sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » » ফায়দা হাসিলের রাজনীতি 'বিএনপির জাতিসংঘ বৈঠক'



বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মধ্যস্থতা করার বিষয়ে জাতিসংঘের কাছে বিএনপির দাবি বাস্তবসম্মত নয় বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, সরকার আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণ না জানালে সংস্থাটি চাইলেও বাংলাদেশের নির্বাচনে মধ্যস্থতা করার সুযোগ নেই। এছাড়া সম্প্রতি দুপক্ষের বৈঠক নিয়ে বিএনপি ফায়দা হাসিলের রাজনীতি করছে বলেও মনে করেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা।

 রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ মহাসচিব বাংলাদেশ সফরকালেই তার কাছে সময় চেয়েছিলো বিএনপি। পায় নি। বিএনপির আগ্রহে শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে দলটির প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক হলেও সেখানে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে সময় দেন সংস্থাটির চতুর্থ ধাপের কর্মকর্তা রাজনীতি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি মিরোস্লাভ জেনকা।

জাতিসংঘের মহাসচিবের অধীনে ২১টি বিভাগের প্রধান একজন করে আন্ডার সেক্রেটারি। রাজনীতি বিভাগে সে আন্ডার সেক্রেটারির অধীনে আরো একজন অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারির পর অবস্থান মিরোস্লাভের। সাধারণত বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর আগ্রহে জাতিসংঘ নিয়মিত এ ধরনের বৈঠক করে থাকে।

বৈঠকের বিষয়ে জাতিসংঘ কিংবা বিএনপির আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া না দিলেও গণমাধ্যমগুলো তাদের যুক্তরাষ্ট্র সূত্রের বরাত দিয়ে বলছে, বিএনপি নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, জাতীয় নির্বাচনে জাতিসংঘের মধ্যস্থতা করা, বেগম জিয়ার মামলা ও চিকিৎসা বিষয়ে জাতিসংঘকে শক্ত অবস্থান নেয়ার আহ্বান জানায়। তবে, বিশ্লেষকরা বলছেন, জাতিসংঘ চাইলেও বাংলাদেশের নির্বাচনে মধ্যস্থতা করতে পারবে না।


আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. তারেক শামসুর রেহমান বলেন, 'জাতিসংঘ একটি বিরোধী দলের আমন্ত্রণে বাংলাদেশে এসে নির্বাচনে মধ্যস্থতা করবে অথবা পর্যবেক্ষকের ভূমিকা পালন করবে এর কোন সুযোগ নেই। জাতিসংঘ তখনই উদ্যোগ নিতে পারবে যখন আমন্ত্রিত হয়। রাষ্ট্র আমন্ত্রণ জানালে এবং সরকার ও বিরোধী দল উভয়ই যদি আমন্ত্রণ জানায় তাহলেই সম্ভব।'

খুব সাধারণ একটি বৈঠককে উচ্চতর মাত্রা দেয়া এবং সেটাকে ঘিরে রাজনীতিতে চাঞ্চল্য তৈরি করে বিএনপি ফায়দা হাসিল করতে চায় বলে মত রাজনীতি বিশ্লেষকদের।রাজনীতি বিশ্লেষক মহিউদ্দিন আহমদ বলেন, ' জাতিসংঘের মহাসচিবের আমন্ত্রণে গেছেন এই কথাটা বললে তাদের যাওয়া এবং বলাটা আরও গুরুত্ব পাবে বলে তারা মনে করছেন। মানুষ হয়তো এই কথা শুনলে গুরুত্ব দেবে এইটাই তারা ভেবেছে। এটা তারা না করলেও পারতেন।'

এর আগে ২০১৩ সালে গেলো নির্বাচনের আগেও জাতিসংঘ তাদের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোকে পাঠিয়েছিলো দুদলের মধ্যে আলোচনার পরিবেশ তৈরি করতে। তবে সেটা শেষ পর্যন্ত সাফল্যের মুখ দেখেনি।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply