sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ‘আইপিএল হবে অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রস্তুতি মঞ্চ’




আইপিএল হবে অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রস্তুতি মঞ্চ’

আইপিএলে অজি ক্রিকেটারদের আরও একবার পরখ করে নেয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে। অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে প্রস্তুতিটা ভালোভাবে সারতে যা সহায়ক হবে। এমনটাই মত ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামির। এদিকে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফ্ল্যাট উইকেট দেখে, অবসর ভেঙে আবারও ব্যাটিংয়ে নামতে ইচ্ছে করছে বলে জানিয়েছেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ডিরেক্টর অব ক্রিকেট মাইক হেসন। খেলতে যাচ্ছেন আইপিএলে। কিন্তু, মোহাম্মদ শামির দৃষ্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। গেলো মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকা দল ভারত সফরে গেলেও, করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করায় মাঠে নামা হয়নি ক্রিকেটারদের। বছরের শেষভাগে অস্ট্রেলিয়া সফর দিয়ে আবারও শুরু হবে টিম ইন্ডিয়ার লড়াই। আইপিএলকে ঐ সিরিজের প্রস্তুতির আদর্শ মঞ্চই ভাবছেন মোহাম্মদ শামি। মোহাম্মদ শামি বলেন, 'বড় একটা সিরিজের আগে আইপিএল খেলছি। এটা আমাদের জন্য খুব ভালো। আইপিএলের পাশাপাশি সবাই ঐ সিরিজ নিয়েও ভাবছে। নিজেদের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া সফর নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে।' ১০ নভেম্বর আইপিএল শেষেই অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশ্যে উড়াল দেবে বুমরাহ-শামিরা। অজি ব্যাটসম্যানদের ভালোই চেনেন তারা। তবুও আমিরাতের মাটিতে আইপিএলে বোলিংয়ের সময় স্মিথ-ওয়ার্নার-ফিঞ্চদের দুর্বলতাগুলো আরও একবার বুঝে নেয়ার চেষ্টা করবেন, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। মোহাম্মদ শামি আরো বলেন, 'অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা আইপিএলে খেলায় ভালো হয়েছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুখোমুখি হওয়ার আগে ওদের বিপক্ষে খেলতে পারছি। আশা করি, সিরিজের আগে প্রস্তুতি নিয়ে সবাই সন্তোষজনক অবস্থানে পৌঁছতে পারবো।' মাইক হেসনের ভাবনাটা আপাতত শুধুই আইপিএল জুড়ে। অধরা শিরোপা জিততে এবার যে আটঘাট বেঁধে নেমেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। আরসিবির মহাপরিকল্পনা তৈরিতে শামিল দলটির ডিরেক্টর অব ক্রিকেট হেসনও। মাত্র ৩২ বছর বয়সে কোচিং ক্যারিয়ার শুরু নিউজিল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটারের। শুরুতে কেনিয়া, এরপর নিজ দেশের জাতীয় দলেরও হেড কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন হেসন। আইপিএলের সৌজন্যে আপাতত ঠিকানা আমিরাত। মরুর ফ্ল্যাট উইকেট দেখে ব্যাটিংয়ের লোভটা সামলাতে পারছেন না তিনি। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ডিরেক্টর অব ক্রিকেট মাইক হেসন জানান, 'ইনজুরির কারণেই খেলা ছাড়তে হয়েছিলো। তবে, ঐ বয়সেই যে ক্রিকেট কোচিংয়ের সঙ্গে যোগ দিতে পেরেছি, সেটা ভাগ্যের ব্যাপার। ভিন্ন ভিন্ন পর্যায়ে কোচিংয়ের সুযোগ পাওয়ায় আমি অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পেরেছি। তবে হ্যাঁ, ফ্ল্যাট উইকেট দেখলে আফসোস লাগে। তখন মনে হয় এখনও যদি খেলতাম, ভালো হতো।' দুবাইয়ের উইকেট দেখে মাইক হেসনের ব্যাটিং সত্ত্বা আরও একবার জেগে উঠতে চাইছে। এই অনুভূতি কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সদের মধ্যেও সঞ্চারিত হোক, সেটাই যে চাওয়া থাকবে কিউই কোচের।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply