Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » এবার শিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত বাইডেন প্রশাসনের




এবার শিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত বাইডেন প্রশাসনের যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন পাসের আলোচনার মধ্যেই নিরাপত্তায় শিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। ওয়াইহো অঙ্গরাজ্যে ইতোমধ্যে এ আইন প্রণয়নে প্রস্তুতি চলছে। খবর নিউইয়র্ক টাইমস।

প্রতিদিনই বন্দুক হামলায় রক্ত ঝরছে যুক্তরাষ্ট্রে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শপিংমল এমনকি ধর্মীয় উপাসনালয়েও গুলির ঘটনা ঘটছে। একই সঙ্গে জোরালো হচ্ছে আগ্নেয়াস্ত্র বন্ধের দাবি। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে অনেকটাই উল্টো পথে হাঁটছে ওয়াইহো প্রশাসন। শিক্ষকদের হাতে বন্দুক তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। স্কুলের শিক্ষক ও অন্য কর্মীদের ২৪ ঘণ্টার প্রাথমিক প্রশিক্ষণ শেষে তাদের হাতে বন্দুক তুলে দেয়া হবে। আইনটি কার্যকরের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলার ঘটনা কিছুটা কমবে বলে মনে করছেন অনেকে। তবে এ আইনের বিরোধিতাও করছেন অনেকে। এটি কার্যকর হলে শিশুদের জন্য তা আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠবে বলে আশঙ্কা তাদের। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বন্দুক সহিংসতার বিষয়ে গভীর উদ্বেগ জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। হোয়াইট হাউসে এক ভাষণে আগ্নেয়াস্ত্র বন্ধের পক্ষে মত দেন তিনি। আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার বন্ধে আইন করতে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আইনপ্রণেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাইডেন। আরও পড়ুন: গরমে বাড়ছে বন্দুক সহিংসতা! প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, আর কত হত্যাকাণ্ড মেনে নিতে হবে আমাদের? জরুরিভাবে পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রয়োজনে অস্ত্র কেনার বয়স ১৮ থেকে পরিবর্তন করে ২১ বছর করতে হবে। একইসঙ্গে বন্দুকের অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যক্তির অতীত ইতিহাস পর্যালোচনা ও প্রাণঘাতী অস্ত্রের অনুমোদন বন্ধ করতে হবে। গণমাধ্যমগুলো বলছে, আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক সহিংসতা অনেক বেশি বেড়ে গেছে। দেশব্যাপী অস্ত্র সহিংসতা বন্ধের দাবিও ক্রমেই জোরালো হচ্ছে। আতংকের দেশে পরিণত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রতিদিনই গুলিতে প্রাণ হারাচ্ছে সাধারণ মানুষ। বৃহস্পতিবার (২ জুন) দেশটির আইওয়া রাজ্যে একটি গির্জার বাইরে বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, এদিন গির্জায় প্রার্থনা চলছিল। হঠাৎই এক অস্ত্রধারী গুলি ছুড়তে শুরু করে। আতঙ্কে দিগ্‌বিদিক ছুটতে থাকেন মানুষ। হামলার পর পরই অস্ত্রধারীও আত্মহত্যা করে। আরও পড়ুন: অস্ত্র আইন কড়া করার কথা বললেন বাইডেন একই দিন স্থানীয় সময় দুপুরে যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিন রাজ্যের রেসিন শহরে গুলিতে বেশ কয়েকজন আহত হন। পুলিশ জানায়, শহরের গ্রিসল্যান্ড নামের একটি সমাধিস্থলে ৩৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তির শেষকৃত্যানুষ্ঠান চলছিল। আচমকা বন্দুক বের করে গুলি চালাতে শুরু করে এক অস্ত্রধারী। এ সময় জীবন বাঁচাতে ছোটাছুটি শুরু করেন সবাই। একপর্যায়ে এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে চালাতেই পালিয়ে যায় বন্দুকধারী। যুক্তরাষ্ট্রে সাম্প্রতিক সময়ে গোলাগুলির ঘটনা উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। এর আগে পহেলা জুন ওকলাহোমা রাজ্যের একটি হাসপাতালে বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত চারজন নিহত হন। ওই ঘটনায় আহত হন বেশ কয়েকজন। পরে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে বন্দুকধারীও নিহত হয়। চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত দুই শতাধিক বন্দুক হামলায় প্রাণ হারিয়েছে আড়াই শতাধিক মানুষ। এসব হামলায় আহত হয়েছে এক হাজারের বেশি। ওয়াশিংটন পোস্টের এক পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছরের ৫ মাসে বন্দুক হামলা, নয় বছরের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply