Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের




ইউক্রেনে সামরিক হামলার পর অনেক নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়েছে রাশিয়া। এবার নতুন করে রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়া আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর পর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। সংবাদমাধ্যম এএফপির বরাতে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতির মাধ্যমে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে জানায়। বিবৃতি অনুযায়ী, নিষেধাজ্ঞার অধীন আসা ব্যক্তি ও সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিতে স্পর্শকাতর তথ্য সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির লাগাম টেনে ধরতেই এমন পদক্ষেপ নেয় যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়া উদ্বেগজনক কর্মসূচি ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্বমঞ্চে রাশিয়ার যে নেতিবাচক ভূমিকা, সেটাকেই তারা তুলে ধরছে। নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘটনায় তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনভ। তিনি বলেন, ধারাবাহিক এসব অবরোধ আরোপের ফলে কারো লক্ষ্য অর্জিত হবে না। ২০১৭ সালের পর সবচেয়ে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে পিয়ংইয়ং। এটি অনেক দূরপাল্লার পরীক্ষা ছিল এবং আকাশে বহুদূর উঠেছিল ক্ষেপণাস্ত্রটি। পরে অনেক দূরে গিয়ে আঘাত হানে এটি। শুক্রবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে দেশটির পরমাণু যুদ্ধ প্রতিরোধ সক্ষমতা বাড়াতে নতুন ধরনের আইসিবিএম পরীক্ষা ব্যক্তিগতভাবে তদারক করেছেন কিম জং উন। আরও পড়ুন : এক মাসে সাতবার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পরপরই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। রুশ প্রতিষ্ঠান আরদিস গ্রুপ ও পিএফকে প্রোফপদশিপনিক এবং রুশ নাগরিক ইগোর আলেকসান্দ্রোভিচ মিচুরিনের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটি। একই সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার নাগরিক রি সুং চোল এবং প্রতিষ্ঠান সেকেন্ড একাডেমি অব ন্যাচারাল সায়েন্স ফরেন অ্যাফেয়ার্স ব্যুরোর ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। ২০১৭ সালের পর আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা স্থগিত রেখেছিল উত্তর কোরিয়া। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার উচ্চপর্যায়ের একাধিক কূটনৈতিক বৈঠককে কেন্দ্র করে এ ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা বন্ধ রাখে পিয়ংইয়ং। একই সময় থেকে দেশটি পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষাও বন্ধ রাখে। আরও পড়ুন : ভয়ংকর ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর মিত্র সিউলের প্রতি ওয়াশিংটনের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করতে গতকাল দিনের শেষ দিকে দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী চুং ইউই-ইয়ংয়ের সঙ্গে কথা বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন। তারা বলেন, এ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের একাধিক প্রস্তাবের লঙ্ঘন এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি হুমকি। উত্তর কোরিয়ার ধারাবাহিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে প্রতিবেশী দেশসহ গোটা পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে। বিশেষ করে দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে। তবে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে সাতবার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায় উত্তর কোরিয়া। এক মাসে সর্বোচ্চসংখ্যক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা এটি। এর আগে ২০১৯ সালে এক মাসে সর্বোচ্চসংখ্যক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছিল পিয়ংইয়ং






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply