sponsor

sponsor

Slider

আন্তর্জাতিক

জাতীয়

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

Facebook Like Box

» » চামেলির চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী



সাবেক নারী ক্রিকেটার চামেলি খাতুনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


 বুধবার (৩১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজশাহী জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তারা চামেলির বাড়ি গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন বলেন জানিয়েছেন, রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক রফিউস সামস প্যাডী।

চামেলি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, চামেলির মেরুদণ্ডের ডিস্কগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার কারণে শরীরের ডান পাশ অবশ হয়ে যাচ্ছে। লিগামেন্ট ছিঁড়ে যাওয়াসহ মেরুদণ্ডে হাড়ের ব্যথাও রয়েছে তার। তার মেরুদণ্ডে শিগগির অস্ত্রোপচার করতে হবে। প্রায় এক মাস আগে তাকে ভারতে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু অর্থসঙ্কটে তিনি যেতে পারেননি।

রফিউস সামস প্যাডী বলেন, জেলা প্রশাসক ঢাকায় অবস্থান করার কারণে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তারা ক্রিকেটার চামেলির সঙ্গে দেখা করেন।

“এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়ার বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়।”

চামেলির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রস্তুত করেতে জেলা প্রশাসন ও ক্রীড়া সংস্থা সহযোগিতা দেবে বলেও তারা চামেলিকে আশ্বাস দেন বলে রফিউস সামস জানান।




এরআগে চামেলি খাতুনের চিকিৎসার সম্পূর্ণ খরচ বহন করার ঘোষণা আসে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে। প্রয়োজনে দেশের বাইরে নিয়ে চিকিৎসা করানো হবে বলে জানান বিসিবি'র প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। এরইমধ্যে চামেলি খাতুনের সাথে বিসিবির পক্ষ থেকে যোগাযোগ হয়েছে বলেও জানান সুজন। এর আগে তার চিকিৎসায় এগিয়ে এসে আর্থিক সহায়তা করেছেন জাতীয় দলের তিন ক্রিকেটার মুশফিক, সাকিব ও মুস্তাফিজ।

রাজশাহীর হেতেমখা বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করা চামেলি একজন আনসার সদস্য। তার আয়েই চারজনের সংসারটি চলে। ১৯৯৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত জাতীয় নারী ক্রিকেট দলে ছিলেন চামেলি। ২০১০ সালে এশিয়া কাপে রানার আপ বাংলাদেশ দলেও তিনি খেলেছেন।

প্রায় আট বছর আগে জিম করার সময় তিনি কোমরে ব্যথা পান। এরপর থেকে মাঝেমধ্যেই ব্যথা অনুভব হত। ওষুধ খেয়ে ব্যথা কমিয়ে আনসারের চাকরি চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর অফিসে কাজ করার সময় ডান হাত আর পায়ে কাঁপুনি উঠে। তখন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এখন বাইরে গিয়ে সার্জারির জন্য দরকার কমপক্ষে ১০ লাখ টাকা।

«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply