sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

গরুর প্রজনন দেখতে বিদেশ যাওয়া হচ্ছেনা সরকারি কর্মকর্তাদের

গরুর প্রজনন দেখতে বিদেশ যাওয়া হচ্ছেনা সরকারি কর্মকর্তাদের

  • রাকিব হাসনাত
  • বিবিসি বাংলা, ঢাকা
মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় বলছে তারা গরুর প্রজনন নিয়ে বিদেশ ভ্রমণের প্রস্তাব বাতিল করে দেবে
ছবির ক্যাপশান,

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় বলছে তারা গরুর প্রজনন নিয়ে বিদেশ ভ্রমণের প্রস্তাব বাতিল করে দেবে

মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম জানিয়েছেন, গরুর কৃত্রিম প্রজনন সম্পর্কে জ্ঞান আহরণে বিদেশ সফরের যে প্রস্তাব গেছে সেটি একনেকের বৈঠকের আগেই তারা বাতিল করে দেবেন।

"প্রস্তাবটি আমার দায়িত্ব নেবার আগেই গিয়েছিলো। আমি ইতোমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেছি সংশ্লিষ্টদের সাথে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে এ ধরণের বিদেশ ভ্রমণের প্রস্তাব আমরাই বাতিল করে দেবো," বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন তিনি।

কিন্তু কিসের ভিত্তিতে গরুর প্রজনন দেখতে জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও কানাডা সফরের জন্য এতো কর্মকর্তার নাম প্রস্তাব হলো, বা এ ধরণের প্রস্তাবনা তৈরির ক্ষেত্রে আসলে কোন বিষয়গুলো বিবেচনা করা হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, যারা প্রজেক্ট তৈরি করেন তারা অনেক সময় প্রজেক্টের সাথে জড়িতদের প্রশিক্ষণের জন্য এ ধরণের প্রস্তাব করেন।

"যদিও অনেক সময়ই তা অনুমোদন পায় না। আর করোনার এই সময়ে এগুলোকে কোনো ভাবেই আমরা অনুমোদন দিতে পারি না," বলছিলেন মি. করিম।

যদিও বাংলাদেশে সরকারি কর্মকর্তাদের এ ধরণের বিদেশ সফরের প্রস্তাবনা বা বিদেশ সফরের ঘটনা প্রায়শই আলোচনায় আসে ও তীব্র সমালোচনার জন্ম দিয়ে থাকে।

গরুর প্রজনন জ্ঞান অর্জনে এসব কর্মকর্তারা শেষ পর্যন্ত ওই চারটি দেশে যেতে পারলে তাদের জন্য সরকারের প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয় হতো।

এর আগে গত বছর ডিসেম্বরে প্রায় এক কোটি টাকা ব্যয়ে ১৬ জন কর্মকর্তার পুকুর খনন দেখার জন্য বিদেশে যাওয়ার প্রস্তাব একনেকে পাস হলে তা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছিলো।

তখন সরকারি অর্থে এ ধরণের বিদেশ ভ্রমণের প্রস্তাব নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান।

ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, "পুকুর খনন শিখতে আমরা উগান্ডায় যাচ্ছি কেন?"

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

বোয়িংয়ের একটি বিমান ডেলিভারি নিতে বাংলাদেশের ৪৫ জনের প্রতিনিধিদল যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিলেন
ছবির ক্যাপশান,

বোয়িংয়ের একটি বিমান ডেলিভারি নিতে বাংলাদেশের ৪৫ জনের প্রতিনিধিদল যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিলেন

পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান বিবিসি বাংলাকে বলেন, এবারের গরুর প্রজনন বিষয় বিদেশ ভ্রমণের প্রস্তাব তার কাছে যায়নি তবে মহিষ নিয়ে একটি প্রস্তাব তিনি দেখেছেন।

"আমরা বৃহস্পতিবার সচিবদের নিয়ে বসবো। করোনার এই সময়ে কৃচ্ছতা সাধনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। অপ্রয়োজনীয় সব ব্যয় বন্ধ করা হবে"।

তিনি বলেন, "নানা ছুতোয় বিদেশ যাওয়ার প্রবণতা আছে এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই তবে আমরা বৃহস্পতিবার এগুলো নিয়ে আলোচনা করবো"।

"অনেক সময় প্রশিক্ষণের জন্য যাওয়ার দরকার পড়ে কিন্তু কোনটা কোন ধরণের কাজ এবং সেটার প্রয়োজন কতটা সেটাও তো দেখতে হবে। সব বিষয় আমাদের নজরে আছে এটা আমি নিশ্চিত করতে পারি"।

কর্মকর্তারা বলছেন, এসব বিদেশ সফর আগেও হতো কিন্তু এখন ফাঁস হয়ে যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

গত বছর ডিসেম্বরে বোয়িংয়ের একটি বিমান ডেলিভারি আনতে বাংলাদেশের ৪৫ জন কর্মকর্তা যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে তুমুল হাস্যরসের জন্ম দিলেও শেষ পর্যন্ত ওই সফর আর বাতিল হয়নি।

এর আগেও একটি ক্যামেরা কিনতে তিনজনের বিদেশ যাওয়া, নলকূপ খনন শিখতে একাধিক কর্মকর্তার বিদেশে সফর নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সমালোচনা তৈরি হয়েছে।

কিভাবে এসব বিদেশ সফর ঠিক হয়

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলছেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতায় নানা ধরণের প্রকল্প হয়।

"এসব প্রকল্পে বিশেষ করে বিদেশি অর্থায়ন থাকলে কর্মকর্তারা তাতে প্রশিক্ষণ খাতে বরাদ্দ রাখার চেষ্টা করেন। অনেক সময় অনেক প্রকল্পে বেসরকারি কোম্পানির অর্থ সহায়তা নেয়ার উদাহরণও আছে"।

জার্মানি থেকে একটি ক্যামেরা কিনতে তিনজন কর্মকর্তার বিদেশে যাওয়ার ঘটনায় জানা গেছে যে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিই তাদের অর্থে ওই কর্মকর্তাদের ওই সফরের আয়োজন করেছিলো।

পরিকল্পনা মন্ত্রী মি. মান্নান বলছেন টেকনিক্যাল বা বিশেষ দক্ষতার জন্য অনেক সময় প্রশিক্ষণকে উৎসাহিত করা হয় বা এর দরকারও আছে।

কিন্তু সবসময় সে ধরণের বিবেচনা থেকে এসব প্রস্তাব যে আসেনা সেটা তো বোঝাই যাচ্ছে, বলছিলেন তিনি।

মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলছেন, প্রকল্প তৈরির সময় এসব প্রস্তাবগুলো আসলেও তারা এসব প্রস্তাবকে অনুমোদন করবেন না।

শুধুই সরকারি কর্মকর্তারাই যান ?

গত বছর ময়মনসিংহ বিশ্ববিদ্যালয়ের আটজন শিক্ষক ও কর্মকর্তার লিফট কেনার জন্য স্পেন ও সুইজারল্যান্ড সফরের ঘটনায় তুমুল শোরগোল হয়েছে।

পরে সমালোচনার মুখে উপাচার্য নিজে তার নাম প্রত্যাহার করে নেন।

আবার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিদেশ ভ্রমণের আরেকটি ঘটনা বেশি আলোচনার জন্ম দেয় গত বছরের জুলাইয়ে।

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি দল যুক্তরাষ্ট্রের বিমান ও মহাকাশ বিষয়ক সংস্থা নাসা'র আয়োজিত এক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়।

তাদের পুরস্কৃত করতে নাসার পক্ষ থেকে ফ্লোরিডায় আমন্ত্রণ জানানো হয় দলটিকে।

কিন্তু ভিসা জটিলতায় বিজয়ী দলের সদস্যরা যেতে না পারলেও তাদের সহযোগী হিসেবে যাদের যাওয়ার কথা ছিল, সেই সরকারি কর্মকর্তারা শেষপর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ করে আসেন সরকারি খরচে।
 

পয়লা অক্টোবরের মধ্যে উত্তর সিটিতে ঝুলন্ত ক্যাবল থাকবে না: মেয়র আতিক

 

পয়লা অক্টোবরের মধ্যে উত্তর সিটিতে ঝুলন্ত ক্যাবল থাকবে না: মেয়র আতিক ১ অক্টোবরের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে কোনো ঝুলন্ত ক্যাবল থাকবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। মঙ্গলবার রাজধানীর কাওলায় উত্তরা থেকে তেজগাঁও পর্যন্ত ইউলুপ নির্মাণ কাজের অগ্রগতি দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, তারের জঞ্জাল সরাতে ব্যবসায়ীরা সময় চেয়েছে, তাদের ১ অক্টোবর পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। এরপরও ঝুলন্ত তার না সরালে অভিযান পরিচালনা করা হবে। মঙ্গলবার দুপুরে কাওলা থেকে লা মেরিডিয়ান হোটেল ও এয়ারপোর্টের মাঝামাঝি ইউলুপগুলোর কাজের অগ্রগতি পরিদর্শনে যান মেয়র। তিনি আশা করেন, সড়কে যান চলাচলের সমস্যা সমাধানে নির্মাণাধীন ডিএনসিসির এই ইউগুলোর কাজ দ্রুতই শেষ হবে।

সমুদ্র বন্দরে ৩নং সতর্ক সংকেত

 

সমুদ্র বন্দরে ৩নং সতর্ক সংকেত উত্তর বঙ্গোপসাগরে সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্যের কারণে ঝোড়ো হাওয়ার আশঙ্কায় দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৩ (তিন) নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) বিকেলে আবহাওয়ার সামুদ্রিক সতর্কবার্তায় এই তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে বলা হয়, উত্তর বঙ্গোপসাগরে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় এবং বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য থাকার কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরসমূহের ওপর দিয়ে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ০৩ (তিন) নম্বর পুনঃ ০৩ (তিন) নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। বর্ধিত পাঁচ (৫) দিনের আবহাওয়ার অবস্থা সম্পর্কে বলা হয়েছে, এ সময় বৃষ্টিপাত প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। এছাড়া নদী বন্দরের সংকেতে বলা হয়েছে, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা অঞ্চলের নদী বন্দরসমূহের জন্য এক নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে

এএসআইকে থাপ্পর মারায় বামনার সেই ওসি প্রত্যাহার

 

এএসআইকে থাপ্পর মারায় বামনার সেই ওসি প্রত্যাহার বরগুনার বামনা উপজেলায় গত শনিবার প্রকাশ্যে এক এএসআইকে থাপ্পর মারেন থানার ওসি মো. ইলিয়াস আলী তালুকদার। সঠিকভাবে দায়িত্ব না পালনের অজুহাতে নিজের থানার সহকারী উপপরিদর্শকের (এএসআই) গালে থাপ্পর মারার ঘটনায় বামনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইলিয়াছ আলী তালুকদারকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির সুপারিশে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ওসিকে বামনা থানা থেকে প্রত্যাহার করা হয় বলে জানিয়েছেন বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও তদন্ত কমিটির প্রধান মো. মফিজুল ইসলাম। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘এএসআইকে থাপ্পর মারার ঘটনার তদন্তে সত্যতা পেয়েছি আমরা। তাই আমরা আমাদের তদন্ত প্রতিবেদনে বামনা থানার ওসি মোহাম্মদ ইলিয়াছ আলী তালুকদারকে প্রত্যাহারসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণেরও সুপারিশ করি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বামনা থানার ওসি মোহাম্মদ ইলিয়াছ আলী তালুকদারকে থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।’ বরিশালের ডিআইজি অফিসের এক চিঠির মাধ্যমে বামনা থানার ওসিকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলেও জানান তদন্ত কমিটির প্রধান মফিজুল। এর আগে গতকাল সোমবার ভুক্তভোগী ওই এএসআইকেও বামনা থানা থেকে প্রত্যাহার করে বরগুনার পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়। কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের মৃত্যুর পর গ্রেপ্তার ও কারাবন্দি সাহেদুল ইসলাম সিফাতের মুক্তির দাবিতে গত শনিবার বরগুনার বামনা উপজেলায় মানববন্ধন করেন সিফাতের বন্ধুরা। পুলিশ গিয়ে ওই মানববন্ধনের ব্যানার-ফ্যাস্টুন কেড়ে নেয় এবং লাঠিপেটা করে মানববন্ধন পণ্ড করে দেয়। এ সময় কর্তব্যরত এক এএসআইকে থাপ্পর মারেন বামনা থানার ওসি মো. ইলিয়াস আলী তালুকদার। থাপ্পর মারার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়ে যায়। এতে ওসি মো. ইলিয়াস আলীকে নিয়ে দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে।

সম্পত্তিতে ছেলে-মেয়ের সমান অধিকার : ভারতের সুপ্রিম কোর্ট


সম্পত্তিতে ছেলে-মেয়ের সমান অধিকার : ভারতের সুপ্রিম কো
র্ট অবিভক্ত হিন্দু পরিবারের সম্পত্তিতে মেয়েদের পক্ষে রায় দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। আদালত জানান, এখন থেকে বাবার সম্পত্তিতে ছেলে ও মেয়ের সমানাধিকার থাকবে। হিন্দুস্তান টাইমস এক প্রতিবেদনে জানায়, আজ মঙ্গলবার বিচারপতি অরুণ মিশ্রের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ এ রায় দেন। রায়ে বলা হয়, ২০০৫ সালের হিন্দু উত্তরাধিকারী (সংশোধিত) আইন মোতাবেক অভিভাবকের সম্পত্তিতে মেয়েদের স্বীকৃত অধিকার থাকবে। অর্থাৎ সম্পত্তিতে ছেলেদের যা অধিকার, মেয়েরাও সেই অধিকার ভোগ করবেন। রায়ে আরো বলা হয়, পিতা যদি সেই সংশোধনী প্রণয়নের আগে মারা যান, তাহলেও ছেলে ও মেয়েদের সমানাধিকার প্রযোজ্য হবে।

নাইজেরিয়ায় চলছে প্রাণঘাতী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা

 

নাইজেরিয়ায় চলছে প্রাণঘাতী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা নাইজেরিয়ার মধ্যাঞ্চলে বন্দুকধারীদের গুলিতে কৃষিজীবী সম্প্রদায়ের ১৩ জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন। তিভ কৃষিজীবীর সম্প্রদায়ের লোকজন হামলা প্রতিহত করার চেষ্টা করলেও তারা তাতে ব্যর্থ হন। নাইজেরিয়া বেনু অঙ্গরাজ্যের পুলিশের মুখপাত্র ড্যানিয়েল এজেয়ালা এই হত্যাকাণ্ডের জন্য হাউসা-ভাষী ফুলানি সম্প্রদায়ের পশু পালনকারীদের দায়ী করেছেন। তিভ সম্প্রদায়ের লোকজন হচ্ছে খ্রিস্টান এবং ফুলানি সম্প্রদায়ের লোকজন মুসলমান। চলতি মাসের গোড়ার দিকে কাদুনা অঙ্গরাজ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় অন্তত ১০০ মানুষ মারা গেছেন। নাইজেরিয়ায় বিশেষ করে কথিত সেন্ট্রাল বেল্টে পশুপালন নিয়ে সহিংসতা অনেকটা স্বাভাবিক ব্যাপার। মধ্যাঞ্চলের দক্ষিণে ক্রিস্টানদের বসবাস আর উত্তর অঞ্চলে বিপুল সংখ্যক মুসলমানের বসবাস রয়েছে। ১৯৯০’র দিকে পশু পালনকারী ও কৃষকদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় হাজার হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল।#

বঙ্গবন্ধু হত্যা ছিল বাংলাদেশ হত্যার ষড়যন্ত্র: তথ্যমন্ত্রী


বঙ্গবন্ধু হত্যা ছিল বাংলাদেশ হত্যার ষড়যন্ত্র: তথ্যমন্ত্রী তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যা ছিল সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অংশ। তিনি বলেন, যেসব দেশি-বিদেশি চক্র বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি, তারা ভেবেছিল বাংলাদেশ কখনও স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না। কিন্তু স্বাধীনতার পর মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় যখন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ তিন কোটি গৃহহারা মানুষকে পুনর্বাসন করে পোড়ামাটির ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে দাঁড়িয়ে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে ৭.৪ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করে সমৃদ্ধির পথে এগোতে শুরু করল, তখন সেই সদ্য স্বাধীন রাষ্ট্রকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কাকরাইলে জাতীয় শোক দিবস-২০২০ উপলক্ষে ইন্সটিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ-আইডিইবি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী এ সময় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকদের হাতে শহীদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সব সদস্য, শহীদ জাতীয় চার নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে তাদের আত্মার শান্তি কামনা করেন। এদিন জন্মাষ্টমী উপলক্ষে সনাতন ধর্মের সবাইকে শুভেচ্ছা জানান মন্ত্রী। স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড পরিচালনার ধারাবাহিকতায় দেশবিরোধী অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের জাতীয় পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত পরিবর্তন করার, পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছিল। এসবই ছিল একটি সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত রাষ্ট্রকে হত্যার ষড়যন্ত্র। রাষ্ট্র পরিচালনায় বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শিতার উদাহরণ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে বঙ্গবন্ধু আইন করে আমাদের তেল ও গ্যাসক্ষেত্রগুলোকে বিদেশি মালিকানা থেকে উদ্ধার করে দেশের মালিকানায় নিয়ে আসেন। আজ আমরা আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে ১ লাখ ১৮ হাজার বর্গকিলোমিটারেরও বেশি সমুদ্রসীমার মালিক হয়েছি। এটি কখনই হতো না, যদি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘের সমুদ্রসীমা সংক্রান্ত পরিষদ আনক্লস-এর সদস্য না হতেন, সেই সংক্রান্ত চুক্তিতে স্বাক্ষর না করতেন। আর যে ছিটমহল চুক্তিকে অনেকে গোলামির চুক্তি বলতেন, ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুর করা সেই চুক্তির আলোকেই আজ আমাদের স্থলসীমা বেড়েছে বলে স্মরণ করিয়ে দেন ড. হাছান মাহমুদ। বঙ্গবন্ধু তার সব স্বপ্নপূরণ করে যেতে পারেননি, কিন্তু তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অদম্যগতিতে এগিয়ে চলছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, পাঁচ মাসের করোনাভাইরাস মহামারীতে অনেক কিছু বন্ধ থাকলেও কেউ অনাহারে মৃত্যুবরণ করেনি। আমরা বিদেশে সাহায্য পাঠিয়েছি, এমনকি আমাদের রফতানি আয় গত বছরের এই সময়ের থেকে বেড়েছে। মন্ত্রী বলেন, ‘দেশ আজ খাদ্যে উদ্বৃত্ত, স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের কাতারে উন্নীত। কিন্তু এসব উন্নয়ন অগ্রযাত্রা বিএনপি ও তাদের সমমনা যারা চোখ থাকতেও দেখে না, কান থাকতেও শোনে না, তারা যেন আর অন্ধ-বধিরের মতো আচরণ না করে, সেজন্য আমি মহান স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করি।’ আইডিইবি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি একেএমএ হামিদের সভাপতিত্বে কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. শামসুর রহমান, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক মো. ফজলুর রহমান, বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এবং আইডিইবির সহ-সভাপতি একেএম আবদুল মোতালেব, ঢাকা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. সাইফুল ইসলাম, কারিগরি ছাত্র পরিষদের আহ্বায়ক মেহেদী হাসান অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। সভার শুরুতে হাফেজ মো. রফিকুল ইসলাম পবিত্র কুরআন ও পুরোহিত রতন চক্রবর্তী পবিত্র গীতা থেকে উদ্ধৃতি পাঠ করেন।