Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » কাশ্মীর ছাড়তে চান ভীত পণ্ডিতরা




কাশ্মীর ছাড়তে চান ভীত পণ্ডিতরা কাশ্মীর ছেড়ে চলে আসার হুমকি দিয়েছেন পণ্ডিতরা। সেখানে নিয়মিত পণ্ডিত ও অ-কাশ্মীরিদের হত্যার ঘটনার পর এই হুমকি দেওয়া হয়েছে। এদিকে পণ্ডিতরা যাতে যেতে না পারেন, সে জন্য তাদের শিবির সিল করে দেয়া হয়েছে। খবর এনডিটিভি।

গেল কয়েকদিনে কাশ্মীরের কুলগামে দুইটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এদের একজন ছিলেন স্কুল শিক্ষিকা এবং অন্যজন ব্যাংক ম্যানেজার। এই ঘটনার বাইরেও কাশ্মীরের বিভিন্ন অংশে সন্ত্রাসীরা পণ্ডিত ও অ-কাশ্মীরিদের টার্গেট করেছে। বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়, গেল জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত ১৬ জনকে হত্যা করা হয়েছে। সাম্প্রতিক এসব নানা ঘটনার কারণে সেখানকার অন্তত চার হাজার পন্ডিত একত্রিত হয়ে ঘোষণা দিয়েছেন, সরকার যদি তাদের নিরাপত্তা দিতে না পারে, তাহলে তারা কাশ্মীর ছেড়ে চলে যাবেন। এ বিষয়ে কাশ্মীর পুলিশের আইজি বলেছেন, কাশ্মীরকে সন্ত্রাস-মুক্ত করতে একটু সময় লাগবে। পন্ডিতরা বলেছেন, আপাতত, তাদের নিরাপদ কোনো জায়গায় নিয়ে যাওয়া হোক। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে, শান্ত হলে, তারা আবার কাশ্মীরে ফিরবেন। এই চার হাজার পণ্ডিতকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্যাকেজ অনুযায়ী চাকরি দেয়া হয়েছিল। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর থেকে জানা যায়, কাশ্মীরি পণ্ডিতরা যে ট্রানজিট ক্যাম্পে থাকেন, বুধবার (০১ মে) সেই সব শিবিরে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। কাউকে সেখানে যেতে দেয়া হচ্ছে না। পণ্ডিতদেরও বেরোতে দেয়া হচ্ছে না। শ্রীনগরের পাশে ইন্দ্রনগর সহ অনেকগুলি শিবিরের চিত্র একই। আরও পড়ুন: উত্তপ্ত কাশ্মীর, ব্যাংক কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা কাশ্মীরের সবচেয়ে বড় শিবির ভেসু পণ্ডিত কলোনি। সেখানে অবস্থানরত পন্ডিতরা বিক্ষোভ করেছেন এবং স্লোগান দিয়েছেন। সেখানেও শিবিরের প্রধান দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এক বিক্ষোভকারী সংবাদসংস্থা পিটিআইকে বলেছেন, ''আমরা ২৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করব। তারমধ্যে সরকার কোনো পদক্ষেপ না নিলে আমরা সবাই আবার ফিরে যাব।'' তিনি আরও জানিয়েছেন, তারা ইতোমধ্যে লেফটন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহার সঙ্গে দেখা করেছেন। সেখানে তাকে জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে তারা উপত্যকায় ফিরতে চান না। তাদের আপাতত অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হোক। কুলগামে শিক্ষক ও ব্যাংক ম্যানেজারকে হত্যার পর পণ্ডিতরা ক্ষুব্ধ। নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে একজন বিক্ষোভকারী জানিয়েছেন, ''এক হাজার ২৫০ জন কাশ্মীরি পরিবারসহ বিভিন্ন শিবিরে আছেন। বাকি চার হাজার পণ্ডিত ভাড়াবাড়িতে থাকেন। সবাইকে নিরাপত্তা দেয়া অসম্ভব ব্যাপার। তাই একমাত্র সমাধান হলো, সবাই মিলে কাশ্মীর ছেড়ে চলে যাওয়া।'' পণ্ডিতদের অভিযোগ, তারা জম্মু চলে যেতে চান। কিন্তু তাদের যেতে দেয়া হচ্ছে না। তাদের শিবির সিল করে দেয়া হয়েছে। আরও পড়ুন: কাশ্মীরে স্কুলে ঢুকে শিক্ষিকাকে গুলি করে হত্যা এ বিষয়ে কাশ্মীরি পণ্ডিতরা অভিযোগ করে বলেছেন, বর্তমান সরকার পণ্ডিতদের কাশ্মীর-ত্যাগের দায় নিতে চায় না। ফলে তাদের যেতে দেয়া হচ্ছে না। সেজন্যই শিবিরে শিবিরে কাশ্মীরিরা 'প্রশাসন হায় হায়', 'সংখ্যালঘুদের বাঁচতে দাও', 'আমরা ন্যায় চাই' ইত্যাদি বলে স্লোগান দিয়েছেন। কাশ্মীরের সাংবাদিক রউফ ফিদার মতে, ''৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকে এই প্রবণতা শুরু হয়েছে। একটা প্রচার শুরু হয়েছিল যে, কাশ্মীরে এবার অ-কাশ্মীরিদের নিয়ে গিয়ে বসানো হবে। সন্ত্রাসীরা এখন বোঝাতে চাইছে, বিষয়টি অত সহজ হবে না।'' তার মতে, ''সরকার যে দাবি করে, কাশ্মীরে সব স্বাভাবিক। সাম্প্রতিক এসব হত্যাকান্ড, পণ্ডিতদের চলে যাওয়ার ঘোষণা তার উল্টো চিত্রই তুলে ধরে।''






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply