sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » নুসরাত হত্যা: আরও দুই ছাত্রী আটক




মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়ে হত্যায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কামরুন নাহার ও জান্নাতুল আফরোজ মনি নামে দুই ছাত্রী আটক করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই)। আজ মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে জান্নাতুল আফরোজকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা শাহ আলম৷ এর আগে সোমবার রাতে নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে কামরুন নাহার নামে তার এক সহপাঠিকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফেনী পিবিআই-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুজ্জমান। কামরুন নাহারের বাবার নাম ছালেহ আহাম্মদ ও জান্নাতুল আফরোজের বাবার নাম আবদুল আজিজ বলে জানা গেছে। আলোচিত এ মামলা এ পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। এরা হলেন- অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ দৌলা, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষের ভাগ্নি উম্মে সুলতানা পপি, জাবেদ হোসেন, যোবায়ের হোসেন, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, মো. শামীম, কামরুন নাহার ও জান্নাতুল আফরোজ। এদের মধ্যে মামলার এজহারভুক্ত আট জনের মধ্যে ৭ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। হাফেজ আবদুল কাদের নামে এজহারভুক্ত আরও এক আসামিকে এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে রোববার রাতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইনের আদালতে নুসরাত হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার অন্যতম আসামী নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামিম। জবানবন্দিতে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশে তারা নুসরাতের গায়ে আগুন দিয়েছে বলে স্বীকার করেছে। তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে পিবিআই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপর আসামিদের আটক করেছে। এর আগে টানা পাঁচদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জালড়ে ১০ এপ্রিল বুধবার রাত নয়টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান অগ্নিদগ্ধ নুসরাত জাহান রাফি। পরদিন সকালে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের বুঝিয়ে দিলে বিকেলে সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply