sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের নেটওর্য়াক দুর্বল হয়ে পড়েছে

: মনিরুল ইসলাম কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মো. মনিরুল ইসলাম বলেছেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের নেটওর্য়াক দুর্বল হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের কোন স্থান নেই। তাদের তৎপররতা নেই বললেই চলে। তাদের নেটওর্য়াক দুর্বল হয়ে গেছে। তারপরও যেকোন ধরনের অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে।’ আজ রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত ‘মিট উইথ মনিরুল ইসলাম’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব) অনুষ্ঠানটি আয়োজন করে। মনিরুল ইসলাম বলেন, এদেশে জঙ্গি কার্যক্রম, উগ্রবাদ, সন্ত্রাসবাদ দমনে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সংস্থাসমূহের সাথে সমম্বয় রয়েছে। ভবিষ্যতে এই সমন্বয় আরো মজবুত হবে। তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা। কোন দেশ, জাতি ধর্মের সাথে এটাকে সম্পৃক্ত করা যাবে না। উন্নয়নশীল, অনুন্নয়নশীল এবং উন্নত কোন দেশই এ সন্ত্রাসের থাবা থেকে নিরাপদ নয়। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘সাম্প্রতিককালে শ্রীলঙ্কায় বর্বর সন্ত্রাসী হামলা একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। আমাদের দেশে এরূপ জঙ্গি বা সন্ত্রাসী হামলা চালানোর মতো সক্ষমতা জঙ্গিদের নেই। আমরা এ বিষয়ে তৎপর রয়েছি।’ আপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে মূলত ২০১৪ সালের শেষদিকে কতিপয় লোক ‘আইএস’ এ যোগদান করেছে বলে কথিত আছে। আমাদের ধারণা মতে তাদের কেউ ধরা পড়েছে, কেউ নিহত হয়েছে অথবা কেউ চিহ্নিত হয়েছেন। তারা যদি এখন দেশে ফিরতে চায় তাহলে তাদেরকে অবশ্যই এয়ারক্রাফট দিয়ে দেশে ফিরতে হবে। এর জন্য তাদের পাসপোর্ট লাগবে। যেহেতু তারা ২০১৪ সালের শেষের দিকে গিয়েছে তাদের পাসপোর্টের মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ার কথা। দেশে ফিরতে হলে তাদেরকে নতুন করে পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে হবে।’ মনিরুল ইসলাম বলেন, সিরিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে প্রাপ্ত পাসপোর্ট আবেদনগুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে যাচাই-বাছাই করে পাসপোট দেয়া হচ্ছে। তাই আমাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে তাদের দেশে আসা সম্ভব নয়। এরপরও কেউ যদি ফিরে আসতে চায় তাহলে এয়ারপোর্টেই গ্রেফতার করা হবে। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের অনেক দেশের কারাগারে জঙ্গীরা রেডিক্যলাইজড হচ্ছে। বাংলাদেশে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে যাদের নামে মামলা হয়, তাদের পৃথক কারাগারে রাখা হয়। শুধু কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে করে যখন তাদের আদালতে নেয়া হয়, তখনই অন্যান্য আসামীদের সাথে দেখা হয়। এর বাইরে অন্য আসামীদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ নেই। সন্ত্রাস বিরোধী আইনে গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিচারের জন্য ২টি সন্ত্রাস বিরোধী ট্রাইবুন্যাল গঠন করা হয়েছে। তাদের মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির চেষ্টা করা হচ্ছে। ধর্মভিত্তিক জঙ্গিবাদের আমদানিকারকরা চিহ্নিত হয়েছে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রথম দিকে যারা আফগানিস্তান গিয়েছিল তারাই দেশে ফিরে ধর্মীয় ও সহিংসতাভিত্তিক জঙ্গিবাদের সূচনা করেছে। প্রথমদিকের এসব আমদানিকারকদের অনেককে গ্রেফতার করা হয়েছে। কারো কারো ফাঁসি হয়েছে। কয়েকজন হয়তো পলাতক রয়েছে তবে সবাই চিহ্নিত। বাংলাদেশে আইএস’র খলিফা নিয়োগের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা আইএস এর নিজস্ব দাবি। বাংলাদেশ তাদের কোন খলিফা নাই। অপর প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য একটি বড় সমস্যা। তারা দীর্ঘদিন এ দেশে থাকলে সোশ্যাল ডিজঅর্ডারসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে যেতে পারে। তাদের দেশে পাঠাতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। রোহিঙ্গারা তাদের বাড়িঘর ও পরিবারের সদস্যদের হারিয়েছে, তারা ভবিষ্যতে উগ্রবাদের জড়িয়ে পড়তে পারে। তবে দেশের সকল গোয়েন্দা সংস্থা তাদের তীক্ষè নজরদারিতে রেখেছে। তাদের জঙ্গিবাদে জড়ানোর কোন সুযোগ নেই। তিনি বলেন, উগ্রবাদ ও সন্ত্রাস দমনে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি সবসময় ছিল। ২০১৬ সালে হলি আর্টিসানে হামলার পর এই জিরো টলারেন্স নীতি প্রধানমন্ত্রী পুনঃব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানে ক্র্যাব সভাপতি আবুল খায়ের, সাধারণ সম্পাদক দীপু সারওয়ার, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া ও পাবলিক রিলেশনস্ বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমানসহ ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ ও সিটিটিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিমান বাহিনীর যুদ্ধ বিমান ওভারহলিং ইউনিটের স্বীকৃতি সনদপত্র লাভ

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ২১৪ মেইন্টেন্যান্স, রিপেয়ারিং ও ওভারহলিং (এমআরও) ইউনিটের সফল কার্যক্রমের স্বীকৃতি স্বরূপ এই ইউনিটকে চীনের জিলিন এয়ারক্রাফট মেইন্টেন্যান্স কোম্পানী লিঃ স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ওভারহল ইউনিট হিসেবে সনদপত্র প্রদান করেছে। বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে এ উপলক্ষে আজ এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ একথা জানানো হয়েছে। আইএসপিআর জানিয়েছে, পূর্বে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে যুদ্ধ বিমান ওভারহল এর কোন ফ্যাক্টরী ছিলনা, যার জন্য নির্দিষ্ট সময় অন্তর চীনের তৈরী বিমানগুলোকে ওভারহলিং এর জন্য সুদূর চীনে পাঠাতে হতো। এতে করে একদিকে যেমন অনেক সময়ের প্রয়োজন হতো, তেমনিভাবে প্রয়োজন হতো প্রচুর অর্থের। এখন দেশে ওভারহলিং-এর মাধ্যমে সময় ক্ষেপণ রোধের পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করা সম্ভব হচ্ছে। অপারেশনাল সক্ষমতার ক্ষেত্রেও এক ধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ বিমান বাহিনী। ২১৪ এমআরও ইউনিট এর এই সফলতাকে বিবেচনায় নিয়ে কারিগরি সহায়তা প্রদানকারী চীনের জিলিন এয়ারক্রাফট মেইন্টেন্যান্স কোম্পানী লিঃ ২১৪ এমআরও ইউনিটকে স্বীকৃতিস্বরূপ ওভারহল ইউনিট হিসেবে এই সনদপত্র প্রদান করে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এবং তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে ২০১১ সালের ৪ ডিসেম্বর স্থাপিত হয় বঙ্গবন্ধু এ্যারোনটিক্যাল সেন্টার (বিএসি)। বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে স্বনির্ভর করে তোলার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু এ্যারোনটিক্যাল সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হয়। বঙ্গবন্ধু এ্যারোনটিক্যাল সেন্টারের অর্ন্তগত ২১৪ এমআরও ইউনিটও একই সাথে কার্যক্রম শুরু করে। চীনের প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের (ওইএম) সার্বিক তত্ত্বাবধানে জিলিন এয়ারক্রাফট মেইন্টেন্যান্স কোম্পানী লিমিটেডের সার্বিক সহযোগিতায় এই ইউনিট প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে বিমান বাহিনীর প্রকৌশলী ও টেকনিশিয়ানগণ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে বিমান ওভারহল করতে সক্ষম। বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান কর্তৃক সফলভাবে ওভারহল করে প্রথম বিমানটি হস্তান্তর করা হয় ২০১৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর। বর্তমানে আরো ৩ টি বিমান, বিমান বাহিনীর নিজস্ব টেকনিশিয়ান কর্তৃক ওভারহল কার্যক্রমের আওতায় রয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে ২১৪ এমআরও ইউনিটকে সনদপত্র অর্জনের জন্য অভিনন্দন জানান। সহযোগিতার জন্য তিনি চীন সরকারকে ধন্যবাদ জানান এবং চীনের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এছাড়াও তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নপূরণে এই ২১৪ এমআরও ইউনিট ভবিষ্যতে বিমান প্রস্তুত করতে সক্ষম হবে বলে আশা ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত ২১৪ এমআরওইউ ওভারহলিং ইউনিট হিসেবে সনদপত্র পাওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং সেই সাথে ভবিষ্যতে বিমান বাহিনীর অপারেশনাল কার্যক্রম আরও ত্বরান্বিত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত সেনা ও নৌবাহিনী প্রধান, সাবেক বিমান বাহিনী প্রধানগণ, বিমান বাহিনীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ, চীনা দূতাবাসের প্রতিনিধিগণ এবং অন্যান্য সামরিক ও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষায় দুটি আইন আগামী বাজেট অধিবেশনে উপস্থাপন করা হবে : তথ্যমন্ত্রী

গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষায় প্রণীত ‘গণমাধ্যমকর্মী আইন’ এবং ‘সম্প্রচার আইন’ জাতীয় সংসদের আগামী বাজেট অধিবেশনে উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (বুধবার) একটি অধিবেশন শুরু হবে। কিন্তু এ অধিবেশনে আমরা আইন দুটি উপস্থাপন করতে পারবো না। তবে আশা করছি এর পরের অধিবেশনে আইন দুটি উপস্থাপন করতে পারবো। এই আইন পাস হলে সাংবাদিকদের চাকরির নিশ্চয়তাসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে সুরক্ষা নিশ্চিত হবে।’ তথ্যমন্ত্রী আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়েরর সভা কক্ষে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের নেতাদের সঙ্গে আয়োজিত বৈঠকে এসব কথা বলেন। হাছান মুহমুদ বলেন, গণমাধ্যম কর্মীদের সুরক্ষায় গণমাধ্যম কর্মী আইন ও সম্প্রচার আইনের খসড়া চূড়ান্ত করেছে তথ্য মন্ত্রণালয়। এটি ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আশা করছি আইন মন্ত্রণালয় দ্রুত সময়ের মধ্যে ভেটিং দিয়ে দেবে। তিনি বলেন, আমরা আইন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেছি যাতে দ্রুত ভেটিং দিয়ে দেয়। এরপরই মন্ত্রিসভা হয়ে আইন দুটি জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করবো। তবে আগামীকাল শুরু হওয়া অধিবেশনে উপস্থাপন করা সম্ভব হবে না। আশা করছি এর পরের অধিবেশনে উপস্থাপন করতে পারবো। ‘গণমাধ্যমকর্মীদের চাকরির নিশ্চয়তার জন্য উদ্যোগ নেবেন কিনা’ এ বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, গণমাধ্যমকর্মী আইন যখন হবে তখন চাকরির নিশ্চয়তা থেকে শুরু করে সব কিছুর আইনি সুরক্ষা তখনই প্রতিষ্ঠিত হবে। আইনটি দ্রুত সংসদে পাস করতে পারলেই সুরক্ষা তৈরি হবে। হাছান মাহমুদ বলেন, বিদেশি চ্যানেলের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকার বিজ্ঞাপন বাইরে চলে যাচ্ছে, চ্যানেলগুলোতে অর্থ সংকট। এ সংকটের কারণে সাংবাদিকদের বেতন দেওয়ার ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা। অনেক ক্ষেত্রে বার্তা বিভাগ বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে, এগুলো কোনোটাই হতো না যদি বিদেশে বিজ্ঞাপন চলে না যেতো। টিভি চ্যানেলগুলোর ক্রম ঠিক করার জন্য এ বছরের মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামের পাশাপাশি সব সিটি করপোরেশনে সিস্টেম ডিজিটাল করে ফেলার আহ্বান জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। সাংবাদিক নেতাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তথ্যমন্ত্রী জানান, এশিয়া সামিট আয়োজনে তথ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষে সহযোগিতা করা হবে। বৈঠকে জিটিভি ও সারা বাংলার ডট কমের এডিটর ইন চিফ সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের চেয়ারম্যান রেজওয়ানুল হক ও সদস্য সচিব শাকিল আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মুজিব বর্ষ উদযাপন নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সমুন্নত রাখতে অনুপ্রাণিত করবে : স্পিকার

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, মুজিব বর্ষ-২০২০ উদযাপন নতুন প্রজন্মকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে সমুন্নত রাখতে অনুপ্রাণিত করবে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি’র সভাপতিত্বে আজ সংসদ ভবনের কেবিনেট কক্ষে জাতীয় সংসদের পক্ষ থেকে ‘‘মুজিব বর্ষ-২০২০’’ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি ও করণীয় সভায় তিনি একথা বলেন। এসময় তিনি আরো বলেন, ‘মুজিব বর্ষ পালন দেশপ্রেমে উজ্জ্বীবিত হয়ে দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করতে ভবিষ্যৎ তরুণদেরকে উৎসাহিত করবে।’ প্রস্তুতি সভায় গণপরিষদ, জাতীয় সংসদ, বিভিন্ন সভা সেমিনার ও আন্তর্জাতিক অঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর বক্তব্য প্রদর্শন, প্রচার ও পুস্তিকা সংকলন, বিশিষ্ট দেশী-বিদেশী নাগরিকদের আমন্ত্রণ, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক ও সামাজিক দর্শন নিয়ে বিশেষ ডকুমেন্টারী প্রস্তুত ও প্রদর্শন, সংসদ ভবনকে সুসজ্জ্বিতকরণ, বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতা আয়োজন, জাতীয় সংসদে বঙ্গবন্ধু কল্যাণ তহবিল গঠন, সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে মুজিব বর্ষ উদযাপন আলোচ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্তকরণ এবং বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ‘‘মুজিব বর্ষ-২০২০’’ উদযাপন বিষয়ে প্রস্তাব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সভার শুরুতে শ্রীলংকায় উপসানালয় ও হোটেলে বর্বরোচিত হত্যাকান্ডের নিন্দা ও শোক জানানো হয়। শেখ সেলিম এমপি’র নাতি শিশু জায়ানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়। সভায় ডেপুটি স্পিকার মো: ফজলে রাব্বী মিয়া, চীফ হুইপ নূর-ই- আলম চৌধুরী, হুইপ আতিউর রহমান আতিক, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি, হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, হুইপ সামশুল হক চৌধুরী,তোফায়েল আহমেদ এমপি,আমির হোসেন আমু এমপি, সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি, র.আ. ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি, আ. স.ম ফিরোজ এমপি, রুস্তম আলী ফরাজী এমপি, উপাধ্যাক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি, শহীদুজ্জামান সরকার এমপি, মির্জা আজম এমপি, মেজর(অব:)রফিকুল ইসলাম এমপি, মুহাম্মাদ ফারুক খান এমপি, মেহের আফরোজ চুমকি এমপি,আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি, এ কে এম রহমতুল্লাহ এমপি, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি, রমেশ চন্দ্র সেন এমপি, শাজাহান খান এমপি, আব্দুল মতিন খসরু এমপি, খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি,ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, মো. আলী আশরাফ এমপি, আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি, মো: শামসুল ইসলাম টুকু এমপি, আ ফ ম রুহুল হক এমপি, আবুল কালাম আজাদ এমপি, মো. মকবুল হোসেন এমপি অংশ নেন। সভায় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রবাসীদের কল্যাণ নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদানের জন্য প্রবাসী বাংলাদেশীদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণ নিশ্চিত করা তাঁর সরকারের দায়িত্ব। তিনি বলেন, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধিতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিশেষ অবদান রয়েছে। বিশেষ করে এক্ষেত্রে শ্রমিকদের অবদান অনেক বেশি। এজন্য তাদের সুযোগ-সুবিধার বিষয়টি দেখা আমাদের দায়িত্ব। প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রবাসীরা তাদের অবস্থানকারী দেশগুলোর অবকাঠামো ও অর্থনৈতিক উন্নয়নেও ভূমিকা রাখছে। তিনি আজ সকালে এখানে ব্রুনাইয়ের রাজধানীর জালান কেবাংসান কূটনৈতিক জোনে চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে ভাষণকালে একথা বলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন ও ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) মাহমুদ হোসেইন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশীর সংখ্যা বেশি এমন সব দেশে নিজস্ব মিশন নির্মাণের উপর অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। তবে পর্যায়ক্রমে প্রতিটি দেশে বাংলাদেশের নিজস্ব মিশন ভবন নির্মিত হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রবাসীদের সংখ্যা বেশি এমন দেশগুলোতে তাদের ছেলে-মেয়েদের যথাযথ শিক্ষার জন্য অন্তত একটি করে বাংলাদেশী স্কুল প্রতিষ্ঠার নির্দেশ ইতোমধ্যে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনকালে বাংলাদেশ মিশনের জন্য কিছু ভবন কিনেছিলেন। কিন্তু তাঁর হত্যাকান্ডের পর এ ব্যাপারে আর কেউ কোন উদ্যোগ নেয়নি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এর ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও জাপানসহ বিভিন্ন দেশে নিজস্ব মিশন তৈরির উদ্যোগ নেয়। আমরাও বিভিন্ন দেশে নিজস্ব মিশন ভবন তৈরির জন্য জমি কিনি। ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের চ্যান্সেরি ভবনের স্থাপত্য নকশার প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় আবহাওয়া, পরিবেশ ও অবকাঠামোর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ভবনটি নির্মাণে গুরুত্বারোপ করেন। মিশন ভবনের সুন্দর নকশা তৈরির জন্য প্রধানমন্ত্রী এর স্থপতি রোজাইন মেরি যান্তি ও তার টিমকে ধন্যবাদ জানান। রোজাইন মেরি একজন আইন প্রণেতা এবং তিনি কয়েকবার বাংলাদেশে এসেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই চ্যান্সেরি ভবনের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশীরা অনেক সেবা পাবেন এবং যা তাদেরকে এ দেশে স্বচ্ছন্দে চলাফেরায় সহায়তা করবে। এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ১৮ মাসে নির্মীয়মান এই ভবনটি উদ্বোধনে তিনি আবারো ব্রুনাই সফর করবেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার একটার পর একটা বাংলাদেশ মিশন নির্মাণ করছে। ইতালীতে বাংলাদেশ চ্যান্সেরি ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভবনটি উদ্বোধনের জন্য তিনি ইতালী সফর করবেন। ব্রুনাইকে একটি সুন্দর দেশ হিসেবে অভিহিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্রুনাইয়ের মতো এখনো আরো অনেক সুন্দর স্থান রয়েছে, যার খোঁজ এখনো বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা পায়নি। এই স্থানগুলো আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্যের নতুন গন্তব্য হতে পারে। পরে তিনি রয়েল রেজালিয়া মিউজিয়াম পরিদর্শন করেন।

বুধবার বিকেলে বসছে সংসদ অধিবেশন

একাদশ জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন বুধবার বিকেল ৫টায় শুরু হচ্ছে। সংসদ অধিবেশন কত দিন চলবে তা নির্ধারণে অধিবেশন শুরুর এক ঘণ্টা আগে সংসদের কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠক হবে।। সূত্র জানায়, এ অধিবেশনে সরকারি চাকরিতে ঢোকার বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব আনা হতে পারে। প্রস্তাবটি উত্থাপন করবেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও ঢাকা-৮ আসনের সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন। প্রস্তাবে তিনি সরকারি চাকরিতে ঢোকার বয়সসীমা ৩৫ বছর ও অবসর গ্রহণের বয়সসীমা ৬২ বছরের প্রস্তাব করবেন। ইতোমধ্যে সংসদের আইন শাখা-২ এ সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি জমা দিয়েছেন তিনি। সংসদে সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি গৃহিত হলে এ নিয়ে সরকারের কাজ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গেলো ৩ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এ অধিবেশন আহ্বান করেন। সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ অধিবেশন আহ্বান করেন রাষ্ট্রপতি। একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন গেলো ৩০ জানুয়ারি শুরু হয়। ২৬ কার্যদিবস চলা সে অধিবেশন শেষ হয় ১১ মার্চ। সংবিধান অনুযায়ী একটি অধিবেশন শেষ হওয়ার পর ৬০ দিনের মধ্যে আরেকটি অধিবেশন আহ্বানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তাই জুনে বাজেট অধিবেশন শুরুর আগে নিয়ম রক্ষায় এ অধিবেশন আহ্বান করা হয়েছে।

ভোটার হচ্ছে তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠী: কবিতা খানম

তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এছাড়া যেসব হিন্দু সম্প্রদায়ের মেয়ে বিয়ের আগে ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করতে চান না তাদের বিষয়েও লক্ষ্য রাখা হবে। বললেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম। আজ মঙ্গলবার সিলেটের জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। কবিতা খানম বলেন, তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। একটি নির্ভূল তালিকা যেনো করা যায় সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে প্রশাসনকে নির্দেশ দেন তিনি। নির্বাচন কমিশনার বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের অনেক মেয়ে আছেন, যারা বিয়ের আগে ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করতে চান না। এবার এই বিষয়গুলোও লক্ষ্য রাখতে হবে। তিনি আরও বলেন, যাদের বয়স ১৮ বছর তাদের নাম তালিকায় তোলা হবে। কোনো নারীর নাম যেন বাদ না পড়ে, সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। নাম অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি মৃত ভোটারদের নাম তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই মৃত্যুসনদ যাচাই করতে হবে। অনুষ্ঠানে সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরীসহ স্থানীয় প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন।অনুষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম।