Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

সিইসি ও ইসি নিয়োগে আইন দ্রুত পাশ করতে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক সোমবার

সিইসি ও ইসি নিয়োগে আইন দ্রুত পাশ করতে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক সোমবার
সিইসি ও ইসি নিয়োগে প্রস্তাবিত আইন দ্রুত পাশ করতে সোমবার (২৪ জানুয়ারি) বৈঠকে বসছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। ইসি নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ আছে আর সপ্তাহ তিনেক। এর আগেই সংসদে পাশ হতে যাচ্ছে নতুন নির্বাচন কমিশন নিয়োগের প্রস্তাবিত বিল। দ্রুত প্রক্রিয়ায় চলতি অধিবেশনেই আইনটি পাশের ইঙ্গিত দিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সভাপতি মো. শহীদুজ্জামান সরকার। এ জন্য উত্থাপনের পরদিনই বৈঠক ডাকা হয়েছে। পৌনে ২ পৃষ্ঠার আইনটি দ্রুত পাশের জন্য এক বৈঠকই যথেষ্ট বলে জানিয়েছেন মো. শহীদুজ্জামান সরকার। তবে কারো সাথে আলোচনা না করে এভাবে তড়িঘড়ি করে আইন প্রণয়নের সমালোচনা করেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)। প্রস্তাবিত আইনটি পাশ হলে বড় কোনো পরিবর্তন আসবে না বলে মনে করেন সুজনের সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার। তিনি জানান, এই আইনে সরকার চাইলে আগের রকিবউদ্দিন কিংবা নুরুল হুদার মতো বিতর্কিত ইসি গঠন করতে পারবে। এদিকে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বলছেন, আইন চূড়ান্তকরণে বিরোধীদলসহ সব সদস্যের মতামত গুরুত্ব পাবে। আর ভোটের গ্রহণযোগ্যতা নির্ভর করবে সিইসির দক্ষতার ওপর। সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির মতে, আইন পাশ হলে ইসি গঠন আইনি ভিত্তি পাবে। স্বাধীনতার ৫০ বছরে যা বড় প্রাপ্তি।

দাবানলের কবলে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া

অসময়ে ভয়াবহ দাবানলের কবলে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া। এরইমধ্যে অঙ্গরাজ্যটির বিগ সার অঞ্চলের এক হাজার পাঁচশো একর জায়গা জুড়ে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। দাবানলকে ‘কলোরাডো ওয়াইল্ডফায়ার’ নাম দেওয়া হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে আগুনের ভিডিও। আরও পড়ুন: ইতালিজুড়ে ওমিক্রনের চরম বিস্তার ওই অঞ্চলের বাসিন্দাদের বাড়িঘর থেকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে প্রধান মহাসড়ক। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করে যাচ্ছে দমকলকর্মীরা। তবে, বাতাসের কারণে বেগ পেতে হচ্ছে তাদের। ক্যালিফোর্নিয়ায় সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাড়ছে দাবানল। গেল বছর অঙ্গরাজ্যটিতে দাবানলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ইতোমধ্যেই আবহাওয়াবিদরা পূর্বাভাসে জানিয়েছেন, ওই এলাকায় প্রবল বাতাস বইবে পরবর্তী সারাদিন ধরেই। ফলে আরও দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়তে পারে।

জাপানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ৬ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্পে ১৩ জন আহত হয়েছেন।

জাপানে ভূমিকম্প
তাদের মধ্যে ৮০ বছর বয়সী দুইজন গুরুতর আঘাত পেয়েছেন বলে জানা গেছে। স্থানীয় সময় শনিবার ভোরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জাপানের চারটি প্রধান দ্বীপের মধ্যে দক্ষিণে অবস্থিত কিউশ উপকূলের ৪৫ কিলোমিটার গভীরে ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। ভূমিকম্পের ফলে ওইটা এবং মিয়াজাকি অঞ্চলে তীব্র কম্পন অনুভূত হয়। আরো পড়ুন: ফ্রান্সে ৭৬টি মসজিদ বন্ধ করার হুমকি ম্যাক্রোঁ সরকারের এছাড়া, একটি দেওয়াল ধসে পড়ায় রাস্তার ওপরে থাকা পানির পাইপ ফেটে যায়। এতে প্লাবিত হয় আশপাশের এলাকা। তবে দেশটিতে এখন পর্যন্ত কোনো সুনামি সতর্কতা জারি করা হয় নি বলে জানিয়েছে ভূতত্ত্ববিদরা।

ভারতের উদ্বেগ বাড়াচ্ছে সংক্রমণের হার ও মৃত্যু

বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিদিন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়েই চলেছে ভারতে। আগে এত দ্রুত করোনার সংক্রমণ বাড়তে দেখা যায়নি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অতি সংক্রামক ওমিক্রনের কারণেই বিপর্যয়ে পড়েছে বিশ্ব। গত কিছুদিন শনাক্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও আজ সামান্য কমেছে ভারতের দৈনিক করোনা শনাক্তের সংখ্যা। তবে এখনো দৈনিক সংক্রমণ তিন লাখের উপরই থাকছে। বেড়েছে দৈনিক সংক্রমণের হার, বেড়েছে মৃত্যুও। রোববার (২৩ জানুয়ারি) সকালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দেওয়া করোনা বুলেটিন অনুযায়ী, ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা তিন লাখ ৩৩ হাজার ৫৩৩ জন, যা শনিবার ছিল তিন লাখ ৩৭ হাজার ৭০৪ জন। তবে বেড়েছে দৈনিক সংক্রমণের হার। শনিবার যা ছিল ১৭ দশমিক ২২ শতাংশ, রোববার তা কিছুটা বেড়ে হয়েছে ১৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। এর ফলে দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল তিন কোটি ৯১ লাখ। ভারতে এখনো করোনা আক্রান্তের হিসেবে প্রথম স্থানে মহারাষ্ট্র। সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৬ হাজার ৩৯৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৪৮ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় পুরো ভারতে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৫২৫ জনের। শনিবার তা ছিল ৪৮৮ জন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দেওয়া দৈনিক করোনা বুলেটিন অনুযায়ী, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭১ লাখের বেশি করোনা টিকাকরণ হয়েছে। এর ফলে ভারতে মোট ১৬১ কোটি ৯২ লাখ টিকা দেওয়া হলো। আরও পড়ুন: দেশে করোনা শনাক্ত কমেছে, বেড়েছে মৃত্যু এদিকে রোববার (২৩ জানুয়ারি) সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৩৫৬ জনের। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৯৯৩ জন। এর আগে শনিবার (২২ জানুয়ারি) মৃত্যু হয়েছিল ৯ হাজার ৩৪ জনের। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ৩৬ লাখ ৩২ হাজার ৬৬১ জন, যা করোনার ইতিহাসে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। ফলে করোনার ইতিহাসে সর্বোচ্চ আক্রান্তের পরের দিন মৃত্যু ও আক্রান্ত দুটোই কিছুটা কমেছে। করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশ সময় রোববার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৩৪ কোটি ৯৮ লাখ ২৩ হাজার ৬৭৮ জন এবং মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৬ লাখ ১০ হাজার ১৩৬ জনে। আর সুস্থ হয়েছেন ২৭ কোটি ৮১ লাখ ৪২ হাজার ২৮৫ জন।

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ঘোষণা

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ঘোষণা বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০২১ ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার (২৩ জানুয়ারি) বাংলা একাডেমির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, বাংলা একাডেমি নির্বাহী পরিষদের অনুমোদনক্রমে রোববার ‘বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ২০২১‘ ঘোষণা করা হয়। অমর একুশে বইমেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এ পুরস্কার প্রদান করবেন। বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ২০২১ প্রাপ্তরা হলেন- আসাদ মান্নান, বিমল গুহ (কবিতা), ঝর্না রহমান, বিশ্বজিৎ চৌধুরী (কথাসাহিত্য), হোসেনউদ্দীন হোসেন (প্রবন্ধ/গবেষণা), আমিনুর রহমান, রফিক-উম-মুনীর চৌধুরী (অনুবাদ), সাধনা আহমেদ (নাটক), রফিকুর রশীদ (শিশুসাহিত্য), পান্না কায়সার (মুক্তিযুদ্ধ-ভিত্তিক গবেষণা), হারুন-অর-রশিদ (বঙ্গবন্ধু-বিষয়ক গবেষণা), শুভাগত চৌধুরী (বিজ্ঞান/কল্পবিজ্ঞান/পরিবেশ বিজ্ঞান), সুফিয়া খাতুন, হায়দার আকবর খান রনো (আত্মজীবনী/স্মৃতিকথা/ভ্রমণকাহিনি) ও আমিনুর রহমান সুলতান (ফোকলোর)।

একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে যেতে লাগবে টিকা সনদ

দেশে করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় একুশে ফেব্রুয়ারিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আগতদের টিকা সনদ সঙ্গে রাখা ও মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অমর একুশে উদযাপন উপলক্ষে রোববার (২৩ জানুয়ারি) অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক ভার্চুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়াও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে প্রতিটি সংগঠন/প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ পাঁচজন প্রতিনিধি ও ব্যক্তিপর্যায়ে একসাথে সর্বোচ্চ দুইজন শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করার বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয়। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতি বিবেচনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ও সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত পরিসরে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হবে। উপাচার্য বলেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে গত বছরের মতো এ বছরও জনসমাগম এড়িয়ে চলার বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অক্ষুণ রাখার স্বার্থে অমর একুশে উদযাপন উপলক্ষে গৃহীত সব কর্মসূচি সুশৃঙ্খল, সুষ্ঠু ও সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য উপাচার্য সংশ্লিষ্ট সবার আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন। সভায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. রহমত উল্লাহকে সমন্বয়কারী, সমিতির সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. সাবিতা রিজওয়ানা রহমান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়াকে যুগ্ম-সমন্বয়কারী এবং প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীকে সদস্য-সচিব করে অমর একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়। সভায় কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি ছাড়াও মহান অমর একুশে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করা হয়। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সিনেট-সিন্ডিকেট সদস্য, রেজিস্ট্রার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন ইনস্টিটিউটের পরিচালক, প্রক্টর, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, অফিস প্রধান এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারী সমিতিগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন

ডেল্টার জায়গা দখল করছে ওমিক্রন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম। করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন একটু একটু করে ডেল্টার জায়গা দখল করছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো. নাজমুল ইসলাম। আজ রোববার দুপুরে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অধিদপ্তর আয়োজিত ভার্চুয়াল বুলেটিনে তিনি এ মন্তব্য করেন। ডা. মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘কমিউনিটি পর্যায়ে ওমিক্রনের সংক্রমণ ঘটছে। আমরা দেখছি, ওমিক্রন একটু একটু করে ডেল্টার জায়গাগুলোকে দখল করে ফেলছে। এই অতিমারিকে যদি আমরা পরাস্ত করতে চাই, তাহলে আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতেই হবে।’ মুখপাত্র নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘ওমিক্রনের যে উপসর্গগুলো আছে, শতকরা ৭৩ শতাংশ মানুষের নাক দিয়ে পানি ঝরছে। ৬৮ শতাংশ মানুষের মাথা ব্যথা করছে। ৬৪ শতাংশ রোগী অবসন্ন-ক্লান্তি অনুভব করছেন। ৭ শতাংশ রোগী হাঁচি দিচ্ছেন। গলা ব্যথা হচ্ছে ৭ শতাংশ রোগীর। ৪০ শতাংশ রোগীর কাশি হচ্ছে। এই বিষয়গুলো আমাদের মাথায় রাখতে হবে। এখন সিজনাল যে ফ্লু হচ্ছে তার সঙ্গে কিন্তু মিল রয়েছে।’ ডা. মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘কাজেই যে কোনো পরিস্থিতিতে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। রোগীর সংখ্যা যদি প্রতিদিনই বাড়তে থাকে এবং স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে আমরা যদি নিজের মতো করে চলতে থাকি তাহলে রোগীর সংখ্যা আরও বাড়বে, সেটি সামগ্রিকভাবে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর বাড়তি চাপ প্রয়োগ করবে।’ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র আরও বলেন, ‘ডিসেম্বরের শেষ থেকে বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ২২ জানুয়ারি এসে শনাক্তের হার ২৮ শতাংশের বেশি রয়েছে। সপ্তাহের শুরু ১৬ জানুয়ারি যেটা ছিল ১৭ দশমিক ৮২ শতাংশ। গত বছরের শেষ থেকে এ বছরের শুরু পর্যন্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য আগ্রহী রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১০০টি নমুনা সংগ্রহের বিপরীতে শনাক্তের হার ২৮ শতাংশে বেশি। আজ পর্যন্ত যে গড় আছে তা ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ।’