Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » মোদিকে নিয়ে বিবিসির তথ্যচিত্র ভারতের রাজ্যে রাজ্যে দেখাচ্ছে বিরোধীরা




মোদিকে নিয়ে বিবিসির তথ্যচিত্র ভারতের রাজ্যে রাজ্যে দেখাচ্ছে বিরোধীরা দুই দশক আগের গুজরাট দাঙ্গায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভূমিকা নিয়ে তৈরি বিবিসির তথ্যচিত্র ‘ইন্ডিয়া: দ্য মোদি কোয়েশ্চেন’ বিভিন্ন রাজ্যে প্রদর্শনের উদ্যোগ নিয়েছে বিরোধীরা।

সরকারের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও দক্ষিণের রাজ্য কেরালার বিভিন্ন এলাকায় ইতোমধ্যে তথ্যচিত্রটি প্রদর্শন করেছে সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই। তবে এই উদ্যোগ ঠেকাতে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি মুরলিধরন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে তৎপর হতে অনুরোধ করেছেন। রাজ্যের বিজেপি সভাপতি কে সুরেন্দ্রনও মুখ্যমন্ত্রীকে বলেছেন, কোনোভাবেই যেন তথ্যচিত্রটি দেখানোর অনুমতি না দেয়া হয়। বিবিসি২ নামে যুক্তরাজ্যের চ্যানেলটিতে ‘ইন্ডিয়া: দ্য মোদি কোশ্চেন’ তথ্যচিত্রটি গত সপ্তাহে (১৭ জানুয়ারি) সম্প্রচার করা হয়। সেই থেকে তথ্যচিত্রটি নিয়ে আলোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। সামাজিক মাধ্যম বিশেষ করে টুইটারে বিষয়টি নিয়ে সারাক্ষণ তর্ক-বিতর্ক হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবারই (১৯ জানুয়ারি) এই তথ্যচিত্রকে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ ও ‘ঔপনিবেশিক মানসিকতা’র প্রতিফলন বলে নিন্দা জানিয়েছে নয়াদিল্লি। সরকার ইতোমধ্যেই ওই তথ্যচিত্র দেশে প্রদর্শনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। বিবিসির তৈরি তথ্যচিত্রটি ভারতে যাতে না দেখা যায়, সে জন্য কেন্দ্রীয় সরকার তথ্যপ্রযুক্তি আইনের জরুরি ধারায় ইউটিউব, টুইটারকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও অনেকেই টুইটের সঙ্গে তথ্যচিত্রটির লিংক জুড়ে দিচ্ছেন। আরও পড়ুন: মোদিকে নিয়ে বিবিসির তথ্যচিত্র, যা বলল যুক্তরাষ্ট্র সোমবার (২৩ জানুয়ারি) হায়দরাবাদ কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে বড় পর্দা টাঙিয়ে তথ্যচিত্রটি দেখানো হয়। উদ্যোগ নিয়েছিল ‘স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন’ ও ‘ফ্র্যাটার্নিটি মুভমেন্ট’ নামে দুটি ছাত্র সংগঠন। এর বিরুদ্ধে ক্ষোভ জানিয়েছে বিজেপির ছাত্রসংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ। তারা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বলেছে আয়োজকদের বিরুদ্ধে যেন উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হয়। একই উদ্যোগ নিয়েছে দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রসংগঠন (জেএনইউএসইউ)। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) রাতে ছাত্রসংগঠনের কার্যালয়ে তা দেখানোর কথা রয়েছে। এদিকে তথ্যচিত্রের প্রদর্শনী বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আগের দিন সোমবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এক নোটিশ জারি করে বলেন, কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই ছাত্রসংগঠন ওই উদ্যোগ নিয়েছে। এতে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা সৃষ্টি হতে পারে। শান্তি ও সম্প্রীতি নষ্ট হতে পারে। অতএব তথ্যচিত্রটি যেন প্রদর্শিত না হয়। নির্দেশের অন্যথা হলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে। আরও পড়ুন: মোদিকে নিয়ে বিবিসির তথ্যচিত্র: টুইটার-ইউটিউব লিংক ব্লকের নির্দেশ কেরালার প্রতিটি জেলায় তথ্যচিত্রটি দেখানোর উদ্যোগ নিয়েছে সিপিএম দলের যুব শাখা ডিওয়াইএফ ও ছাত্রসংগঠন এসএফআই। একই রকম উদ্যোগ নিয়েছে কেরালা রাজ্য কংগ্রেসের বিভিন্ন শাখা ও যুব কংগ্রেস। রাজ্য কংগ্রেসের সংখ্যালঘু সেল জানিয়েছে, ২৬ জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন রাজ্যের অন্তত ২০০টি স্থানে ওই তথ্যচিত্র দেখানো হবে। কেরালা রাজ্যের বিজেপি নেতারা এর বিরোধিতা শুরু করেছেন। তারা বলেছেন, এই উদ্যোগ দেশদ্রোহিতার শামিল। ভারতকে দুর্বল করার বিদেশি প্রচেষ্টায় তা সাহায্য করবে। দেশের একতা ও সংহতি নষ্ট করবে। তবে এসএফআই জানিয়েছে, তারা সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করবে না। কেরালা যুব কংগ্রেস সভাপতি শফি পরমবিল বলেছেন, গণহত্যা ও বিশ্বাসঘাতকতা শক্তি দিয়ে চাপা রাখা যাবে না। বিবিসির তথ্যচিত্র দেখানো হবেই। বিবিসি তথ্যচিত্রটি ভারতে রিলিজ করেনি। বিবিসিটু চ্যানেলে ইউরোপ, আমেরিকাসহ বিশ্বের বহু দেশে রিলিজ করা হয়েছে। ইন্টারনেটের উন্নত প্রযুক্তির সাহায্যে এদেশে অনেকেই ইউটিউবে তথ্যচিত্রটি দেখেছেন। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও দ্য স্টেটসম্যান।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply