Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা হতে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, শিক্ষার্থীরা যেন নিজেদেরকে উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করতে পারে সে লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে অনার্স কোর্সের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে যাতে শিক্ষার্থীরা নিজেদের উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করতে পারে। পাশাপাশি, তারা দেশে-বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ গ্রহণ করতে পারে। শিক্ষামন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজসমূহে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের গাজীপুর ক্যাম্পাসে উপাচার্যের কনফারেন্স রুমে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা এই কোভিডের সময়ে অনলাইনে এবং সামনা সামনি ক্লাস শুরু করতে যাচ্ছেন। এখন অনেক চ্যালেঞ্জ। আপনাদের অনেক নতুন স্বপ্ন রয়েছে। সেই স্বপ্নগুলোকে বাস্তবে রূপ দিতে হবে। সে জন্যে সরকার এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আপনাদের পাশে রয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক দিকনির্দেশনা এবং পরামর্শে আপনাদের জন্য অনার্স ডিগ্রির পাশাপাশি নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে, যাতে আপনারা নানারকম দক্ষতা নিয়ে গড়ে উঠতে পারেন। দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত হতে পারেন। নিজেরা উদ্যোক্তা হতে পারেন কিংবা কর্মসংস্থানের জন্য দেশে বিদেশে নানা সুযোগ তৈরি হয় সেটি গ্রহণ করতে পারেন। সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান শিক্ষার্থীদের রাষ্ট্র সৃষ্টির বিপ্লব সম্পর্কে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে ইতিহাস চেতনা থাকতে হবে। একইসঙ্গে আশা করবো এই প্রজন্ম সমসাময়িক বিশ্ব সম্পর্কে সব রকমের ধারণা নিয়ে একটি সঠিক ধারায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আত্মনিয়োগ করবে। তিনি শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমিক নাগরিক হয়ে গড়ে ওঠার আহ্বান জানিয়ে আরো বলেন, আমাদের বিজ্ঞান ভাবনা, অসাম্প্রদায়িক সমাজ, আমাদের ধর্মনিরপেক্ষ সমাজ, গণতান্ত্রিক সমাজ- এই যে অভিষ্ঠ্য লক্ষ্য, সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য নবীন প্রজন্ম নিজেদের তৈরি করবে

৮৪ রানের জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ

ব্যাটিংটা ভালো হয়েছে আজ। পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে ১৮১ তুলে টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহটা তুলে নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহরা। ম্যাচটা কত সহজে জেতা যাবে—চোখ ছিল সেটিতেই। বোলাররা বাকি কাজটাও করে দিয়েছেন। ৮৪ রানের বিশাল জয়ে সুপার ১২ রাউন্ড নিশ্চিত করে ফেলেছে বাংলাদেশ। পাপুয়া নিউগিনি গুটিয়ে গেছে ৯৭ রানেই। এটি টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জয়। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাচ্ছে কিনা, সেটি অবশ্য নির্ভর করছে ওমান–স্কটল্যান্ড ম্যাচের ওপর।

সাইফুদ্দিন-তাসকিনের পর সাকিবের জোড়া আঘাত

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাঁচা-মরার লড়াইয়ে পাপুয়া নিউগিনির মুখোমুখি বাংলাদেশ। সুপার টুয়েলভে যেতে হলে ‘বি’ গ্রুপের এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই টাইগারদের। কম করে হলেও অন্তত ৩ রানের জয় পেলেই নিশ্চিত হবে টাইগারদের সুপার টুয়েলভ। সেই লক্ষ্যে ব্যাট করে ১৮১ রানের বিশাল স্কোর গড়েছে বাংলাদেশ। জবাব দিতে নেমে দেখে শুনে শুরুটা করলেও সাইফুদ্দিন-তাসকিন-সাকিবের বোলিং তোপে পাঁচ ওভার শেষ না হতেই চার উইকেট হারিয়ে বসেছে বিশ্বকাপের নবাগত সদস্য পাপুয়া নিউগিনি। পাঁচ ওভারে তাদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৫ রান। এদিন ওপেনিংয়ে নামা লেগা সাইকাকে (৫) প্রথমে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরান মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। আর চতুর্থ ওভারে আক্রমণে এসে দ্বিতীয় বলেই পঞ্চাশতম ম্যাচ খেলতে নামা পিএনজি অধিনায়ক আসাদ ভালাকে (৬) সোহানের গ্লাভসবন্দী করে ফেরান তাসকিন আহমেদ। নিজের প্রথম ওভারেই মেডেন উইকেট নেন এই টাইগার পেসার। এরপর দৃশ্যপটে আবির্ভূত হন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। নিজের প্রথম ওভারেই তুলে নেন দুটি উইকেট। যাতে এক নিমিশে ১৫ রানে ৪ উইকেট হয়ে যায় পিএনজির স্কোর। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) মাস্কাটের আল আমেরাতে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ব্যাট করতে নেমেও নেতৃত্ব দেন সামনে থেকেই। সমান তিনটি করে চার-চক্কা হাঁকিয়ে মাত্র ২৭ বলে ফিফটি হাঁকানো মাহমুদউল্লাহ আউটও হন পরের বলেই। এছাড়া দলের সেরা তারকা সাকিব আল হাসানের ব্যাট থেকে আসে মূল্যবান ৪৬টি রান। ৩৯ বল মোকাবেলায় সাকিবের অনন্য মাইলফলক স্পর্শ করা এই ইনিংসে ছিল কেবল ৩টি ছক্কার মার। যে ইনিংসে এদিন তিনি লঙ্কান গ্রেট কুমার সাঙ্গাকারা ও ভারতের ভবিষ্যৎ অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে টপকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেরা রান সংগ্রাহকের তালিকায় চার নম্বরে অবস্থান করে নিয়েছেন। এছাড়া তৃতীয় সর্বোচ্চ ২৯ রান আসে ক্রমাগত ব্যর্থ হওয়া ওপেনার লিটন দাসের ব্যাট থেকে। আর শেষ দিকে আফিফের ১৪ বলে ২১ এবং মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের মাত্র ৬ বলে ১৯ রানের ক্যামিও ইনিংসে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৮১ রানের বিশাল স্কোর গড়ে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ পাপুয়া নিউগিনির পক্ষে ২টি করে উইকেট লাভ করেন কাবুয়া মোরেয়া, ড্যামিয়েন রাভু ও অধিনায়ক আসাদ ভালা। বাকি উইকেটটি ঝুলিতে ভরেন মাত্র একটি ওভার করে ছয় রান দেয়া সাইমন আতাই।

আরেক মাইলফলকে সাকিবের ছক্কার সংখ্যা এখন ১০০

আরেক মাইলফলকে সাকিব সাকিব আল হাসান মানেই বিস্ময়। সেটা হোক ব্যাট হাতে কিংবা বল হাতে। ক'দিন আগেই লাসিথ মালিঙ্গাকে পেছনে ফেলে তিনি ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকারের রেকর্ড নিজের দখলে নিয়েছেন। টি-টোয়েন্টিতে নামের পাশে এখন ১১১ উইকেট তার। মালিঙ্গা শ্রীলঙ্কার হয়ে শিকার করেছেন ১০৭ উইকেট। এবার তিন ফরম্যাটে শত ছক্কার মাইলফলক ছুঁলেন সাকিব। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে ৩টি ছক্কা হাঁকিয়ে মর্যাদাবান এ অর্জনে নাম লেখান তিনি। তিন ফরম্যাটে
। এর মধ্যে টি-টোয়েন্টিতে ৩৮টি, ওয়ানডেতে ৪৩ ও টেস্টে ১৯ ছক্কা হাঁকিয়েছেন তিনি। পিএনজির বিপক্ষে সাকিব ৩৭ বলে করেন ৪৬ রান। এদিন বাংলাদেশের হয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়েছেন টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৭ বলে অর্ধশতক তুলে নেন তিনি। এরপরই আউট হয়েছেন ডামিয়েন রাভুর বলে। ৫০ রান করতে তিনি ৩টি চার ও সমানসংখ্যক ছয়ও হাঁকিয়েছেন। পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে শুরুতে ব্যাট করে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৮১ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে বাংলাদেশ। জয়ের জন্য ১৮২ রান করতে হবে পিএনজিকে। এর আগে হাফ সেঞ্চুরি থেকে ৪ রান দূরে থাকতে বিদায় নেন বাংলাদেশ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে সীমানার কাছে চার্লজ অমিনির হাতে ধরা পড়েন তিনি। ৩৭ বলে ৩ ছয়ে ৪৬ রান আসে তার ব্যাট থেকে। এর আগে আবারো ব্যর্থ হন টাইগার ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। মুশফিকও আউট হয়েছেন বাউন্ডারি খেলতে গিয়ে। সিমন আতাইয়ের বল সীমানার বাইরে বল আছড়ে মারতে গিয়ে হিরি হিরির হাতে ধরা পড়েন তিনি। মুশফিকের আগে বিদায় নিয়েছেন নাঈম শেখ ও লিটন দাসও। এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমেই উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। গেল ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি করলেও এই ম্যাচে হতাশ করেছেন ওপেনার নাঈম শেখ। শুরুতেই কোনো রান না করেই ফিরে গেছেন তিনি। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে ভাগি মোরেয়ার বলে সেসে বাউয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি।

পাপুয়া নিউগিনিকে বিশাল চ্যালেঞ্জ দিল বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ও পাপুয়া নিউগিনির মধ্যকার ম্যাচ। ছবি : সংগৃহীত প্রতিপক্ষ বড় নয়। তবুও ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই ম্যাচে সাফল্য নির্ধারণ করে দেবে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ভাগ্য। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে পাপুয়া নিউগিনিকে ১৮২ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। চলমান বিশ্বকাপে এটাই এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। আজ বৃহস্পতিবার বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৮১ রান করে বাংলাদেশ। অবশ্য ইনিংসের শুরুতেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ। প্রথম বলেই ক্যাচ তুলে দেন মোহাম্মদ নাঈম। তবে নাঈমের ব্যাটের কানা ছুঁয়ে উপরে ওঠা বল জমাতে পারেননি পাপুয়া নিউগিনির উইকেটরক্ষক। দ্বিতীয় বলেও ছক্কার আশায় ক্যাচ তুলে দেন নাঈম। কাবুয়া মোরেয়ার লেগ স্টাম্পের বাইরের বল ডিপ স্কয়ার লেগে পাঠান নাঈম। বেশ উপরে ওঠা বল দৌড়ে গিয়ে মুঠোয় জমান সেসে বাউ। রানের খাতাও খুলতে পারেননি এই তরুণ ওপেনার। শুরুতে উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। কিন্তু সেই চাপ অল্প সময়ের মধ্যেই কাটিয়ে ওঠে। শুরুর থাক্কা সামলে প্রতিরোধ গড়েন সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস। দুজনে মিলে গড়েন ৫০ রানের জুটি। সাকিবের সঙ্গে ভালো ইনিংস খেলার আশা জাগান রানের খরায় থাকা লিটন। তবে এবারও পারেননি বড় ইনিংস খেলতে। স্লগ সুইপে ছক্কার হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ আউট হয়ে ফিরেন ডানহাতি এই ওপেনার। অষ্টম ওভারে আসাদ ভালার অফ স্টাম্পের একটু বাইরের বল স্লগ সুইপ করেন লিটন। টাইমিং ঠিক রাখতে পারেননি। দৌড়ে গিয়ে ক্যাচ নিয়ে নেন সেসে বাউ। ২৩ বলে একটি করে ছক্কা ও চারে ২৯ রান করে ফেরেন লিটন। চারে ব্যাট করতে নেমে মুশফিকও পারলেন না থিতু হতে। ৮ বল খেলে ৫ রানে বিদায় নেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটার। তবে সতীর্থরা ফিরলেও টিকে ছিলেন সাকিব। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে প্রতিরোধ গড়েন তিনি। শেষ রানে সাকিবকে ফিরিয়ে প্রতিরোধ ভাঙেন আসাদ ভালা। বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে লং অনে আমিনির হাতে ক্যাচ তুলে দেন সাকিব। তিন ছক্কায় ৩৭ বলে ৪৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন সাকিব। এরপর লড়াই করেন মাহমুদউল্লাহ। মাত্র ২৭ বলে হাফসেঞ্চুরি করেন। এটি তাঁর টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ হাফসেঞ্চুরি। ঝড়ো হাফসেঞ্চুরির পর অবশ্য আর টিকতে পারেননি তিনি। পরের বলেই আউট হন তিনি। ২৮ বলে ৫০ রান করে ফেরেন ড্রেসিং রুমে। মাহমুদউল্লাহ ফিরলে শেষ দিকের ব্যাটারদের ওপর ভর করে ওমানকে বড় কঠিন লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় লাল-সবুজের দল। এর আগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হেরে বিশ্বকাপ অভিযান কঠিন করে তোলে বাংলাদেশ। স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে যায় মাহমুদউল্লাহরা। তবে ওমানকে হারিয়ে এখনো টুর্নামেন্টে টিকে আছে তারা। আজ গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ, তাই মাহমুদউল্লাহদের বাঁচা-মরার লড়াই। পরের পর্বে যেতে হলে ম্যাচটিতে জয় ছাড়া বিকল্প নেই। তবে শুধু জয় নয়, আজ পাপুয়া নিউগিনিকে বড় ব্যবধানে হারাতে হবে বাংলাদেশকে। একই সঙ্গে তাকিয়ে থাকতে হবে স্কটল্যান্ড ও ওমানের মধ্যকার ম্যাচের দিকেও। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে স্কটল্যান্ড যদি ওমানকে হারিয়ে দেয় এবং বাংলাদেশ যদি পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে জয় পায়, তাহলে সরাসরিই সুপার টুয়েলভে উঠবে মাহমুদউল্লাহর দল।

ব্যাটিং তাণ্ডবের পর ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ

ব্যাটিং তাণ্ডবের পর ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়েছেন টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ২৭ বলে অর্ধশতক তুকে নিয়েছেন তিনি। এরপরই আউট হয়েছেন ডামিয়েন রাভুর বলে। ব্যাটিং তাণ্ডবের পর ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ
৫০ রান করতে তিনি ৩টি চার ও সমানসংখ্যক ছয়ও হাঁকিয়েছেন। রিয়াদের পর ফিরে যান নুরুল হাসান সোহানও। নামের পাশে কোনো রানই যোগ করতে পারেননি তিনি। এর আগে হাফ সেঞ্চুরি থেকে ৪ রান দূরে থাকতে বিদায় নেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে সীমানার কাছে চার্লজ অমিনির হাতে ধরা পড়েন তিনি। ৩৭ বলে ৩ ছয়ে ৪৬ রান আসে তার ব্যাট থেকে। এর আগে আবারো ব্যর্থ হন টাইগার ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। মুশফিকও আউট হয়েছেন বাউন্ডারি খেলতে গিয়ে। সিমন আতাইয়ের বল সীমানার বাইরে বল আছড়ে মারতে গিয়ে হিরি হিরির হাতে ধরা পড়েন তিনি। মুশফিকের আগে বিদায় নিয়েছেন নাঈম শেখ ও লিটন দাসও। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৫৩ রান। এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমেই উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। গেল ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি করলেও এই ম্যাচে হতাশ করেছেন ওপেনার নাঈম শেখ। শুরুতেই কোন রান না করেই ফিরে গেছেন তিনি। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে ভাগি মোরেয়ার বলে সেসে বাউয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আরও পড়ুন: মেসির পর গোল করলেন রোনালদোও জটিল হিসাব আর সমীকরণে ঝুলে আছে গ্রুপ ‌'বি‌' এর ভাগ্য। এখনও নিশ্চিত হয়নি পরের রাউন্ডে যাচ্ছে কোন দুটি দল। ২ ম্যাচ জিতে স্কটল্যান্ড ৪ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে। এক জয়ে ২ পয়েন্ট নিয়ে রানরেটে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে ওমান। আর বাংলাদেশ সমান ১ জয়ে আছে তিন নম্বরে। দুই পরাজয়ে পাপুয়া নিউগিনির অবস্থান সবার তলানিতে।

মিটারগেজকে ব্রডগেজ করা হচ্ছে: রেলমন্ত্রী

রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, দেশের রেল ব্যবস্থায় এককেন্দ্রিক পরিবর্তন করা হচ্ছে। মিটারগেজ রেললাইনকে ব্রডগেজে রূপান্তর করা হচ্ছে। আশপাশের দেশগুলো তাদের রেল ব্যবস্থাকে ব্রডগেজে রূপান্তর করেছে। আঞ্চলিক যোগাযোগের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অভ্যন্তরীণ রেলপথকে একই রকম করে ব্রডগেজে রূপান্তরের জন্য পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহ রেলওয়ে জংশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী পরিত্যক্ত ও অবহেলিত রেলকে দ্রুত সাজানোর জন্য বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। রেলকে আধুনিক, যুগোপযোগী করতে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। জয়দেবপুর থেকে জামালপুর হয়ে দেওয়ানগঞ্জ পর্যন্ত ব্রডগেজ লাইন হবে। ময়মনসিংহ রেল স্টেশনকে ভবিষ্যতে একটি উন্নতমানের আইকনিক স্টেশন হিসেবে পুননির্মাণ করা হবে। রেলওয়ের বিশ্রামাগারগুলো উন্নত করা হবে। বেহাত হওয়া রেলওয়ের সম্পত্তি উদ্ধার করা হবে। অবৈধভাবে কেউ থাকতে পারবে না। স্থানীয় জনতার দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী আরও বলেন, অনতিবিলম্বে ময়মনসিংহ থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত একটি ডেডিকেটেড ট্রেন চালুর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। একইসঙ্গে চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহ রুটে আরও একটি আন্তঃনগর বিজয় এক্সপ্রেস চালুর আশ্বাস দেন মন্ত্রী। ময়মনসিংহ অঞ্চলে অন্যান্য স্টেশনের আধুনিকায়ন, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশন চালুসহ অন্যান্য বন্ধ স্টেশন চালু করা হবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক, পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামান প্রমুখ। যাত্রীদের আরামদায়ক রেলভ্রমণ নিশ্চিতের লক্ষ্যে চলমান উন্নয়মূলক কাজ সরেজমিন দেখার জন্য ঢাকা, ময়মনসিংহ ও জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পর্যন্ত ৬টি স্টেশন ভ্রমণ করেন মন্ত্রী।