sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

Tainted bootleg alcohol leaves nearly 100 plantation workers dead in India

Tainted bootleg alcohol leaves nearly 100 plantation workers dead in India
The death toll in India has reportedly reached 99 as more than 100 have been hospitalized after tainted bootleg liquor in the Indian state of Assam. Nearly all of the victims are plantation workers on tea farms in the rural region. The tragic incident is the second to take place in less than a week, after an estimated 100 people previously died from poisoned bootleg liquor in the state of Uttar Pradesh and surrounding areas. Bootleg liquor, known as hooch, is fairly common in India -- especially in the more rural areas in the northeastern parts of the country -- because it's much less expensive than regulated alcohol. It can be fermented into a substance similar to beer or wine, or distilled to make liquor, according to BBC. VENEZUELAN TROOPS ABANDON POSTS AMID VIOLENT CLASHES WITH PROTESTERS AT COLOMBIAN BORDER The recent deaths in Assam have reportedly been traced to a specific batch which contained methyl alcohol, which is a fuel or industrial solvent commonly used in factories. It's sometimes used in antifreeze and is added to bootleg alcohol to increase its potency. Consumption of the substance can cause liver damage, blindness or death. Doctors in Assam said that dozens of workers began coming in complaining of headaches, chest pain and vomiting on Thursday. WOMAN, 52, DIES AFTER BEING MAULED BY HER OWN DOGS "I had bought half a liter of wine and drank it before eating. Initially, everything was normal, but after some time my head started hurting," one hospitalized tea worker said. "The headache grew so much that I could not eat or sleep." CLICK HERE TO GET THE FOX NEWS APP Doctors say that the recent batch is causing organ failure and eventual death to patients in Assam. An investigation has been opened, and expert analysts are reportedly on their way to examine the methyl alcohol mixture.

North Korean media confirm Kim Jong Un is on train to 2nd summit

North Korean media confirm Kim Jong Un is on train to 2nd summitNorth Korea leader Kim Jong Un was on a train Sunday to Vietnam for his second summit with U.S. President Donald Trump, state media confirmed. Kim was accompanied by Kim Yong Chol, who has been a key negotiator in talks with the U.S., and Kim Yo Jong, the leader's sister, the North's official Korean Central News Agency reported. NK DRAGGING FEET OVER DISPOSITION OF AMERICANS' REMAINS AS 2ND SUMMIT LOOMS Late Saturday, an Associated Press reporter saw a green and yellow train similar to one used in the past by Kim cross into the Chinese border city of Dandong via a bridge. –– ADVERTISEMENT –– The Trump-Kim meeting is slated for Wednesday and Thursday in Hanoi. Their first summit last June in Singapore ended without substantive agreements on the North's nuclear disarmament and triggered a months-long stalemate in negotiations as Washington and Pyongyang struggled with the sequencing of North Korea's nuclear disarmament and the removal of U.S.-led sanctions against the North. Kim's overseas travel plans are routinely kept secret. It could take more than two days for the train to travel thousands of miles through China to Vietnam. Vietnam's Foreign Ministry announced Saturday that Kim would pay an official goodwill visit to the country "in the coming days" in response to an invitation by President Nguyen Phu Trong, who is also the general secretary of Vietnam's ruling Communist Party. In his upcoming meeting with Trump, experts say Kim will seek a U.S. commitment for improved bilateral relations and partial sanctions relief while trying to minimize any concessions on his nuclear facilities and weapons. While Kim wants to leverage his nuclear and missile program for economic and security benefits, there continue to be doubts on whether he's ready to fully deal away an arsenal that he may see as his strongest guarantee of survival. Last year, North Korea suspended its nuclear and long-range missile tests and unilaterally dismantled its nuclear testing ground and parts of a rocket launch facility without the presence of outside experts, but none of those steps were seen as meaningful cutbacks to the North's weapons capability. While North Korea has repeatedly demanded that the United States take corresponding measures, including sanctions relief, Washington has called for more concrete steps from Pyongyang toward denuclearization. Hanoi has been gearing up for the summit with beefed-up security. Officials say the colonial-era Government Guest House in central Hanoi is expected to be the venue for the Trump-Kim meeting, with the nearby Metropole Hotel as a backup. Streets around the two places have been beautified with flowers and the flags of North Korea, the U.S and Vietnam. Workers were also putting final touches on the International Media Center. Vietnam's Foreign Ministry says some 2,600 members of the foreign press have registered for the event. Meanwhile, Vietnam has announced a traffic ban along Kim's possible arrival route. CLICK HERE TO GET THE FOX NEWS APP The Communist Party's mouthpiece Nhan Dan newspaper late Friday quoted the Department of Roads as saying the ban will first apply to trucks 10 tons or bigger, and vehicles with nine seats or more on the 170-kilometer (105-mile) stretch of Highway One from Dong Dang, the border town with China, to Hanoi from 7 p.m. Monday to 2 p.m. Tuesday, followed by a complete ban Tuesday on all vehicles from 6 a.m. to 2 p.m. The People's Committee in Lang Son province, where the Dong Dang railway station is located, issued a statement Friday instructing the road operator to clean the highway stretch and suspend road works, among other things, on Feb. 24-28 as "a political task."

Several Mississippi college athletes kneel during anthem over a nearby Confederacy rally: report

Several college athletes in Mississippi took a knee on Saturday as “The Star-Spangled Banner” played ahead of their basketball game. The symbolic action by members of the men’s Ole Miss team came in response to a Confederacy rally unfolding near their arena, according to The Associated Press. NIKE LAUNCHES ‘ICON’ KAEPERNICK JERSEY DAYS AFTER NFL COLLUSION CASE SETTLEMENT The team was facing off against Georgia, and as the squad lined up near the foul line for the national anthem, six players knelt down, as documented by a photo of the action. Two more players reportedly joined them as the song neared its close. –– ADVERTISEMENT –– CLICK HERE TO GET THE FOX NEWS APP Not far away, a pair of pro-Confederate groups had staged a march in favor of a Confederate statue in the area, according to WLBT. Various student groups held counterprotests on campus on Thursday and Friday. On Saturday, one began on the city square and ended at the Confederate monument in the heart of the Ole Miss campus. The Associated Press contributed to this report.

‌বিশ্বকাপে ভারত–পাকিস্তান ম্যাচ খেলা নিয়ে মুখ খুললেন কপিলদেব

পুলওয়ামায় সিআরপিএফ জওয়ানদের উপর পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিদের হামলার পরই আসন্ন ক্রিকেট‌ বিশ্বকাপে ভারত–পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। গ্রুপ পর্বের ওই ম্যাচে ভারতের খেলা উচিত, নাকি উচিত নয়?‌ এই নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত প্রাক্তন ক্রিকেটার থেকে শুরু করে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়করা। এর মধ্যেই এই বিষয় নিয়ে মুখ খুললেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিলদেব। ৮৩–র বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের বক্তব্য, ‘‌বিশ্বকাপে ভারত, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে খেলবে কি খেলবে না, সেই নিয়ে আমাদের কোনও মতামত জানানোর প্রয়োজন নেই। সরকার যেটা সিদ্ধান্ত নেবে সেটা দেশের স্বার্থে। তাই এই ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বলে মেনে নেওয়াটা দেশ ও দেশবাসীর পক্ষে ভাল। সরকারই শেষ কথা বলবে। তাই সরকারের উপর সিদ্ধান্ত ছাড়া হোক।’‌ এদিকে, ভারত–পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে আবার দুই মেরুতে শচীন তেন্ডুলকার এবং সৌরভ গাঙ্গুলি। পাকিস্তানের সঙ্গে ক্রিকেট খেলা নিয়ে সৌরভ গাঙ্গুলির যা ভাবনা, তার সঙ্গে একমত নন শচীন তেন্ডুলকার। কেন?‌ শচীনের যুক্তি, ‘‌বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে প্রতিবারই হারিয়েছে ভারত। আরও একবার ওদের হারানোর সুযোগ আমাদের সামনে। তাই বিনা লড়াইয়ে পাকিস্তানকে দু’‌পয়েন্ট দিয়ে ওদের সাহায্য করতে ঘৃণাই হবে।’‌ তবে একান্তই যদি ভারত খেলতে না চায়, তা হলে তিনি যে দেশের পাশেই থাকবেন সে কথা জানাতে ভোলেননি শচীন। মাস্টার ব্লাস্টার বলেছেন, ‘‌আমার কাছে ভারত সবার আগে। তাই দেশ যা সিদ্ধান্ত নেবে, সেটাই মানব। হৃদয় থেকে সমর্থন করব।’‌

সাপ্তাহিক রাশিফল ২৪-ফেব্রুয়ারি-২০১৯ থেকে ২-মার্চ-২০১৯

আপনার এই সপ্তাহ
মেষ– কর্মীদের সঙ্গে খুব বুঝে কথা বলুন। অর্থ আগমন খুব ভাল থাকবে। প্রতিবেশীর সঙ্গে খুব সামান্য কারণে মতবিরোধ। সম্পত্তি ক্রয়ের সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। মানসিক অস্থিরতা কাজের ক্ষতি করতে পারে। সংসার সমস্যা থেকে মুক্তি লাভের চেষ্টা। এই সপ্তাহে শত্রুর দ্বারা কোনও ক্ষতি হতে পারে। ব্যবসার দিকে নতুন কোনও কিছু শুরু হতে পারে। স্বামী, স্ত্রী চেষ্টায় কোনও সমস্যার সমাধান। বাড়তি খরচ একটু চিন্তায় ফেলতে পারে। শরীরে কোনও ক্ষতস্থান নিয়ে চিন্তা বাড়তে পারে। আপনার মধুর ব্যবহারে সুনাম পাবেন। এই সপ্তাহে কোনও চিন্তা বাড়তে পারে। বিদেশে বন্ধুর খবর না পাওয়ারর জন্য চিন্তা।

মেষ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের প্রথম রাশি মেষ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ মঙ্গল। এই রাশির ব্যক্তি ছোটবেলা থেকেই তেজস্বী, স্পষ্টবক্তা ও নির্ভীক প্রকৃতির হয়ে থাকে। নানা রকম রোমাঞ্চকর কাজ, সাহসিকতার কাজ করতে পারলে খুব আনন্দিত হয়। গুরুজন ও শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিদের প্রতি ভক্তিযুক্ত। কাজ বা কথার সমালোচনা সহ্য করতে পারে না। পরিশ্রমি তবে কায়িক শ্রমের চেয়ে মস্তিষ্কের শ্রমেই বেশি সফল। এরা খুব তোষামোদ প্রিয় ও বন্ধুবৎসল। তবে সকলের সঙ্গে সমান ভাবে মিশতে পারে না। আবেগ প্রকাশ বা নিজেকে বড় করে দেখবার চেষ্টা এদের খুব বেশি। এরা সব বিষয়ে বড় হতে ও নেতৃত্ব করতে হয়। নিজের ক্ষমতায় না হলে পেছনের পথ দিয়ে এগোতেও কুণ্ঠিত হয় না। এদের মতে উন্নতিই আসল, সেখানে পৌঁছনোর পন্থাতা গৌণ। এদের উদ্ভাবনী শক্তি প্রবল। সহজে কথার খেলাপ করে না। নিজের ক্ষতি করেও কথা রাখতে চেষ্টা করে। মন চঞ্চল ও মাঝে মাঝে উগ্র প্রকৃতির হয়ে ওঠে।



বৃষ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের দ্বিতীয় রাশি বৃষ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শুক্র। এই রাশির ব্যক্তিরা সাধারণত সুন্দরের পূজারী ও শিল্পরসিক হয়ে থাকে। বিপরীত লিঙ্গের মন সহজে জয় করতে পারে ও একাধিক মানুষের প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে। এরা মনে প্রাণে সর্বদা উচ্চ ভাব সম্পন্ন। নিজের প্রতিভায় সবার উপরে সহজেই আধিপত্য বিস্তারে সক্ষম হয়। আত্মীয় সজনের জন্য প্রচুর ত্যাগ স্বীকার করে থাকে। এদের জীবনে উত্থান পতন খুব কম। দীর্ঘসুত্রিতা এদের চরিত্রের এক বিশেষ ধর্ম। ফলে জীবনের অনেক ভাল সুযোগ নষ্ট করে। এরা প্রায়ই তীক্ষ্ণ বুদ্ধির, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ও ধৈর্যশীল হয়ে থাকে। স্মৃতিশক্তি প্রখর, সহজে কোনও কিছু ভোলে না এরা। খুব বন্ধু বত্সল ও স্নেহশীল মানুষ। ধর্মে প্রবল উৎসাহ থাকে। এরা ঈশ্বর ভক্তি প্রবল, প্রাচীন শক্তিতে বিশ্বাসী, আনন্দময় ও আত্মবিশ্বাসী হয়। প্রায়ই উত্তরাধিকার সুত্রে আত্মীয় স্বজনের অর্থ বা সম্পত্তি পেয়ে থাকে। জাতক বা জাতিকার জীবনে উন্নতির প্রধান অন্তরায় হল বিলাসিতা ও অমিতব্যয়িতা। এ বিষয়ে সংযত হওয়া প্রয়োজন।



মিথুন রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের তৃতীয় রাশি মিথুন। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বুধ। বুধ চঞ্চলমতি, উদ্যমী বালক গ্রহ। বালকের মতোই এর কার্যকরিতা এই রাশির ব্যক্তিদের উপর সেই ভাবে প্রতিফলিত হয়। এদের মেধা শক্তি তীক্ষ্ণ, তবে এরা অস্থিরমনা এবং নরম গরম ভাবযুক্ত। এরা চিন্তাশীল কিন্তু বাচাল। এদের মনের মধ্যে একই সঙ্গে দ্বিবিধ ভাবের খেলা চলে। একই সঙ্গে কাউকে ভালবাসে, আবার ঘৃণাও করে। কখনও বিশ্বাস করে তো কখনও সন্দেহ করে। কখনও কৃপণ আবার কখনও আর্থিক ভাবে উদার। কখনও কুটিল, কখনও সরল। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ভাবুকতা এদের এক বৈশিষ্ট্য। এরা কাজ পাগল। কিন্তু কোন কাজ করবে বা কোন কাজ করবে না তা সব সময় ঠিক করতে পারে না। আইনি, চিকিৎসা, হিসাব, শিল্পসাহিতা, রেস, জুয়া ইত্যাদিতে তিব্র ঝোঁক থাকে এবং কিছু সাফল্যও অর্জন করে। প্রায়ই পেটের রোগ বা বদহজমে ভোগে, তোষামোদ প্রিয়।






কর্কট রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশিচক্রের চতুর্থ রাশি কর্কট। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ চন্দ্র। এই ব্যক্তিরা সচরাচর কল্পনা প্রিয়, শিল্পী, ভাবপ্রবণ ও রোম্যান্টিক ধরনের হয়ে থাকে। বিলাসি অথচ আদর্শবাদী। আত্মকেন্দ্রিক অথচ স্পর্শকাতর। দিনের চেয়ে রাত বেশি প্রিয়। ঠান্ডা জিনিস এদের প্রিয়। ভ্রমণ বিলাসী ও বাবা মায়ের ভক্ত হয়। দোষের মধ্যে একটু খুঁতখুঁতে চঞ্চল ও ভীতু, সব বিষয়ে হুড়োহুড়ি করা ও চঞ্চল প্রকৃতির হয়। ব্যবসা বুদ্ধি জন্মগত, তাই চাকরির চেয়ে ব্যবসাতেই জাতক বেশি উন্নতি করে। বিশেষ করে সাদা ও তরল দ্রব্যের, জলজ দ্রব্য বা খাদ্যদ্রব্যের ব্যবসা করলে খুব লাভবান হতে পারে। স্বাস্থ্য খুব একটা মজবুত হয় না। বায়ুর প্রকোপ খুব বেশি। হৃদরোগ, পেটের রোগ, মাথার রোগ, যক্ষ্মা, হাঁপানি হওয়ার প্রবণতা থাকে। এরা সব সময় ছিমছাম ও বেহিসেবি হয়ে থাকে।





সিংহ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের পঞ্চম রাশি সিংহ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ রবি। এই রাশির ব্যক্তিরা প্রায়ই দৈহিক সৌন্দর্য যুক্ত হয়ে থাকে। দেহ রোগা মোটা বা দোহারা বা যাই হোক, পেশীবহুল হয়। সাধারণত শান্ত কিন্তু রেগে গেলে হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে পরে। এরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, জেদি, পরাক্রমশীল, গম্ভীর ও দয়াবান হয়। নিজের চেষ্টায় জীবনে উন্নতি করে। লাল বা হলুদ রঙের দ্রব্যের ব্যবসা করলে শুভ। ইঞ্জিনিয়ারিং ও চিকিৎসা ব্যবসায় দ্রুত উন্নতি। উচ্চ রক্তচাপ, চোখের রোগ, পেটের রোগে ভোগান্তি হয়। যে কোনও কাজে ঘনঘন মত পাল্টালে জাতকের ভাল হবে না। বৃশ্চিক, মীন, সিংহ ও মেষ রাশির নর নারির সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হবে।




কন্যা রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের ষষ্ঠ রাশি কন্যা। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বুধ। বুধ প্রধান ব্যক্তি উদ্যমশীল, হাস্যকৌতুক ও আনন্দ প্রিয় হয়। স্বভাব চরিত্র সহজে বোঝা যায় না। আইনবিদ্যা, চিকিৎসা, রসায়ন বিজ্ঞান, গণিত ইত্যাদিতে প্রায়ই পটু হয়ে থাকে। ব্যবসা বাণিজ্যে উন্নতি করে। একা স্বাধীন ভাবে ব্যবসা করার চেয়ে যৌথ ব্যবসায় উন্নতি করে। সকলের জন্য চিন্তা করে তবে নিজের স্বার্থ ভাল বোঝে। মনের দু’টি পরপর বিপরীত ভাবের জন্য প্রায়ই উন্নতি ব্যাহত হয়। ব্যবসায়ী, প্রচারকর্তা, ওকালতি, এজেন্ট, জ্যোতিষী ইত্যাদি শুরু করলে জীবনে অবশ্যই উন্নতি করবে। এরা একা থাকতে ভালবাসে না। বন্ধুপ্রীতি অপরিসীম। কন্যা, মিথুন, মীন ও মেষ রাশির লোকের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ শুভ। এরা খুব কর্তব্যপরায়ণ হয়ে থাকে। মন দৃঢ় রাখতে পারলে জীবন কুব সুখকর হবে।





তুলা রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের সপ্তম রাশি তুলা। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শুক্র। এদের মধ্যে যে লক্ষণ সাধারণত দেখা যায়, তা হল— এরা খুব সৌন্দর্য ও ভোগবিলাস প্রিয়, ভাবপ্রবণ, বিজ্ঞ, রাজনীতিক, প্রখর অনুমান শক্তিসম্পন্ন ও প্রেমিক। চেষ্টা করলে এরা ভাল শিল্পী, গায়ক, চিত্রকর, সুরকার, সাহিত্যিক, নৃত্যশিল্পী, অভিনেতা প্রভৃতি হতে পারে। এদের স্বাস্থ্য ভাল, রোগব্যধি বিশেষ হয় না। এরা একটু নির্জনতাপ্রিয়। ভীরের চেয়ে একাকী থাকতে বেশি পছন্দ করে। এদের সহিষ্ণুতা ও ধৈর্য যথেষ্ট। জাতক শান্তি প্রিয় তবে ভিরু নয়। চাকরি অপেক্ষা ব্যবসা জাতকের পক্ষে বিশেষ ফলপ্রদ। জাতক সৎকর্ম পরায়ণ, বহু ভাষায় অভিজ্ঞ। ধর্ম ভাব বেশি থাকলেও তা চাপা থাকে। খেতে খাওয়াতে খুব ভালবাসে। বিচার বিশ্লেষণ শক্তি প্রবল। তুলা, মেষ, কুম্ভ ও মিথুন  রাশির লোকের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়।







বৃশ্চিক রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের অষ্টম রাশি বৃশ্চিক। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ মঙ্গল। এই রাশির ব্যক্তি প্রায়ই তেজী, নির্ভীক এবং একগুঁয়ে প্রকৃতির হয়। নিজের মতে চলতে ভালবাসে। মঙ্গল প্রধান লোক প্রায়ই স্বেচ্ছাচারি, প্রভুত্বকামী হয়ে থাকে। মঙ্গল অশুভ হলে অহংকারী, দাঙ্গাবাজ ও গুন্ডা প্রকৃতির হয়ে থাকে। এরা প্রায়ই প্রচুর ভু সম্পত্তি বা বাড়ির মালিক হয়। জীবনে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার জন্য ন্যায় অন্যায় বিচার করে না। পাইলট, সামরিক অফিসার, সৈনিক, পুলিশ অফিসার, পদস্থ সরকারি কর্মচারী, প্রভৃতি বৃত্তি অবলম্বন করলে জীবনে দ্রুত উন্নতি করবে। অধ্যাবসায়ের দিকে কঠোর পরিশ্রম করে নিজেকে নিজের ভাগ্য গড়ে তুলতে হবে। হঠাৎ কিছু পাওয়ার আশা করা তার পক্ষে উচিৎ হবে না। এই লোকের স্বাস্থ্য ভাল যায় না। বৃশ্চিক, মীন, বৃষ, কর্কট ও সিংহ রাশির লোকের সঙ্গে মিত্রতা বা বিবাহ হলে হবে।




ধনু রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের নবম রাশি ধনু। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বৃহস্পতি। এই রাশির ব্যক্তিরা ধার্মিক, সৎ, পরোপকারী এবং আদর্শবাদী হয়। ব্যক্তিত্বসম্পন্ন হওয়ায় অন্যের অধীনে কাজ করতে অসুবিধা ভোগ করে। এরা সধারণত কর্মকুশল, দেবদ্বিজে ভক্তিমান, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, সত্যপ্রিয়, জ্ঞানি ও প্রতিভাশালী হয়। এদের বন্ধু সংখ্যা একটু কম। জাতকের বদান্যতার জন্য আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হয়। দৈবে অত্যধিক বিশ্বাসী হওয়ায় কর্মে ব্যাঘাত আসতে পারে। বিষয় সম্পত্তিতে আসক্তি কম। দৃঢ়তা ও স্পষ্টবাদিতার জন্য প্রায়ই মতান্তর ঘটে। প্রথম জীবনে নানা বাধা বিঘ্ন, মানসিক অস্থিরতা, অর্থাভাব ইত্যাদি প্রায়ই দেখা দেয়। প্রচণ্ড পরিশ্রমী হওয়ায় অবস্থা পাল্টে যায়। মেষ, মিথুন ও ধনুরাশির জাতক জাতিকার সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়। অর্থ ভাগ্য খুব ভাল নয়। কিন্তু মধ্য জীবনের পর থেকে আর্থিক অবস্থা ভাল হতে থাকে।





মকর রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের দশম রাশি মকর। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শনি। শনি গ্রহের জাতকদের নিঃসঙ্গ এবং একা থাকতে ভাল লাগে। অবসাদ, বিষাদ, বৈরাগ্য, উদাসিনতা ভাব এদের চরিত্রের বিশেষ লক্ষণ। বন্ধুরা সব সময় এদের এড়িয়ে চলতে চায়। এই রাশির ব্যক্তি সহিষ্ণু, পরিশ্রমী, জেদি, ঈশ্বরবিশ্বাসী ও পরোপকারী হয়। এরা সাধারণত অল্পে সন্তুষ্ট হয়। অকাল বার্ধক্যের একটি ছাপ প্রায়ই এদের চেহারায় দেখা যায়। এরা কখনও শ্রমশীল আবার কখনও শ্রম বিমুখ হয়। স্বাস্থ্য মোটামুটি ভাল হয়। তবে শেষ জীবনে হঠাৎ নানা রোগ দেখা দিতে পারে। বিজ্ঞান, গণিত, যন্ত্রবিদ্যা, লোহা বা কয়লার ব্যবসা, টেকনিক্যাল কাজ, ইত্যাদি নিয়ে জীবনে এগোলে ফল ভাল হবে। সন্দেহ বাতিকের জন্য বিবাহ জীবন খুব একটা সুখের হয় না। এরা মিতব্যয়ী ও সঞ্চয়ী প্রকৃতির হয়ে থাকে। কন্যা, বৃষ, কর্কট, মকর রাশির মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়। জাতকের আকস্মিক অর্থ প্রাপ্তি হতে পারে।















কুম্ভ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের একাদশ রাশি কুম্ভ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শনি। শনি গ্রহের জাতকরাও একা থাকতে ভালবাসে। অবসাদ, নৈরাশ্য, মনের অস্থিরতা, গুপ্তবিদ্যায় ঝোঁক, গণিত, জ্যোতিষ, বিজ্ঞান, প্রভৃতিতে পারদর্শী হয়। কালো কোনও দ্রব্যের ব্যবসায় সাফল্য। এই জাতক জাতিকারা ভাবুক, দার্শনিক ও ধর্মপরায়ণ হয়ে থাকে। সর্বদাই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামে রত থাকে এরা। প্রথম জীবনে প্রচুর কষ্ট পেলেও পরে সুখভোগ করে থাকে। এদের অন্তরে যোগীভাব প্রবল থাকে। সাধারণত ভাল স্বভাবের কিন্তু গ্রহ দোষ থাকলে খল ও নিষ্ঠুর প্রকৃতির হয়ে ওঠে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে চরিত্রের দোষে কুপথে যেতে দেখা যায়। বেশি ঝামেলা পছন্দ করে না। চাকরির থেকে ব্যবসা ভাগ্য ভাল হয়। জীবনে অনেক বার বাধা আসে আবার শুভ ঘটনাও ঘটে, বিশেষ করে ২৫ থেকে ৫৩ বছর বয়সের মধ্যে। একটু খুঁতখুঁতে হওয়ায় সংসার জীবন মধ্যম হয়।






মীন রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য
রাশি চক্রের দ্বাদশ রাশি মীন। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বৃহস্পতি। এই রাশির জাতক জাতিকারা উদার, পরোপকারী ও সৎ হয়। স্বভাবে এরা নম্র, ন্যায়পরায়ণ ও ধার্মিক। প্রতিভা যথেষ্ট কিন্তু মানসিক অস্থিরতার জন্য ঠিকমতো বিকশিত হয় না। অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে জীবনে অনেক বার বিপদে পড়তে হয়। এরা সাধারণত চিন্তাশীল ও খুব বিচক্ষণ হয়ে থাকে। কিন্তু বৃহস্পতি অশুভ থাকলে অবস্থা বিপরীত হয়। বন্ধুদের বেশির ভাগই হয় খল, দুষ্ট ও ধড়িবাজ প্রকৃতির। প্রেমের ক্ষেত্রে অসফল কিন্তু বৈবাহিক জীবন সুখের হয়। ভাগ্যে অনেক বাধা আসবে এবং সে সব সহজে দূর হবে না। চিকিৎসা, শিল্প, সাহিত্য, প্রেস বিভাগে কাজ ইত্যাদি এদের ভাল হবে। এদের জীবনে একটাই লক্ষ্য প্রচুর অর্থ উপার্জন করা। আর সেই অর্থে আনন্দে জীবন কাটানো। বৃষ, কন্যা, কর্কট, বৃশ্চিক রাশির সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ শুভ হয়।


আপনার এই সপ্তাহ মেষ– কর্মীদের সঙ্গে খুব বুঝে কথা বলুন। অর্থ আগমন খুব ভাল থাকবে। প্রতিবেশীর সঙ্গে খুব সামান্য কারণে মতবিরোধ। সম্পত্তি ক্রয়ের সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। মানসিক অস্থিরতা কাজের ক্ষতি করতে পারে। সংসার সমস্যা থেকে মুক্তি লাভের চেষ্টা। এই সপ্তাহে শত্রুর দ্বারা কোনও ক্ষতি হতে পারে। ব্যবসার দিকে নতুন কোনও কিছু শুরু হতে পারে। স্বামী, স্ত্রী চেষ্টায় কোনও সমস্যার সমাধান। বাড়তি খরচ একটু চিন্তায় ফেলতে পারে। শরীরে কোনও ক্ষতস্থান নিয়ে চিন্তা বাড়তে পারে। আপনার মধুর ব্যবহারে সুনাম পাবেন। এই সপ্তাহে কোনও চিন্তা বাড়তে পারে। বিদেশে বন্ধুর খবর না পাওয়ারর জন্য চিন্তা। মেষ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের প্রথম রাশি মেষ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ মঙ্গল। এই রাশির ব্যক্তি ছোটবেলা থেকেই তেজস্বী, স্পষ্টবক্তা ও নির্ভীক প্রকৃতির হয়ে থাকে। নানা রকম রোমাঞ্চকর কাজ, সাহসিকতার কাজ করতে পারলে খুব আনন্দিত হয়। গুরুজন ও শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিদের প্রতি ভক্তিযুক্ত। কাজ বা কথার সমালোচনা সহ্য করতে পারে না। পরিশ্রমি তবে কায়িক শ্রমের চেয়ে মস্তিষ্কের শ্রমেই বেশি সফল। এরা খুব তোষামোদ প্রিয় ও বন্ধুবৎসল। তবে সকলের সঙ্গে সমান ভাবে মিশতে পারে না। আবেগ প্রকাশ বা নিজেকে বড় করে দেখবার চেষ্টা এদের খুব বেশি। এরা সব বিষয়ে বড় হতে ও নেতৃত্ব করতে হয়। নিজের ক্ষমতায় না হলে পেছনের পথ দিয়ে এগোতেও কুণ্ঠিত হয় না। এদের মতে উন্নতিই আসল, সেখানে পৌঁছনোর পন্থাতা গৌণ। এদের উদ্ভাবনী শক্তি প্রবল। সহজে কথার খেলাপ করে না। নিজের ক্ষতি করেও কথা রাখতে চেষ্টা করে। মন চঞ্চল ও মাঝে মাঝে উগ্র প্রকৃতির হয়ে ওঠে। বৃষ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের দ্বিতীয় রাশি বৃষ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শুক্র। এই রাশির ব্যক্তিরা সাধারণত সুন্দরের পূজারী ও শিল্পরসিক হয়ে থাকে। বিপরীত লিঙ্গের মন সহজে জয় করতে পারে ও একাধিক মানুষের প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে। এরা মনে প্রাণে সর্বদা উচ্চ ভাব সম্পন্ন। নিজের প্রতিভায় সবার উপরে সহজেই আধিপত্য বিস্তারে সক্ষম হয়। আত্মীয় সজনের জন্য প্রচুর ত্যাগ স্বীকার করে থাকে। এদের জীবনে উত্থান পতন খুব কম। দীর্ঘসুত্রিতা এদের চরিত্রের এক বিশেষ ধর্ম। ফলে জীবনের অনেক ভাল সুযোগ নষ্ট করে। এরা প্রায়ই তীক্ষ্ণ বুদ্ধির, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ও ধৈর্যশীল হয়ে থাকে। স্মৃতিশক্তি প্রখর, সহজে কোনও কিছু ভোলে না এরা। খুব বন্ধু বত্সল ও স্নেহশীল মানুষ। ধর্মে প্রবল উৎসাহ থাকে। এরা ঈশ্বর ভক্তি প্রবল, প্রাচীন শক্তিতে বিশ্বাসী, আনন্দময় ও আত্মবিশ্বাসী হয়। প্রায়ই উত্তরাধিকার সুত্রে আত্মীয় স্বজনের অর্থ বা সম্পত্তি পেয়ে থাকে। জাতক বা জাতিকার জীবনে উন্নতির প্রধান অন্তরায় হল বিলাসিতা ও অমিতব্যয়িতা। এ বিষয়ে সংযত হওয়া প্রয়োজন। মিথুন রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের তৃতীয় রাশি মিথুন। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বুধ। বুধ চঞ্চলমতি, উদ্যমী বালক গ্রহ। বালকের মতোই এর কার্যকরিতা এই রাশির ব্যক্তিদের উপর সেই ভাবে প্রতিফলিত হয়। এদের মেধা শক্তি তীক্ষ্ণ, তবে এরা অস্থিরমনা এবং নরম গরম ভাবযুক্ত। এরা চিন্তাশীল কিন্তু বাচাল। এদের মনের মধ্যে একই সঙ্গে দ্বিবিধ ভাবের খেলা চলে। একই সঙ্গে কাউকে ভালবাসে, আবার ঘৃণাও করে। কখনও বিশ্বাস করে তো কখনও সন্দেহ করে। কখনও কৃপণ আবার কখনও আর্থিক ভাবে উদার। কখনও কুটিল, কখনও সরল। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ভাবুকতা এদের এক বৈশিষ্ট্য। এরা কাজ পাগল। কিন্তু কোন কাজ করবে বা কোন কাজ করবে না তা সব সময় ঠিক করতে পারে না। আইনি, চিকিৎসা, হিসাব, শিল্পসাহিতা, রেস, জুয়া ইত্যাদিতে তিব্র ঝোঁক থাকে এবং কিছু সাফল্যও অর্জন করে। প্রায়ই পেটের রোগ বা বদহজমে ভোগে, তোষামোদ প্রিয়। কর্কট রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশিচক্রের চতুর্থ রাশি কর্কট। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ চন্দ্র। এই ব্যক্তিরা সচরাচর কল্পনা প্রিয়, শিল্পী, ভাবপ্রবণ ও রোম্যান্টিক ধরনের হয়ে থাকে। বিলাসি অথচ আদর্শবাদী। আত্মকেন্দ্রিক অথচ স্পর্শকাতর। দিনের চেয়ে রাত বেশি প্রিয়। ঠান্ডা জিনিস এদের প্রিয়। ভ্রমণ বিলাসী ও বাবা মায়ের ভক্ত হয়। দোষের মধ্যে একটু খুঁতখুঁতে চঞ্চল ও ভীতু, সব বিষয়ে হুড়োহুড়ি করা ও চঞ্চল প্রকৃতির হয়। ব্যবসা বুদ্ধি জন্মগত, তাই চাকরির চেয়ে ব্যবসাতেই জাতক বেশি উন্নতি করে। বিশেষ করে সাদা ও তরল দ্রব্যের, জলজ দ্রব্য বা খাদ্যদ্রব্যের ব্যবসা করলে খুব লাভবান হতে পারে। স্বাস্থ্য খুব একটা মজবুত হয় না। বায়ুর প্রকোপ খুব বেশি। হৃদরোগ, পেটের রোগ, মাথার রোগ, যক্ষ্মা, হাঁপানি হওয়ার প্রবণতা থাকে। এরা সব সময় ছিমছাম ও বেহিসেবি হয়ে থাকে। সিংহ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের পঞ্চম রাশি সিংহ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ রবি। এই রাশির ব্যক্তিরা প্রায়ই দৈহিক সৌন্দর্য যুক্ত হয়ে থাকে। দেহ রোগা মোটা বা দোহারা বা যাই হোক, পেশীবহুল হয়। সাধারণত শান্ত কিন্তু রেগে গেলে হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে পরে। এরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, জেদি, পরাক্রমশীল, গম্ভীর ও দয়াবান হয়। নিজের চেষ্টায় জীবনে উন্নতি করে। লাল বা হলুদ রঙের দ্রব্যের ব্যবসা করলে শুভ। ইঞ্জিনিয়ারিং ও চিকিৎসা ব্যবসায় দ্রুত উন্নতি। উচ্চ রক্তচাপ, চোখের রোগ, পেটের রোগে ভোগান্তি হয়। যে কোনও কাজে ঘনঘন মত পাল্টালে জাতকের ভাল হবে না। বৃশ্চিক, মীন, সিংহ ও মেষ রাশির নর নারির সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হবে। কন্যা রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের ষষ্ঠ রাশি কন্যা। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বুধ। বুধ প্রধান ব্যক্তি উদ্যমশীল, হাস্যকৌতুক ও আনন্দ প্রিয় হয়। স্বভাব চরিত্র সহজে বোঝা যায় না। আইনবিদ্যা, চিকিৎসা, রসায়ন বিজ্ঞান, গণিত ইত্যাদিতে প্রায়ই পটু হয়ে থাকে। ব্যবসা বাণিজ্যে উন্নতি করে। একা স্বাধীন ভাবে ব্যবসা করার চেয়ে যৌথ ব্যবসায় উন্নতি করে। সকলের জন্য চিন্তা করে তবে নিজের স্বার্থ ভাল বোঝে। মনের দু’টি পরপর বিপরীত ভাবের জন্য প্রায়ই উন্নতি ব্যাহত হয়। ব্যবসায়ী, প্রচারকর্তা, ওকালতি, এজেন্ট, জ্যোতিষী ইত্যাদি শুরু করলে জীবনে অবশ্যই উন্নতি করবে। এরা একা থাকতে ভালবাসে না। বন্ধুপ্রীতি অপরিসীম। কন্যা, মিথুন, মীন ও মেষ রাশির লোকের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ শুভ। এরা খুব কর্তব্যপরায়ণ হয়ে থাকে। মন দৃঢ় রাখতে পারলে জীবন কুব সুখকর হবে। তুলা রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের সপ্তম রাশি তুলা। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শুক্র। এদের মধ্যে যে লক্ষণ সাধারণত দেখা যায়, তা হল— এরা খুব সৌন্দর্য ও ভোগবিলাস প্রিয়, ভাবপ্রবণ, বিজ্ঞ, রাজনীতিক, প্রখর অনুমান শক্তিসম্পন্ন ও প্রেমিক। চেষ্টা করলে এরা ভাল শিল্পী, গায়ক, চিত্রকর, সুরকার, সাহিত্যিক, নৃত্যশিল্পী, অভিনেতা প্রভৃতি হতে পারে। এদের স্বাস্থ্য ভাল, রোগব্যধি বিশেষ হয় না। এরা একটু নির্জনতাপ্রিয়। ভীরের চেয়ে একাকী থাকতে বেশি পছন্দ করে। এদের সহিষ্ণুতা ও ধৈর্য যথেষ্ট। জাতক শান্তি প্রিয় তবে ভিরু নয়। চাকরি অপেক্ষা ব্যবসা জাতকের পক্ষে বিশেষ ফলপ্রদ। জাতক সৎকর্ম পরায়ণ, বহু ভাষায় অভিজ্ঞ। ধর্ম ভাব বেশি থাকলেও তা চাপা থাকে। খেতে খাওয়াতে খুব ভালবাসে। বিচার বিশ্লেষণ শক্তি প্রবল। তুলা, মেষ, কুম্ভ ও মিথুন রাশির লোকের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়। বৃশ্চিক রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের অষ্টম রাশি বৃশ্চিক। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ মঙ্গল। এই রাশির ব্যক্তি প্রায়ই তেজী, নির্ভীক এবং একগুঁয়ে প্রকৃতির হয়। নিজের মতে চলতে ভালবাসে। মঙ্গল প্রধান লোক প্রায়ই স্বেচ্ছাচারি, প্রভুত্বকামী হয়ে থাকে। মঙ্গল অশুভ হলে অহংকারী, দাঙ্গাবাজ ও গুন্ডা প্রকৃতির হয়ে থাকে। এরা প্রায়ই প্রচুর ভু সম্পত্তি বা বাড়ির মালিক হয়। জীবনে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার জন্য ন্যায় অন্যায় বিচার করে না। পাইলট, সামরিক অফিসার, সৈনিক, পুলিশ অফিসার, পদস্থ সরকারি কর্মচারী, প্রভৃতি বৃত্তি অবলম্বন করলে জীবনে দ্রুত উন্নতি করবে। অধ্যাবসায়ের দিকে কঠোর পরিশ্রম করে নিজেকে নিজের ভাগ্য গড়ে তুলতে হবে। হঠাৎ কিছু পাওয়ার আশা করা তার পক্ষে উচিৎ হবে না। এই লোকের স্বাস্থ্য ভাল যায় না। বৃশ্চিক, মীন, বৃষ, কর্কট ও সিংহ রাশির লোকের সঙ্গে মিত্রতা বা বিবাহ হলে হবে। ধনু রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের নবম রাশি ধনু। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বৃহস্পতি। এই রাশির ব্যক্তিরা ধার্মিক, সৎ, পরোপকারী এবং আদর্শবাদী হয়। ব্যক্তিত্বসম্পন্ন হওয়ায় অন্যের অধীনে কাজ করতে অসুবিধা ভোগ করে। এরা সধারণত কর্মকুশল, দেবদ্বিজে ভক্তিমান, দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, সত্যপ্রিয়, জ্ঞানি ও প্রতিভাশালী হয়। এদের বন্ধু সংখ্যা একটু কম। জাতকের বদান্যতার জন্য আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হয়। দৈবে অত্যধিক বিশ্বাসী হওয়ায় কর্মে ব্যাঘাত আসতে পারে। বিষয় সম্পত্তিতে আসক্তি কম। দৃঢ়তা ও স্পষ্টবাদিতার জন্য প্রায়ই মতান্তর ঘটে। প্রথম জীবনে নানা বাধা বিঘ্ন, মানসিক অস্থিরতা, অর্থাভাব ইত্যাদি প্রায়ই দেখা দেয়। প্রচণ্ড পরিশ্রমী হওয়ায় অবস্থা পাল্টে যায়। মেষ, মিথুন ও ধনুরাশির জাতক জাতিকার সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়। অর্থ ভাগ্য খুব ভাল নয়। কিন্তু মধ্য জীবনের পর থেকে আর্থিক অবস্থা ভাল হতে থাকে। মকর রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের দশম রাশি মকর। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শনি। শনি গ্রহের জাতকদের নিঃসঙ্গ এবং একা থাকতে ভাল লাগে। অবসাদ, বিষাদ, বৈরাগ্য, উদাসিনতা ভাব এদের চরিত্রের বিশেষ লক্ষণ। বন্ধুরা সব সময় এদের এড়িয়ে চলতে চায়। এই রাশির ব্যক্তি সহিষ্ণু, পরিশ্রমী, জেদি, ঈশ্বরবিশ্বাসী ও পরোপকারী হয়। এরা সাধারণত অল্পে সন্তুষ্ট হয়। অকাল বার্ধক্যের একটি ছাপ প্রায়ই এদের চেহারায় দেখা যায়। এরা কখনও শ্রমশীল আবার কখনও শ্রম বিমুখ হয়। স্বাস্থ্য মোটামুটি ভাল হয়। তবে শেষ জীবনে হঠাৎ নানা রোগ দেখা দিতে পারে। বিজ্ঞান, গণিত, যন্ত্রবিদ্যা, লোহা বা কয়লার ব্যবসা, টেকনিক্যাল কাজ, ইত্যাদি নিয়ে জীবনে এগোলে ফল ভাল হবে। সন্দেহ বাতিকের জন্য বিবাহ জীবন খুব একটা সুখের হয় না। এরা মিতব্যয়ী ও সঞ্চয়ী প্রকৃতির হয়ে থাকে। কন্যা, বৃষ, কর্কট, মকর রাশির মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ সুখের হয়। জাতকের আকস্মিক অর্থ প্রাপ্তি হতে পারে। কুম্ভ রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের একাদশ রাশি কুম্ভ। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ শনি। শনি গ্রহের জাতকরাও একা থাকতে ভালবাসে। অবসাদ, নৈরাশ্য, মনের অস্থিরতা, গুপ্তবিদ্যায় ঝোঁক, গণিত, জ্যোতিষ, বিজ্ঞান, প্রভৃতিতে পারদর্শী হয়। কালো কোনও দ্রব্যের ব্যবসায় সাফল্য। এই জাতক জাতিকারা ভাবুক, দার্শনিক ও ধর্মপরায়ণ হয়ে থাকে। সর্বদাই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামে রত থাকে এরা। প্রথম জীবনে প্রচুর কষ্ট পেলেও পরে সুখভোগ করে থাকে। এদের অন্তরে যোগীভাব প্রবল থাকে। সাধারণত ভাল স্বভাবের কিন্তু গ্রহ দোষ থাকলে খল ও নিষ্ঠুর প্রকৃতির হয়ে ওঠে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে চরিত্রের দোষে কুপথে যেতে দেখা যায়। বেশি ঝামেলা পছন্দ করে না। চাকরির থেকে ব্যবসা ভাগ্য ভাল হয়। জীবনে অনেক বার বাধা আসে আবার শুভ ঘটনাও ঘটে, বিশেষ করে ২৫ থেকে ৫৩ বছর বয়সের মধ্যে। একটু খুঁতখুঁতে হওয়ায় সংসার জীবন মধ্যম হয়। মীন রাশির ব্যক্তিদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য রাশি চক্রের দ্বাদশ রাশি মীন। এই রাশির অধিকর্তা গ্রহ বৃহস্পতি। এই রাশির জাতক জাতিকারা উদার, পরোপকারী ও সৎ হয়। স্বভাবে এরা নম্র, ন্যায়পরায়ণ ও ধার্মিক। প্রতিভা যথেষ্ট কিন্তু মানসিক অস্থিরতার জন্য ঠিকমতো বিকশিত হয় না। অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে জীবনে অনেক বার বিপদে পড়তে হয়। এরা সাধারণত চিন্তাশীল ও খুব বিচক্ষণ হয়ে থাকে। কিন্তু বৃহস্পতি অশুভ থাকলে অবস্থা বিপরীত হয়। বন্ধুদের বেশির ভাগই হয় খল, দুষ্ট ও ধড়িবাজ প্রকৃতির। প্রেমের ক্ষেত্রে অসফল কিন্তু বৈবাহিক জীবন সুখের হয়। ভাগ্যে অনেক বাধা আসবে এবং সে সব সহজে দূর হবে না। চিকিৎসা, শিল্প, সাহিত্য, প্রেস বিভাগে কাজ ইত্যাদি এদের ভাল হবে। এদের জীবনে একটাই লক্ষ্য প্রচুর অর্থ উপার্জন করা। আর সেই অর্থে আনন্দে জীবন কাটানো। বৃষ, কন্যা, কর্কট, বৃশ্চিক রাশির সঙ্গে বন্ধুত্ব বা বিবাহ শুভ হয়।

টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ রানের নজির আফগানিস্তানের

নিজেদের দেশে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের উপায় নেই। তাই ভারতের মাটিতে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে হোম সিরিজ খেলছেন আসঘার আফঘানরা। প্রথম ম্যাচে এসেছিল পাঁচ উইকেটে জয়। আর দ্বিতীয় ম্যাচে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান তুলে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের সিরিজ পকেটস্থ করল আফগানিস্তান। দেরাদুনে আইরিশদের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কার দলগত সর্বোচ্চ ২৬৩ রানের নজির ভেঙে ৮৪ রানের বিরাট জয় তুলে নিল আফগানরা। শুধুমাত্র টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে দলগত সর্বোচ্চ রানের নজিরই নয়। সিরিজ জয়ের পথে এদিন দেরাদুনে একাধিক নজির গড়ল আফগানিস্তান। প্রথমে ব্যাট করে শনিবার ওপেনার হজরতুল্লাহ জাজাইয়ের অপরাজিত ১৬২ রান ও আরেক ওপেনার উসমান ঘানির ৭৩ রানে ভর করে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ২৭৮ রানের সর্বাধিক স্কোর করে আফগানরা। ভেঙে দেয় ২০১৬ পাল্লেকেলেতে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার সর্বাধিক ২৬৩ রানের নজির। পাশাপাশি মাত্র ৬২ বলে বিধ্বংসী ১৬২ রানের ইনিংস খেলে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের নজির গড়েন হজরতুল্লাহ। এশীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে আফগান ওপেনারের এই ইনিংস সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ। একইসঙ্গে ওপেনিং পার্টনারশিপে এদিন ২৩৬ রান তুলে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে যে কোনও উইকেটে সর্বোচ্চ রানের পার্টনারশিপ গড়ার নজির গড়েন হজরতুল্লাহ-ঘানি। ঘানি ৪৮ বলে ৭৩ রান করে সাজঘরে ফিরলেও ১৬২ রানে অপরাজিত থাকেন জাজাই। শেষ অবধি নির্ধারিত ২০ ওভারে আইরিশদের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২৭৯।
জবাবে শুরুটা এদিন মন্দ করেনি আয়ারল্যান্ডও। ওপেনিং জুটিতে ১২৬ রান তুলে দলকে লড়াইয়ে রাখেন স্টার্লিং-ও’ব্রায়েন। কিন্তু ৩৭ রানে ও’ব্রায়েন ফিরতেই নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট খোয়াতে থাকে আইরিশরা। সেইসঙ্গে কমতে থাকে রানের গতিও। শেষ অবধি নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৯৪ রান তুলতে সমর্থ হয় সফরকারী দল। আয়রল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ ৫০ বলে ৯১ রানের ইনিংস খেলেন ওপেনার পল স্টার্লিং। মাত্র ২৫ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নেন আফগান স্পিনার রশিদ খান। ৮৪ রানে ম্যাচ জয়ের পাশাপাশি ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ পকেটে পুড়ে নিল আফগানিস্তান।

হ্যাটট্রিকের অর্ধশতক লিও মেসির

সেভিয়ার বিপক্ষে নামলে বরাবরই জ্বলে ওঠে তাঁর বুটজোড়া। শনিবারও ব্যতিক্রম হল না তার। অ্যাওয়ে ম্যাচে শক্তিশালী সেভিয়ার বিপক্ষে এদিন কেরিয়ারের ৫০ তম হ্যাটট্রিক সেরে ফেললেন আর্জেন্তাইন তারকা লিও মেসি। মেসির হ্যাটট্রিক আর সুয়ারেজের একমাত্র গোলের সুবাদে দু’বার পিছিয়ে গিয়েও লা লিগায় সেভিয়াকে ৪-২ গোলে পরাস্ত করল বার্সেলোনা। কেরিয়ারে হ্যাটট্রিকের কেবল অর্ধশতক পূর্ণ করাই নয়, লা লিগায় এদিন আরও একটি রেকর্ড এদিন নিজের নামে লিখিয়ে নিলেন বাঁ-পায়ের জাদুকর। হ্যাটট্রিক করে সেভিয়ার বিরুদ্ধে ৩৫ ম্যাচে মেসির নামের পাশে জুড়ে গেল ৩৬টি গোল। যা লা লিগায় কোনও প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে যে কোনও ফুটবলারের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ গোলের নজির। ৪-২ গোলে জিতলেও শুরুটা যদিও এদিন বার্সাসুলভ হয়নি কাতালান ক্লাবটির। ম্যাচের ২২ মিনিটে সেভিয়ার ঘরের মাঠে এদিন জেসাস নাভাসের গোলে পিছিয়ে পড়ে বার্সেলোনা। যদিও সেই গোল ফিরিয়ে দিতে মিনিট চারেকের বেশি সময় নেয়নি বার্সেলোনা। ইভান রাকিটিচের ক্রসকে কাজে লাগিয়ে ১৬ গজ থেকে দুরন্ত ভলিতে স্কোরলাইন ১-১ করেন লিও মেসি। তবে বিরতির তিন মিনিট আগে ফের ঘরের মাঠে এগিয়ে যায় সেভিয়া। ৪২ মিনিটে সেভিয়াকে এগিয়ে দিয়ে বিরতিতে পাঠান গ্যাব্রিয়েল মার্কাডো।
বিরতি থেকে ফিরে এসে ম্যাচে সমতা ফেরাতে মরিয়া হয়ে ওঠে লিগ টপাররা। একঘন্টা পেরোতেই বক্সের মধ্যে আগুয়ান সুয়ারেজকে ফাউল করার অপরাধে বার্সেলোনা পেনাল্টির দাবি তুললেও তা নাকচ করে দেন রেফারি। যদিও এর কয়েক মিনিটের ম্যাচে দ্বিতীয়বারের জন্য দলকে সমতায় ফিরিয়ে আনেন মেসি। দেম্বেলের পাস থেকে বিপক্ষ গোলরক্ষক থমাস ভ্যাচলিককে পরাস্ত করে মেসির কিক জড়িয়ে যায় জালে। অনেকেই যখন ধরে নিয়েছেন ম্যাচ অমিমাংসিত ভাবে শেষ হতে চলেছে, তখন আরও একবার জ্বলে ওঠেন মেসি। কার্লেস অ্যালেনার শট সেভিয়া রক্ষণে প্রতিহত গোলে সুযোগসন্ধানী মেসি সেই বল ধরে গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে চিপ করে দেন। সেইসঙ্গে হ্যাটট্রিক এবং কেরিয়ারের ৬৫০ তম গোলের মালিক হন এই আর্জেন্তাইন সুপারস্টার। জয় নিশ্চিত হলেও বার্সার গোলক্ষুধা মেটেনি তখনও। ছয় ম্যাচ গোলহীন থাকার পর অতিরিক্ত সময়ে সেভিয়ার কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন উরুগুয়ে স্ট্রাইকার সুয়ারেজ। যদিও গোলের পিছনে অবদান সেই মেসির। ৯৩ মিনিটে মেসির পাস থেকে দুরন্ত লবে স্কোরলাইন ৪-২ করেন তিনি। এই জয়ের ফলে ২৫ ম্যাচ পর বার্সেলোনার ঝুলিতে ৫৭ পয়েন্ট। এই মুহূর্তে দ্বিতীয়স্থানে থাকা অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের থেকে ১০ পয়েন্ট এগিয়ে তারা।