sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ইমেজ তুলে ধরার আহ্বান--তথ্যমন্ত্রী

বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ইমেজ তুলে ধরার আহ্বান
এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বাংলাদেশের বর্তমান ইমেজ বহির্বিশ্বে তুলে ধরতে বিদেশী সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। আজ রোববার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় তথ্যমন্ত্রী এ আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘তাদের সঙ্গে আজ অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তারা নানা প্রশ্ন করেছেন। সে প্রশ্নের উত্তর আমরা দিয়ে বলেছি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ অদম্য গতিতে বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে। আমরা তাদের অনুরোধ জানিয়েছি বর্তমানে বাংলাদেশের ইমেজকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরার জন্য।’ সভায় তথ্য সচিব আব্দুল মালেকসহ জার্মানি, ব্রাজিল, চেক রিপাবলিক, ইন্দোনেশিয়া, নাইজেরিয়া, নেপাল, চীন, ভারত, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইনস, পর্তুগাল, পোল্যান্ড, আলজেরিয়া, মালদ্বীপ, কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, তুরস্ক, যুক্তরাজ্য, প্রভৃতি দেশ থেকে আগত ৪০জন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন। হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশ আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে, মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্ন পূরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের অদম্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। ফলে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হচ্ছে। তিনি বলেন, সামাজিক উন্নয়ন সূচক মানবতা উন্নয়ন সূচকসহ সব সূচক পাকিস্তানসহ আশপাশের অনেক দেশকে অতিক্রম করেছে। গত সাড়ে ১০ বছরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সূচক সব দেশের ওপরে। বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশের মানুষের অবদান তুলে ধরার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এক কোটি ২০ লাখের বেশি মানুষ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে আছে। তারা শুধু বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন না, বিশ্ব অর্থনীতিতেও তাদের অবদান রয়েছে। তাদেরকে তা বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে বলেছি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে সম্ভাবনা রয়েছে তা দিয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশে রূপান্তরিত হওয়ার লক্ষ্যে পৌঁছাতে সক্ষম- সেটিও উপস্থাপনের জন্য তাদের বলা হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এমন এক দেশ যেখানে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার অবস্থিত, এটা তাদের অবহিত করেছি। একইসঙ্গে পৃথবীর অন্যতম ম্যানগ্রোভ বন যেখানে রয়েল বেঙ্গল টাইগার রয়েছে সে বিষয়েও তাদের জানানো হয়েছে। অবৈধ ডিটিএইচের (ডিরেক্ট টু হোম) বিরুদ্ধে আগামী পহেলা জানুয়ারি থেকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, যেহেতু আগামীকাল ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস এবং আমাদের অন্য কাজের সুবিধার্থে এটি ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। আগামী ১ জানুয়ারি থেকে অভিযানে নামবো। তিনি বলেন, প্রথমত ডিটিএইচ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য এবং একই সঙ্গে ডিটিএইচ সংযোগ যারা লাগিয়েছেন ও ব্যবহার করছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পহেলা জানুয়ারি থেকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা শুরু করা হবে। বিদেশী সাংবাদিকদের বাংলাদেশে আশা প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতিবছর বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সাংবাদিকদের বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানায়। এবছরও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সাংবাদিক ও কলামিস্টদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে ২০ দেশের ৩৬ জন সাংবাদিক আজ এখানে এসেছেন। তিনি বলেন, ৮ দিনের এই সফরের দু’দিনের জন্য তারা সুন্দরবন যাবেন, গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপায়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ দর্শনে যাবেন। একইসঙ্গে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর নামে গড়া বঙ্গবন্ধু মিউজিয়ামে যাবেন। বিজয় দিবসের দিন তারা প্যারেড পরিদর্শনও করবেন।

রাজধানীর ফার্মগেটে বাসের ধাক্কায় ছেলের মোটরসাইকেল থেকে পড়ে মায়ের মৃত্যু

রাজধানীর ফার্মগেটে বাসের ধাক্কায় ছেলের মোটরসাইকেল থেকে পড়ে গিয়ে সখিনা বেগম নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় বাসচালক শাহ আলমকে আটক করা হয়েছে। আজ রোববার বিকেলে ফার্মগেট ফুটওভার ব্রিজের কাছে এ ঘটনা ঘটে। সখিনা বেগম পরিবার নিয়ে রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকায় থাকতেন। নিহত সখিনা বেগমের ছেলে শামীম আহমেদ সহকারী উপ-কৃষি কর্মকর্তা। তিনি খামারবাড়ি চাকরি করেন। গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া। এ বিষয়ে পুলিশ জানায়, তেজগাঁওয়ে বোনের বাসায় দাওয়াত খেয়ে মাকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে বাসার উদ্দেশে রওনা দেন শামীম। পথে ফার্মগেট ফুটওভার ব্রিজের কাছে একটি বাস মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এতে মোটরসাইকেলের পেছন থেকে সখিনা বেগম পড়ে যান। পরে বাসটি তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তবে ছেলে শামীম অক্ষত রয়েছেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তেজগাঁও থানার পরিদর্শক (অপারেশন) হাসনাত খন্দকার বলেন, বাসচালক শাহ আলমকে আটক করা হয়েছে এবং বাসটিও জব্দ করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে

দেশ-জাতিকে উন্নয়ন-সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্য ও চেতনা বাস্তবায়নে নিজ নিজ অবস্থান থেকে আরো বেশি অবদান রেখে দেশ ও জাতিকে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রোববার (১৫ ডিসেম্বর) এক বাণীতে তিনি এ আহবান জানান। আগামীকাল বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে জাতি ৪৯তম বিজয় দিবস উদযাপন করবে। রাষ্ট্রপতি বলেন, ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। বিজয়ের এই মাহেন্দ্রক্ষণে তিনি দেশবাসী ও প্রবাসে বসবাসরত সকল বাংলাদেশিকে বিজয় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, স্বাধীনতা বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন। এ অর্জনের পেছনে রয়েছে, শোষণ-বঞ্চনার পাশপাশি রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের ইতিহাস। ৫২-এর ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যে স্বাধীনতার বীজ উপ্ত হয়েছিল দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম ও নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার মাধ্যমে তা পূর্ণতা পায়। তাঁরই নেতৃত্বে ও দিক-নির্দেশনায় দীর্ঘ ন’মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের এ দিনে চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়। রাষ্ট্রপতি বিজয় দিবসে শ্রদ্ধাবনতচিত্তে স্মরণ করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। এ ছাড়া গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহিদদের, যাঁদের সর্বোচ্চ ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা। বিজয়ের এই দিনে তিনি শ্রদ্ধা জানান জাতীয় চার নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠনক-সমর্থক, বিদেশি বন্ধু, যুদ্ধাহত ও শহিদ পরিবারের সদস্যসহ সর্বস্তরের জনগণকে, যাঁরা জাতির বিজয় অর্জনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অবদান রেখেছেন। জাতি তাঁদের অবদান শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে। আবদুল হামিদ বলেন, রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি ছিল স্বাধীনতার লক্ষ্য। জাতির পিতা সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অর্থনীতি ও অবকাঠামো পুনর্গঠনের মাধ্যমে অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রাম শুরু করেছিলেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাসহ তাঁর পরিবারের আপনজনদের নৃশংস হত্যাকান্ডের ফলে দেশে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়। উত্থান ঘটে স্বৈরশাসন ও অগণতান্ত্রিক সরকারের।

গাজীপুরের হারিনালে একটি ফ্যান কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১০ জন মারা গেছেন

। রোববার (১৫ ডি‌সেম্বর) সন্ধ্যায় এ অগ্নিকা‌ণ্ডের সূত্রপাত হয়। খবর পে‌য়ে ‌জয়‌দেবপুর ফায়ার সা‌র্ভি‌সের দু’টি ইউ‌নিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। গাজীপুর ফায়ার সা‌র্ভি‌সের উপ-সহকারী প‌রিচালক মো. মামুনুর র‌শিদ জানান, সন্ধ্যায় গাজীপুর সদর উপ‌জেলার কেশোর্তা এলাকায় লাক্সারি ফ্যান তৈরির কারখানার তৃতীয় তলায় আগুন লা‌গে। খবর পে‌য়ে জয়‌দেবপুর ফায়ার সা‌র্ভি‌সের দু’টি ইউনিটের কর্মীরা আগুন নেভা‌নোর চেষ্টা কর‌ছেন। তাৎক্ষ‌ণিক আগুন লাগার সূত্রপাত জানা যায়‌নি।

বিক্ষোভের আঁচ দিল্লিতেও, জনতা-পুলিশ খণ্ডযুদ্ধ, পর পর বাসে আগুন

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভ ছড়াল রাজধানীতেও। পুলিশ-জনতার খণ্ডযুদ্ধে রণক্ষেত্রের চেহারা নিলদিল্লির নিউ ফ্রেন্ডস কলোনি। রবিবারবিকেলে একের পর এক বাস ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দেন বিক্ষোভকারীরা। সংবাদসংস্থা সূত্রে খবর, ধস্তাধস্তির সময় দু’পক্ষেরই কয়েকজন জখম হয়েছেন। গোটা ঘটনায় অভিযোগের আঙুল জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের দিকে। যদিও তাঁরা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ঘটনার জেরেদিল্লির পাঁচটি মেট্রো স্টেশনও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দিল্লি পুলিশের দাবি, প্রাথমিক ভাবে মনে করা হয়েছিল ১০০-২০০ মানুষ জমায়েত করতে চলেছে। কিন্তু বিক্ষোভ শুরু হতেই দেখা যায় এক হাজারের বেশি লোক তাতে সামিল হয়েছেন। বিক্ষোভকারীরা একের পর এক বাসে আগুন লাগিয়ে দিতে থাকেন। অবাধে ভাঙচুর চলতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের চারটি ইঞ্জিন। অভিযোগ দু’টি ইঞ্জিনেও ভাঙচুর করা হয়। আহত হয়েছেন দুই দমকল কর্মী। জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের তরফ থেকে অবশ্য সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর, হিংসাত্মক আন্দোলনের অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। তাঁদের দাবি, স্থানীয় বহু মানুষ তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে যোগ দেন। বিবৃতিতে তাঁরা বলেছেন, ‘‘আমরা চেষ্টা করেছি আমাদের বিক্ষোভকে শান্তিপূর্ণ ভাবে চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার। পুলিশ এদিন মহিলাদের ওপর নির্মম ভাবে লাঠিচার্জ করে।’’ আক্রা স্টেশনে আগুন দিল বিক্ষোভকারীরা, শৌচাগারে লুকিয়ে প্রাণ বাঁচালেন রেলকর্মীরা আরও পড়ুন রবিবার অবরোধের জেরে বিপর্যস্ত হয় দিল্লির যান চলাচলও।ব্যস্ত মথুরা রোড আটকে চলতে থাকে বিক্ষোভ প্রদর্শন। ফলে বদরপুর, আশ্রমচক এলাকার যানবাহনও ঘুরিয়ে দেওয়া হয়। শুক্রবার থেকেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সরব জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়। শুক্রবারও সংসদ যাত্রা শুরু হলে তাদের থামায় দিল্লি পুলিশ। তবে এদিন বিক্ষোভকারীরা পথে নামলে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে যায়।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মেহেরপুরে নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মেহেরপুরে নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুরের দিকে মেহেরপুরের ভৈরব নদে যাদবপুর এবং গোভীপুরে অংশে নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। মেহেরপুরের মোট ৬টি দল নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ৫টি দল কে পিছনে ফেলে মেহেরপুর সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চ্যাম্পিয়ান এবং আমদহ ইউনিয়ন রানার্সআপ হয়। নৌকা বাইচ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আতাউল গনি, জেলা প্রশাসকের পত্নী নাজমুন নাহার চৌধুরী, পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলি, পুলিশ সুপারের পত্নী মিসেস তাহেরা রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম রসুল, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুদুল আলম সহ ভৈরব নদের দুপারে হাজার হাজার মানুষ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন।

পোশাক দেখে সহজেই বোঝা যাচ্ছে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে কারা বিক্ষোভ করছে: মোদী

বাংলায় শুক্রবার থেকে চলছে নাগরকিত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় বিক্ষোভ। কোথাও ট্রেন পুড়েছে, কোথাও ভেঙে স্টেশন, জ্বলেছে বাস। পোশাক দেখেই বোঝা যাচ্ছে কারা বিক্ষোভ করছে। ঝাড়খণ্ডের নির্বাচনী সভায় বললেন নরেন্দ্র মোদী। একইসঙ্গে অসমে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের জন্য ধন্যবাদও জানান প্রধানমন্ত্রী। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল লোকসভায় পেশ হওয়ার পর থেকে উত্তপ্ত উত্তর-পূর্ব। তা আইনে পরিণত হওয়ার পর শুক্রবার থেকে বাংলার একাধিক জায়গায় ছড়িয়েছে অশান্তি। ঝাড়খণ্ডের দুমকায় নির্বাচনী সভায় নরেন্দ্র মোদী বলেন, ''কারা বিক্ষোভ করছে, সেটা পোশাক দেখে সহজেই আপনারা বুঝতে পারবেন।'' অসমে নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে চলছে তুমুল বিক্ষোভ। গোটাটাই কংগ্রেসের ষড়যন্ত্র বলে অভিযোগ করেছেন মোদী। তাঁর কথায়,''কংগ্রেস ও তাদের সমর্থকরা আগুন ছড়াচ্ছে। তাদের কেউ পাত্তা না দিলে তাণ্ডব শুরু করে দেয়।'' প্ররোচনায় পা না দেওয়ার জন্য অসমবাসীকে ধন্যবাদও জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন,''যারা হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করছে, তাদের পাশে নেই অসমের ভাই-বোনেরা। তারা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ করছেন। এজন্য অভিনন্দন জানাতে চাই।''
রবিবারের মধ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য সমস্ত জেলার পুলিস সুপারদের নির্দেশ দিয়েছিলেন রাজ্য পুলিসের ডিজি। কিন্তু শুক্রবার, শনিবারের পরও ছুটির দিনেও রাজ্যের একাধিক জায়গায় বিক্ষোভ দেখানো হয়। মালদার ভালুকা স্টেশন। রেল লাইনে আগুন লাগিয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। মুর্শিদাবাদের ফরাক্কার তিলডাঙ্গা স্টেশনেও দেখানো হয় বিক্ষোভ। বিক্ষোভের জেরা বাতিল করা হয় গৌড় এক্সপ্রেস।