তিনি। তবে মোহালিতে ভারত যে বড় রান করতে চলেছে, সেই ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছিল আগেই। কাজটা সহজ করেন রবীন্দ্র জাদেজা। ২২৮ বলে ১৭৫ রানের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন তিনি। যার ফলে ৫৭৪ রানে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। দ্বিতীয় দিনের শেষ সেশনে ব্যাট করতে নামে শ্রীলঙ্কা। তবে দিন শেষ হওয়ার আগেই চার উইকেট তুলে নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন অশ্বিন-জাদেজারা। তৃতীয় দিন সকালে বেশ কিছু সময় ভারতীয় বোলারদের রুখে দিতে পেরেছিলেন পাথুম নিসাঙ্কা ও চারিথ আসালাঙ্কারা। কিন্তু আসালাঙ্কা ফিরতেই বাঁধ ভেঙে যায় লঙ্কার ব্যাটিংয়ে। মাত্র ১৩ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে ফলোঅনে পড়ে সফরকারীরা। সেই ইনিংসে ৫ উইকেট নেন জাদেজা। সেই সঙ্গে ৬০ বছর পরে ভারতীয় ক্রিকেটে অনন্য এক নজির গড়েন বাঁহাতি এই স্পিনার। একই টেস্টে দেড়শোর বেশি রান ও পাঁচ উইকেটের কৃতিত্ব এর আগে রয়েছে দুই ভারতীয় ক্রিকেটারের। বিনু মানকাড় এবং পলি উমরিগড় এই রেকর্ড গড়েছিলেন। তাদের সেই কীর্তি স্পর্শ করার পর জাদেজা দ্বিতীয় ইনিংসেও তুলে নেন ৪টি উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে সমান সংখ্যক উইকেট পান অশ্বিনও। বাকী ২টি নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। ভারতীয় বোলারদের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার নিরোশান ডিকওয়েলা (৫১ রানে অপরাজিত) ছাড়া কোনও ব্যাটারই রুখে দাঁড়াতে পারেননি দ্বিতীয় ইনিংসে। যাতে এ ইনিংসে লঙ্কানরা গুটিয়ে যায় প্রথম ইনিংস থেকে মাত্র ৪ রান বেশি করে। অর্থাৎ ১৭৮ রানে। ফলস্বরূপ কপালে জোটে ইনিংস ও ২২২ রানের বিশাল হার।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply