Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ব্রাজিলকে সবাই ঈর্ষা করে: তিতে




ব্রাজিলকে সবাই ঈর্ষা করে: তিতে বিশ্বকাপে সবচেয়ে সফল দেশের নাম ব্রাজিল। ফুটবল রীতিমতো ধর্ম লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে বড় দেশটির মানুষের কাছে। দুয়ারে কড়া নাড়ছে আরও একটি বিশ্বকাপ। কাতারে অনুষ্ঠিতব্য সেই বিশ্বকাপে বরাবরের মতো ফেবারিট ব্রাজিল। বি

শ্বকাপ সামনে রেখে ব্রাজিলের কোচ তিতে বলছেন, বিশ্বমঞ্চে ব্রাজিলের সাফল্য অন্যদের ঈর্ষার কারণ। নভেম্বরে পর্দা উঠছে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২২তম আসরের। কাতারে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপে যথারীতি ফেবারিটের তালিকায় ব্রাজিল। ২০০২ সালে সবশেষ বিশ্বকাপ জেতা দলটি এবার আশা করছে বিশ্বকাপে বিশ বছরের খরা কাটানোর। পিএসজির সুপারস্টার নেইমারের এটাই শেষ সুযোগ ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ জেতানোর। ব্রাজিল সমর্থকদের আশা যোগাচ্ছে কোচ তিতের অধীনে তাদের পারফরম্যান্স। বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে এবার একটিও ম্যাচ হারেনি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ১৮ এর বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব ও এবারের বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব মিলিয়ে ২৯ ম্যাচ অপরাজিত ব্রাজিল। আশাবাদী ব্রাজিল কোচ তিতেও। গার্ডিয়ানকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ্বকাপে ব্রাজিলের সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। আশাবাদী কোচ ফাইনালের মঞ্চে ট্রফি হাতেই দেখছেন দলকে। তিনি বলেন, 'আমি আশাবাদী। আমরা বিশ্বকাপে পৌঁছে গেছি, এখন সময় ফাইনালে ওঠার, চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। এটাই সত্যি। এর আগের বিশ্বকাপের আগে আমি পুরো মেয়াদে কাজ করার সুযোগ পাইনি। এবার পুরো চার বছরের চক্রজুড়ে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। প্রত্যাশা অনেক বেশি, কিন্তু আমরা নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছি।' আরও পড়ুন:ব্রাজিল কোচের চোখে কে সেরা, নেইমার নাকি ভিনিসিয়াস? উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল থেকে বিদায়ের পর ব্রাজিলের দায়িত্ব পান বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ও ২০১০ বিশ্বকাপে কোচের দায়িত্ব পালন করা দুঙ্গা। তবে ২০১৬ সালে কোপা আমেরিকায় ব্যর্থ হলে তাকে বরখাস্ত করে তিতের হাতে দলের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়। তার অধীনে বাছাইপর্বে টানা ১২ ম্যাচ জিতে বিশ্বকাপে জায়গা করে নেয় ব্রাজিল। তিতের অধীনে ব্রাজিল কতটা ভালো খেলছে তার ফিরিস্তিও নিজেই জানালেন এই কোচ। ২০১৮ বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের বিপক্ষে হেরে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও তিতের অধীনে কোপা আমেরিকায় সাফল্যের মুখ দেখেছে তারা। তিনি বলেন, 'আমাদের দেখানোর মতো ফলাফল আছে। মানুষ কী চায়? বাছাইপর্বে সর্বোচ্চ পয়েন্ট পাওয়ার রেকর্ড গড়েছি আমরা। টানা ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ডও আমাদের দখলে। ২০১৮ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে আমার অধীন টানা ১২ ম্যাচ, এ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে টানা ১৭ ম্যাচ, মোট ২৯ ম্যাচে আমরা হারের মুখ দেখিনি।' এই কোচ আরও যোগ করেন, 'দক্ষিণ আমেরিকার বাছাইপর্ব খুব কঠিন। ১৭ ম্যাচে মিলিয়ে আমরা আর্জেন্টিনার চেয়ে ১৩ গোল বেশি করেছি। ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়েও আমরা সবার সেরা। ২০১৯ কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন আমরা। ২০২১ সালের কোপা আমেরিকাতে রানার্সআপও হয়েছি, সেবার জিততে পারিনি কিন্তু আমরা যে সঠিক পথেই আছি তা বোঝা গেছে। বাছাইপর্বের ১৭ ম্যাচের মধ্যে ১৩টিতেই কোনো গোল হজম করিনি, প্রতি ম্যাচে গড়ে আড়াইটা করে গোল করেছি।' আরও পড়ুন:মার্সেলো-আলভেসকে নিজ ক্লাবে টানছেন রোনালদো ফুটবল ইতিহাসের সফলতম দল ব্রাজিলকে যে তার সাফল্যের জন্য বাকিরা হিংসা করে তাও জানান তিতে। ২০ বছর ধরে বিশ্বকাপ না জিততে পারলেও সেলেসাওরা একাধিকবার জিতেছে মহাদেশীয় শিরোপা কোপা আমেরিকা, কনফেডারেশন কাপসহ বেশকিছু শিরোপা। কিন্তু ব্রাজিলিয়ানদের জন্য যে বিশ্বকাপ না জিততে পারলে সবকিছুই ব্যর্থ তা জানেন এই কোচ। ব্রাজিলকে বাকিরা কতটা হিংসা করে তার একটা প্রমাণও দিয়েছেন তিতে। তিনি সেই ঘটনার বিবরণ দিয়ে বলেন, 'ব্রাজিলকে কি সবাই ঈর্ষা করে? একটা কাহিনি বলি। ২০১৮ বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের কাছে হেরে (কোয়ার্টার ফাইনালে) বিদায় নেওয়ার পর ইতালির এক কোচ মিরান্দাকে (ডিফেন্ডার) উপহাস করেছিল। সে বলেছিল, -বেলজিয়ামের কাছে হেরে বিদায় নিয়ে কেমন অনুভব করছো?' মিরান্দা আমাকে এটা শুনিয়েছিল এবং আমি মিরান্দাকে বলেছিলাম, -'বিদায় নিতে কেমন লাগে— -এটা ওই কোচ বুঝবে না, কারণ সে কখনো ব্রাজিলের মতো দলের কোচ ছিল না। এমনকি সে নিজের দেশেরও কোচ ছিল না। এটার নামই ঈর্ষা। এ রকম অনেক মানুষই ব্রাজিলকে হিংসা করে। কিন্তু তারা সেটা মুখে স্বীকার করে না। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলকেই হিংসা করা হয় সম্ভবত। জাগালোর (বিশ্বকাপজয়ী খেলোয়াড় ও কোচ) মতো কোচকে যদি সমালোচনা করা হয়, তাহলে আমাকে নিয়ে তো সমালোচনা হবেই!'






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply