sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ব্যুরোফ্যাক্স কী? মেসি যে কারণে বার্সাকে ব্যুরোফ্যাক্স করলেন




ব্যুরোফ্যাক্স কী? মেসি যে কারণে বার্সাকে ব্যুরোফ্যাক্স করলেন

গেলো রাত থেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি কথায় ঘুরপাক খাচ্ছে যে, মেসি বার্সেলোনা ছাড়ার কথা ফ্যাক্স করে ক্লাবকে জানিয়েছেন। তবে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, কথাটা পুরোপুরি সত্য নয়, তবে বলা যায় কথাটা আধা সত্য। আসলে শব্দটি ফ্যাক্স নয়, হবে ব্যুরোফ্যাক্স। ব্যুরোফ্যাক্সের মাধ্যমেই বার্সাকে ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন মেসি। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন জেগেছে শব্দটা নিয়ে। ব্যুরোফ্যাক্স কী? ব্যুরোফ্যাক্স হচ্ছে, অর্ধেক ফ্যাক্স আর অর্ধেক পোস্ট অফিসের সমন্বয়। বিষয়টিকে বিস্তারিত বললে, এটি স্পেনের পোস্টাল সার্ভিসের একটি সেবা। জরুরি প্রত্যয়িত পত্র এই সেবার মাধ্যমে ইন্টারনেটেও পাঠানো যায়। এটি খুবই নিরাপদ কারণ এখানে বার্তা সরবরাহের সময় তৃতীয় পক্ষের স্বাক্ষর লাগে। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘এএস’ জানিয়েছে, আমাদের অনেক সময় প্রয়োজনীয় কাগজ বা বার্তা পাঠাতে হয় যার প্রমাণ রাখাটাও জরুরি। বার্তাটি যার কাছে পাঠানো হয়েছে সে বার্তাটি পেয়েছে কিনা সেটির প্রমাণও মেলে ব্যুরোফ্যাক্স সেবায়। যিনি বার্তা পাঠিয়েছেন, পরে যেনো সে আইনিভাবে প্রমাণ করতে পারেন যে, বার্তাটি পাঠিয়েছিলেন এবং যার কাছে পাঠানোর কথা সেটি সে নির্দিষ্ট তারিখে হাতে পেয়েছেন—এটাই হলো ব্যুরোফ্যাক্সের সুবিধা। এ ক্ষেত্রে প্রেরক আদালতে বার্তা পাঠানোর রশিদ প্রমাণ হিসেবে পেশ করতে পারেন। ব্যুরোফ্যাক্স করার জন্য স্প্যানিশ পোস্টাল সার্ভিসকে আগে থেকেই বার্তাটা ফ্যাক্স করতে হয়। তারা তখন ওই বার্তার প্রত্যয়িত কপি হাতে হাতে প্রাপকের কাছে ডেলিভারি করে থাকে। এরপর বার্তাটি প্রাপকের হাতে যে পৌঁছেছে তার রশিদ পাঠিয়ে দেয় প্রেরকের কাছে। এর মাধ্যমে আদালতে প্রমাণ হিসেবে বার্তা পাঠানোর রশিদ পেশ করতে পারেন প্রেরক। এখন সবার মনে প্রশ্ন হলো, মেসি কেনো ব্যুরোফ্যাক্স করে ক্লাব ছেড়ে যাবার ইচ্ছার কথা জানালেন বার্সাকে? বার্সায় মেসির চুক্তিপত্রে একটি শর্ত হলো, মৌসুম শেষে তিনি নিজের ইচ্ছায় ক্লাব ছাড়তে পারবেন। সংবাদমাধ্যমের মতে, গত মৌসুম শেষে মেসির বার্সা ছাড়ার ইচ্ছার কথা জানানোর শেষ সময় ছিল ৩১ মে। যদিও এই তারিখ ভিন্নভাবে এসেছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমগুলোতে। এক্ষেত্রে, মেসির আইনজীবীর যুক্তি হচ্ছে, করোনাভাইরাসের কারণে এ মৌসুমে মে মাসে লিগ ও চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ হয়নি। অস্বাভাবিক এই মৌসুমে আগের নিয়ম খাটে না। যে মাসে সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়েছে, সেটাকেই চলমান মৌসুমের শেষ মাস ধরতে হবে। আর যেহেতু বার্সা আগস্টেও এই মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলেছে, মেসির চুক্তির শর্তের মেয়াদ আগস্টের শেষ অর্থাৎ ৩১ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। আর যেহেতু এর আগেই আইনিপত্রের মাধ্যমে নিজের ক্লাব ছাড়ার কথা জানিয়েছেন মেসি, সেহেতু বাধাহীনভাবে তিনি ক্লাব ছাড়তে পারবেন। এখন আমরা সহজেই বুঝে নিয়েছি মেসি ব্যুরোফ্যাক্স করে বার্সাকে ক্লাব ছাড়ার কথা কেনো জানিয়েছেন। চুক্তির শর্ত মেনেই যে মেসি বার্সা ছাড়ার ইচ্ছার কথা ক্লাবকে জানিয়েছেন, সেটা যেনো তিনি আদালতে প্রমাণ করতে পারেন। আর সেজন্যই ব্যুরোফ্যাক্সের দ্বারস্থ হয়েছেন মেসি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply