Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মেহেরপুর পৌরসভার মেয়র প্রার্থী রিটন সাংবাদিকদের সাথে কৈফিয়ৎ ও পরিকল্পনা উপস্থাপনা করলেন।




মেহেরপুর পৌরসভার ১৫ইজুন সাধারণ নির্বাচন-২০২২ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান রিটন সাংবাদিকদের সাথে কৈফিয়ৎ ও পরিকল্পনা উপস্থাপনা করলেন। মঙ্গলবার বিকালে মেহেরপুর শিল্পকলা একাডেমী সভাকক্ষে মিলনায়তনে আগামীর পরিকল্পনা উপস্থাপনা করেন। এসময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সদস্য পারভিন জামান কল্পনা, মেহেরপুর জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মোঃ গোলাম রসূল,উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম, জেলা জজ কোর্ট বিজ্ঞ পিপি পল্লব ভট্টাচার্য, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ আক্কাস আলী, যুবলীগের সাবেক সভাপতি সাজ্জাদুল আনাম,জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান। মেহেরপুর জেলার প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে সাবেক মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন মেহেরপুর বাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। বিগত ৫বছর আমাকে মেয়র নির্বাচিত করে পৌরবাসীর সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। আপনারা সেবা করার সুযোগ দিয়েছিলেন। আমি আপনাদের মাঝে কোন কারনে ভুল ভ্রান্তি করলে আপনারা আমাকে আপনাদের কারো সন্তান কারো ভাই হিসাবে আমাকে ক্ষমা করবেন। ২০১৭সনে দীর্ঘদিন সময় নাগরিক সম্মান অধিকার ও প্রয়োজনীয় উন্নয়ন বঞ্চিত পৌরসভার নির্বাচন বহু কষ্ট করে ফিরে এনেছিলাম। বিগত সময় গুলিতে পৌরবাসীর কষ্টের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে পৌরসভার উন্নয়ন না করে নিজ ক্ষমতা অহংকার ও ব্যাপক অর্থ মামলা মোকদ্দমা করে পৌরবাসীর ভোটাধিকার হরণ করেছিল। আমি আপনাদের পৌরবাসীর নাগরিক ভোটাধিকার সম্মান ও ভালোবাসার প্রতি আস্তাশীল থেকে যথাসময়ে ও যথানিয়মে ভোটের অধিকার প্রয়োগে সকল প্রকার সহায়ক ভূমিকা পালন করেছি। আগামী ১৫ ই জুন ২০২২ তারিখ বুধবার মেহেরপুর পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।আমার নৌকা প্রতীককে আপনারা ভোট দিয়ে আবারও পৌরসভা আসার সুযোগ করে দিবেন। বিগত নির্বাচনে আমার নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে আমি সর্বদা সচেষ্ট থেকে বহু কাজ সফল ভাবে শেষ করতে সক্ষম হয়েছি আপনাদের চলাচলের প্রতিটি সড়ক উপসর্গগুলি পথের দিকে দৃষ্টি দিলে তার প্রমাণ মিলবে মেহেরপুর পৌরসভা কে অহংকার মুক্ত মানবিক জনপ্রতিনিধিত্বের সেবক হিসেবে দাঁড় করাতে সক্ষম হয়েছি শুধুমাত্র নাগরিক সনদ পরিছন্নতা উন্নয়নের পাশাপাশি একজন মেয়র হিসেবে আমি সকল মানুষের প্রয়োজনে বিপদে-আপদে ছিলাম চিকিৎসা শিক্ষা বিয়ে হুইলচেয়ার অক্সিজেন সিলিন্ডার এবং মানবিক সংকট মানুষের পাশে থেকে সাহস যোগাতে তৎপর থেকেছি বিগত প্রায় দুই বছর করোনা সংকট কালীন সময়ে মহান আল্লাহর প্রতি আস্থাশীল থেকে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে ছুটে গিয়েছি দিনে-রাতে প্রকাশ্য এবং গোপনে যেন কোন মানুষের পরিবার-পরিজন নিয়ে দুই দর্শন মধ্য না থাকে আমার ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক সমর্থন নিয়ে ছুটে চলেছি বিরামহীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত উপহারসামগ্রী সাথে আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে সংযুক্তি ঘটিয়ে প্রয়োজনীয় প্রতিটি বাড়ির দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে নিজ হাতে উপহার সামগ্রী তুলে দিতে পেরেছি। কোন প্রয়োজনে পৌরসভা তে গিয়ে কেউ যেন অযথা হয়রানি ও অসম্মানের শিকার না হয় সেজন্য সকল কাজ সহজ করার চেষ্টা করেছি আমি মেয়র হিসাবে দল-মত-নির্বিশেষে নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে সর্বদা প্রস্তুত থেকেছি প্রায় অন্ধকার প্রতিটি এলাকাকে আলোকিত করে প্রতিটি অলিগলি থেকে বর্জ্য অপসারণ করে নাগরিক নিঃশ্বাস বিশ্বস্ত করতে আস্থা রেখেছে নিয়েছি। মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর প্রায় ১৫ কোটি টাকার ঋণ কাঁধে নিয়ে পথ চলা শুরু করেছিলাম তখন পৌর প্রধান সড়ক সহ কতগুলো রাস্তা চলাচলের যোগ্য ছিল তা আপনারা জানেন। মেহেরপুর পৌর নাগরিকদের জন্য একটি চমক ইশতেহার উপহার ও মিথ্যাচারের প্রতিবাদ। মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর প্রায় ১৫কোটি টাকা ঋণ নিয়ে পথ চলা শুরু করেছিলাম তখন পৌর প্রধান সড়ক সহ কতগুলো রাস্তা চলাচলের যোগ্য ছিল তা আপনাদের অজানা নয়। আপনাদের অবগতির জন্য সংক্ষিপ্ত কিছু উন্নয়ন কাজের বিবরণ তুলে ধরে সমাপ্তকৃত কাজ রাস্তা ৬৮টি ড্রেন৪৩টি ,স্যানিটারি ল্যান্ডফিল ও প্লাস ট্রিটমেন্ট প্লান্ট একটি ,ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট এ ট্রি, শামসুজ্জোহা শহীদ মিনার রাস্তা নির্মাণ, আধুনিক মানের পায়খানা বাস টার্মিনাল সেনেটারী কাজ, আল্লাহর ৯৯ নাম সম্বলিত মিনার নির্মাণ,পানি উৎপাদন নলকূপ ৫টি ডাস্টবিন নির্মাণ প্লাস্টিক ডাস্টবিন বিতরণ,মসজিদ ও মন্দির অবকাঠামো উন্নয়ন, গ্যারেজ ড্রেনের আউট ফল কমিউনিটি সেন্টার মেরামত, পানি সরবরাহের নতুন পাইপ স্থাপন , সড়ক বাড়ি শহরের রাস্তার ড্রেন ও বাজার সংস্কার অন্যান্য সকল কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ১,জুন২০১৭থেকে ডিসেম্বর ২০১৯আঠারো মাসের সময়কাল অতীতে নানা ঝামেলা উন্নয়নকাজের বাস্তবায়ন ও আমার ইস্তেহার বাস্তবায়নে পরিকল্পনা অবিরত পথ চলেছি এর মধ্যেও কোভিড-১৯ করোনা শংকট শুরু হলে সারাবিশ্বে থমকে যায় ২০২০-২০২১ সময় কালে সেই বাস্তবতার মাঝে আমি নতুন নতুন প্রজেক্ট পাশ করেছি। ২,অতীতের যে কোনো নির্বাচন হচ্ছে এ নির্বাচন অবশ্যই ব্যতিক্রম এই জন্য যে সঠিক সময়ে পৌরবাসী ভোটের অধিকার প্রয়োগের সম্মান পেয়েছেন। ৩, নাগরিক অধিকারের গল্পুকুর ব্যক্তিগত স্বার্থে অবৈধভাবে ইংলিশ দিয়ে পৌর অর্থের তসরুপ এবং নাগরিক অধিকারের সম্মানে আঘাত করা হয়েছিল,আমি সেই প্লিজ গ্রহীতাদের সাথে হৃদয় পূর্ণ আলোচনায় গড়পুকুর ফিরিয়ে এনেছি। নান্দনিক ঘর পুকুরের দারুন নকশা সম্পন্ন করে প্রায় ১৪কোটি টাকা বরাদ্দ করিয়েছি ঠিকাদার প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে আশপাশের জমিজমার সঠিক মাপযোগ মাছের আরত বিকল্প স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। বিকল্প স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে সেক্ষেত্রে পুকুরের কাজ চলমান রয়েছে। ৪,বিগত পাঁচ বছর ধরে পৌর এলাকার কন্যাদায়গ্রস্ত পিতা মাতার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়ে এ পর্যন্ত বহু কন্যার বিবাহের ব্যবস্থা করেছি নারীদের বিভিন্ন কাজে উদ্যোগী করতে আমি বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে চলেছি। ৫,চিকিৎসাসেবার প্রয়োজনে বহু মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি আমি,পৌরসভার দায়িত্ব নেওয়ার পর পৌরসভার থেকে চিকিৎসা ভাতা চালু করেছি যা আগে ছিল না আগামী দিনে তা আরো বৃদ্ধি করে মানুষের পাশে থাকব ৬,রিক্সা অটোরিকশা ভ্যানও মালিকদের সাথে একাধিকবার মতবিনিময় করে তাদের সুবিধার্থে পুরো লাইসেন্স ফি নির্ধারণ করে দিয়েছি, পাশাপাশি তাদের যেকোনো প্রয়োজনে আমি সাথে থাকব। ৭,বড় বাজার জামে মসজিদের উন্নয়ন কর্মকান্ড কমিটি কর্তৃক চলমান রয়েছে পৌরসভার সকল মসজিদ ধর্মীয় উপন্যাসের উন্নয়নের যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছি আগামীতে ও করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ৮,ট্রাক ও বাস টার্মিনাল নির্মাণ ৯,শিশু পার্ক নির্মাণ ১০, আধুনিক সুপার মার্কেট নির্মাণ ১১,জাতীয় মানের মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ ১২,জনগুরুত্বপূর্ণ বিবেচনার হেলিপ্যাড নির্মাণ ১৩,পন্ডের ঘাট থেকে কালাচাঁদপুর পর্যন্ত ভৈরব নদীর তীরে বাইপাস রাস্তা নির্মাণ সৌন্দর্য ও ওয়াকওয়ে নির্মাণ ১৪,কমিউনিটি সেন্টার সমুহপয়োপয়োজগি করে সকল ক্ষেত্রে আধুনিকরণ করা। ১৫,পৌর শিশু ও চক্ষু হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা। ১৬,শিক্ষা চিকিৎসা সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিগত পাঁচ বছরের মতোই সহায়তা প্রদান করা। ১৭,সম্মানিত প্রবীণ কাউন্সিলরদের ওয়ার্ড ভিত্তিক নাগরিক সেবা প্রদানে দাপ্তরিক সুবিধা নিশ্চিত করা। ১৯,প্রবীণ ও নবীন নাগরিক সমন্বয় পরামর্শক উপদেষ্টা কমিটি গঠন করে পুরসভাকে আরো বেশি নাগরিকদের জন্য কল্যাণমুখী ও জবাবদিহিমূলক জনপ্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা বেকারত্ব দূর করতে এবং বেশ কিছু অস্বচ্ছল পরিবারের সদস্যরা এরপর সৃজনী ব্যক্তিগত উদ্যোগে কাজ করেছি যা এখনো চলমান রয়েছে আগামীতে আরও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে বেকারত্ব দূরীকরণে ভূমিকা রাখবে ইনশাআল্লাহ পরে তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply